ক্যাটেগরিঃ সুরের ভুবন

১২-১২-১২ তে ম্যাডিসন স্কোয়ারে স্যান্ডী আক্রান্তদের জন্য কনসার্ট আয়োজন করা হল। বিটলসের স্যার পল ম্যাককার্টনি উঠলেন স্টেজে। প্রথমে তিনি ভাবছিলেন ডেভিড গ্রোলের সাথে জেমিং হচ্ছে আর কে না কে সহ শিল্পীরা বাজাচ্ছে। স্যার পল মাইক্রোফোনে বললেন, “আমি আসলেই জানি না এরা কারা; তারা বলছে কতদিন পর একসাথে হতে পেরে কতই না ভাল লাগছে। আমি বললাম, ওয়াহ! তোমরা দীর্ঘ সময় একসাথে বাজাওনি? তখনি কে একজন ফিসফিসিয়ে আমাকে বলল, ‘আরে এরা নির্ভানা, আর তুমি কার্ট!’ আমার তো বিশ্বাসই হচ্ছিল না।”

স্যার পল ম্যাককার্টনি বিটলস করেছেন যেটা ছিল সাধারণ রক ব্যান্ড, কিন্তু নির্ভানার কার্ট কোবেইন ছিল গ্রাঞ্জ রকের জনক, যেটার ঘরানাটা এমনই তার গীটারের ঝংকারে একটু আলাদাই ছিল ডিসটর্টশনের ব্যবহার। শুধু তাই না, কার্ট কোবেইনের গলার যে শ্রীল শাউট ভয়েস তা সত্যিই অনন্য। কিন্তু এখানে বিটলসের ভোকাল? যেন আমাদের দেশের ব্যান্ড ওয়ারফেইযের মুল ভোকাল জানে আলম!! একটা লিঙ্ক দিলামঃ

ডেভিড গ্রোল, ক্রিস্ট নোভোসেলিক, আর প্যাট স্মেয়ার কে দেখে নির্ভানা ব্যান্ডের মেম্বার রিইউনিয়ন ভাবল দর্শক। পল ম্যাককার্টনি এর সাথে তাদের কম্পোজ করা গান ‘কাট মি সাম স্ল্যাক’ প্রথম স্টেজে তারা পারফর্ম করে। এটা এখন আই টিউনসে চাইলে ডাউনলোড করাও যাবে।

কিন্তু কথা থেকেই গেল। যখন ডেভিড গ্রোলের সাউন্ড সিটি থেকে ‘কাট মি সাম স্ল্যাক’ গানটার স্টুডিও ভার্সন বের হল তখন কি আসলেই নির্ভানার নতুন ভোকাল স্যার পল ম্যাককার্টনি? শ্রোতার মুখে গুঞ্জন। চেলসি উড নামের এক ব্লগার ও উপস্থাপিকা তো বলেই বসল যে তাহলে নির্ভানা-বিটলসের কম্বিনেশন করে নাম হবে ‘ Come As+USSR’ বা ‘Smells Like+Um 64’, হায়রে!!

এদিকে কার্ট কোবেইনের স্ত্রী কুর্টনী লাভ মন্তব্য করে ফেললেন তার কাছে স্যার পল ম্যাককার্টনি কে মোটেও যথাযথ মনে হয় নি আর এও বললেন, “ যদি স্যার জন লেনন বেঁচে থাকতেন তাহলে খুব COOL হত”।

তবে এই কনসার্টে দু’কথা আসলেও দুটি কথা কিন্তু শেখা গেল।

প্রথমতঃ সঙ্গীতের ধারা বদলায় আর সেই সাথে রুচিও।

দ্বিতীয়তঃ পুরান শিল্পীরা কটাক্ষ ছেড়ে নতুনদের সাথে মিশে নতুনদের গান ধারণ করে উপস্থাপন করেন, পারুক না পারুক, হোক না হোক। নতুন তোমায় স্বাগত জানাই, তোমার সুরে নতুন দিনের গান গাই।

আমাদের দেশেও তাই দেখতে চাই। কবেকার সেরা ব্যান্ড বিটলস আর এখনকার নির্ভানা – ঘনারায় রক হলেও আকাশ পাতাল ব্যবধান। কিন্তু কনসার্টে একটি বারেও মনে হল না। পল ম্যাককার্টনী কি আমাদের অনেক বয়স্ক শিল্পীর মত বলেন না যে আমাদের সময়টা ছিল সেরা; কিন্তু সেই সেরা সময়ের মানুষটি তো আর এই সময়কে অতীতে নিতে পারবেন না, তাই তিনি তার সমালোচনা – ভ্রুকুটি ছেড়ে তিনি এসময়টিকে সেরা রূপ দিলেন। এই হল জীবন্ত কিংবদন্তী।

তথ্যঃ মিউজিক নিউজ, লাউডওয়াইর, পেইস্ট ম্যাগাজিন, বিলবোর্ড, ও হাফিংটন পোস্ট।

https://www.facebook.com/pages/WoWi/133782376650198?ref=hl