ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

 

জীবন একটাই। দুঃখ, কষ্ট, লাঞ্ছনা, গঞ্জনা সব কিছু মিলে মিশেই আমাদের এই ক্ষুদ্র জীবন। সুখ যেমন দীর্ঘস্থায়ী নয় তেমনি দুঃখও চিরকাল থাকে না। কিন্তু ছোট ছোট অনেক ভুল স্টেপ এর কারনে জান্তে কিংবা অজান্তে আমরা আমাদের জীবনকে বিভীষিকাময় করে তুলি। মেঘ সরে গিয়ে আকাশ যখন পরিষ্কার হয়ে যায়, চারিদিকটা কত ঝলমলে হয়ে উঠে। কিন্তু, মেঘের সাথে সাথে নিজেকে হারিয়ে ফেললে একসময় স্বচ্ছ নীল আকাশে ওঠা রংধনুটাকে আর দেখা হয় না ।

হাসি ঠাট্টার ছলে, বন্ধুদের সাথে মজা করতে করতে কিংবা জীবনের কঠিন কোন বেদনাদায়ক মুহূর্তে কিছু ক্ষণ নিজেকে ভুলিয়ে রাখার জন্য সহজেই তুলে নিচ্ছে ইয়াবা নামক ভয়ঙ্কর একটি ড্রাগ। বিশেষজ্ঞদের মতে, এটা হচ্ছে এমন একটি মারাক্তক ড্রাগ যার পরিণতি খুবই করুন আর বীভৎস। আমাদের দেশের ইয়াং জেনারেশন এর একটা বিশাল গ্রুপ হাসতে খেলতে ঢুকে পড়েছে এই নেটওয়ার্কে।  প্রথমে এটাকে নরমাল ড্রাগ হিসেবে নেয়া শুরু করে। একটানা জেগে থাকতে পারে দুই দিন তিন দিন বলে যুবক যুবতিরা মনে করে এটা অনেক প্রডাকটিভ। কিন্তু কিছু দিন যেতেই এর সাইড ইফেক্টগুলো জানান দিতে থাকে। আর্থিক, মানসিক, পারিবারিক সব দিক দিয়েই মাদক সেবক এবং তার পরিবার দিনের পর দিন ধ্বংস হয়ে যায়।

কারো পরিবারে যদি ইয়াবা সেবনকারী কেউ থেকে থাকে, তাকে সাহায্য করুন ফিরে আসতে। যদিও, একবার এই নেশার নেটওয়ার্কের সাথে জড়িয়ে পরলে ফিরে আসা খুব ই ব্যায়বহুল আর ধৈর্যের ব্যাপার। আমাদের পরিবারের সবার উচিৎ পরিবারের সদস্যদের উপর খেয়াল রাখা। কেউ যেন ভুলেও এই পথে না যায়, সে বিষয় নিয়ে খোলামেলা কথা বলে সাবধান করা। সচেতনতা ঘরে ঘরে ছড়িয়ে দিতে পারলে হয়ত সম্ভব হবে লাখ লাখ সম্ভাবনাময় তরুন তরুণীকে জীবনের আলোয় চলতে শেখানো।

দেখুন, জানুন এবং অন্যকে জানান এই ভয়ঙ্কর ড্রাগটি সম্পর্কে –

 

slide