ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

সারা বিশ্বে যখন ওয়েব এর সমুদ্রে সফটওয়ার ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, গেমিং ইন্টারফেস, ইউজার ইন্টারফেস, মোবাইল এপ ডিজাইন ইত্যাদি শব্দগুলোর স্রোতে জোয়ার ভাটার আনাগোনা, তখন’ও বাংলাদেশে প্রোগ্রামার, ডিজাইনার এমনকি চাকরিদাতাদের মধ্যে এর সঠিক জব ডেসক্রিপশন তথা জব টাইটেল নিয়ে দোনোমনা ভাব কাটিয়ে উঠা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। এটা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, বিগত দশ বছরে বাংলাদেশের তুখোর ছেলেমেয়েরা মান সম্মত বিভিন্ন ডেস্কটপ এবং ওয়েব এপ্লিকেশন ডেভেলপ করে অনেক দৃষ্টান্তমূলক সুনাম অর্জন করে আসছে। একই সাথে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে রেমিটেন্স নিয়ে এসে দেশের অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির ক্ষেত্রে বিশেষ ভুমিকা পালন করছে। ঠিক এমনিএকটি সময়োপযোগী, আলোচিত এবং গুরুত্বপূর্ণ বিষয় এর উপর সবার আলোকপাত ঘটেছে যাকে বলা হচ্ছে “ইউজার এক্সপেরিয়েন্স” সংক্ষিপ্ত করণ “ইউএক্স”।

কী এই ইউএক্স? কেন এই ইউএক্স? কোথায় এই ইউএক্স এর প্রয়োজন? কারা এই ইউএক্সের অন্তর্ভূক্ত? এই সকল প্রশ্নের বিস্তারিত সব গুরুত্বপূর্ণ তথ্য নিয়ে বাংলাদেশের সফটওয়্যার সেক্টরে সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগে এগিয়ে এসেছেন একজন ইউ এক্স এক্সপার্ট “ওয়াহিদ বিন আহসান”। দীর্ঘ সাত বছর ধরে যিনি চমৎকার দক্ষতার সাথে বিভিন্ন দেশী, বিদেশী সফটওয়ার কোম্পানিতে কখনো তুখোড় ডিজাইনার হিসেবে, কখনো দক্ষ প্রজেক্ট ম্যানেজার, এনালিস্ট এবং বর্তমানে ইউ এক্স আর্কিটেক্ট হিসেবে কাজ করছেন একটি আমেরিকান প্রতিষ্ঠান “ডেসমি বিডি”তে।

ওয়াহিদের ইউ এক্স সম্পর্কে ধারণা, “ইউএক্স ইজ ইজি” যা পরবর্তিতে তার স্লোগান হয়ে দাঁড়ায় এবং তার এই নলেজ শেয়ারিং দিয়ে ভিন্ন মাত্রায় শুরু হয় বাংলাদেশের সফটওয়্যার ডিজাইন জগতে নতুন যাত্রা ! অনলাইনে প্রতি শনিবার রাতে সম্পূর্ণ নিজ উদ্যোগে শুরু হয় “ইউ এক্স স্যাটারডে উইথ ওয়াহিদ”। তার সেশনগুলোর মাধ্যমে অনেকে পরিচিত হতে থাকে ইউ এক্সের সাথে। পাশাপাশি ইউএক্সের উপর আগ্রহী বিভিন্ন পেশার লোকজন, স্টুডেন্টদের নিয়ে ফ্রি অনলাইন ট্রেনিং এর মধ্যমে ব্যাপক সারা পান তিনি। ইউজার এক্সপেরিয়েন্সের চমৎকার সব ব্যাখা তুলে ধরেন বিভিন উদাহরণ ও প্রেজেন্টেশন এর মাধমে যা সহজেই সবার কাছে বোধগম্য এবং প্রয়োজনীয়তার ব্যাপকতা পরিষ্কার হয়ে উঠতে থাকে। জানার ক্ষুধা সবসময়ই আমাদের তাড়িত করে। হয়ত সেজন্যই, ভার্চুয়াল জগতের সীমাবদ্ধতা থেকে বেরিয়ে ছেলেমেয়েরা চাইছিল আরো বেশিকিছু হাতে কলমে জানতে এবং প্রাকটিকালি শিখতে। তারপর দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে তার আমন্ত্রনের অনুরোধ আসতে শুরু করল। শেখানোর  কিংবা জ্ঞান ভাগাভাগির অকৃত্তিম সহায়তার সুন্দর মননশীলতার সাথে তার টিমের ছেলেমেয়েরা বরাবরই পরিচিত। এবারও তার ব্যাতিক্রম ঘটল না। তার ফেসবুকের ভোটিং এর উপর ভিত্তি করে তার প্রথম অনসাইট সেশনটি হয় খুলনার প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এ ১৯’শে জানুয়ারি ২০১৩ তে। এরপর ঢাকা ইউনিভার্সিটির আইআইটি, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির কম্পিউটার সায়েন্স ডিপার্টমেন্টে এবং ঢাকা ইউনিভার্সিটি অফ ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টেকনোলজি, গাজীপুর। ২০১৪, মার্চ এ রংপুর এর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে হয়ে গেছে আরেকটি দিন ব্যেপি কর্মশালা। প্রতি মাসের একটি শনিবার ওয়াহিদ  এই দিন ব্যাপি কর্মশালাগুলো পরিচালনা করেন।  ছাত্র ছাত্রিদের সাড়ায় এবং উক্ত ইউনিভার্সিটির কর্তৃপক্ষের আবেদনে তার এই ফ্রি কর্মশালার জন্য ছুটে যান দেশের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্তে। ওয়াহিদেরতার লক্ষ্য জানতে চইলে তিনি বলেন, “কিভাবে একটা ওয়েব এর ইউজার এক্সপেরিএন্স ভাল করা যায় এ ব্যাপারে যদি সফটওয়্যার ইন্ডাস্ট্রির ছাত্র ছাত্রিদের পড়াশোনার পাশাপাশি প্রাক্টিকাল ধারনাটা দিয়ে ধরিয়ে দেয়া যায় তবে তারা বিভিন্ন এপ্লিকেশন তৈরির সময় আরও সুন্দর প্রোডাক্ট ইউজারদের উপহার দিতে পারবে। এছাড়া ওয়েব কিংবা যেকোনো এপ ডিজাইনের জন্য সবারই ইউ এক্স এবং ইউ আই সম্পর্কে একটি সুস্পষ্ট ধারনা থাকাটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তাই শিক্ষানবিস সময়েই ইউ এক্স সম্পর্কে সম্মক  জ্ঞান অর্জন করতে পারলে এবং ভাল দক্ষতা থাকলে পরবর্তি ধাপগুলো অনেক সহজ হয়ে  যাবে।

  _MG_0881
wahid taking ux class
wahidafter-iftar-group

ইউ এক্স সম্পর্কে আরও বিস্তারিত জানতে এবং ইউ এক্স সবগুলো ইভেন্ট এর আপডেট জানতে আমাদের সাথেই থাকুন –

UX Saturday With Wahid

নিলীম আহসান
CEO / Co-Founder
Userhub
FOUNDER
APONAMAY