ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

সারাদেশে মাতম আর মাতম রেল মন্ত্রীর এ.পি.এস এর ৭০ লক্ষ টাকা কেলেঙ্কারি নিয়ে। পুরো টাকাটাই যেহেতু রেলের নিয়োগের জন্য ঘুষ সংক্রান্ত সেহেতু বাস্তবিক অর্থে ইহা একটি ঘৃণাযোগ্য বিষয়। কিন্তু ব্যাপারটি এমনভাবে জনসম্মুখে চলে আসবে তা হয়তো সংশ্লিষ্ট কেউ কল্পনাও করে নি। আর যে মহানায়ক গাড়িচালক এই টাকাগুলোকে ধরিয়ে দিলেন তার তো তুলনাই হয় না। সবাই তার প্রশংসায় পঞ্চমুখ আর ঝামেলাটা এখানেই। ওই যে গাড়িচালক তিনি তো আর নতুন শিষ্য নয় এই ওস্তাদদের। যেহেতু এতদিন ধরে গাড়ি চালান এমন লেনদেন আগে পিছেও হয়তবা দেখেছেন বা শুনেছেন। মালিকের ঘরের খবর যে তার প্রতিবেশী বা আত্নীয়-স্বজনদের যে তার অনুগত কর্মচারী বিশেষ করে গাড়ির চালকরা ভালো রাখেন সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই কারন অধিকাংশ মানুষই গাড়ীতে চলাচলের সময় ফোনে ব্যাক্তিগত আলাপ আলোচনা করতে সাচ্ছন্দ্য বোধ করেন। আর এর নীরব সাক্ষী হয়ে থাকেন সংশ্লিষ্ট চালক’রা।

এ ক্ষেত্রেও তাই ঘটেছে কিন্তু ঘটনাটির মধ্যে চরম একটা রহস্যের ঘ্রান বিদ্যমান। গাড়ী চালক আলী আজম যদি সত্যি সৎ মনে কাজটি করে থাকতো তবে কাজটির প্রকৃতি সম্পূর্ণ অন্য রকমের হতো। দেখা যেত পুলিশ বা র‍্যাব কে গোপনে তথ্য দিয়ে একই কাজটি করা যেত কিন্তু এখানে তা না করে একটি সাধারন গাড়িকে চলন্ত অবস্থায় বি.জি.বি’র সদর দফতরের মতো স্পর্শকাতর জায়গায় ঢুকিয়ে দিয়ে চিৎকার করে বলা যে ”গাড়ির মধ্যে অবৈধ টাকা আছে” নিশ্চয়ই কোন সাধারন/গতানুগতিক ব্যাপার নয়। গাড়ী চালক আলী আজম যেহেতু বাংলাদেশেরই নাগরিক সেহেতু তার ভালো করেই জানা আছে যে অনুমতি ব্যাতিত সামরিক/আধা সামরিক বাহিনীর যে কোন স্থাপনায় প্রবেশ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ এবং তারা এ টাকা ধরার কাজেও নিয়োজিত নয় সাথে আরো একটি জিনিস সে অবশ্যই জানত যে পিলখানার বি.ডি.আর বিদ্রোহের কথাও।

আর তাই স্বভাবতই প্রশ্ন আসতে পারে যে এরকম একটি জিনিসকে কেন্দ্র করে কেন বি.জি.বি’র মতো আধা-সামরিক বাহিনীকে এখানে জড়ানো হল? যদি কেউ হলফ করেও বলে গাড়ী চালক আজম তার নিজ বুদ্ধিতে এ কাজ করেছে তবুও বিশ্বাসযোগ্য নয়। ঘটনার পশ্চাদ্ভাগে বড় ধরনের শক্তি ব্যাতিত একজন সাধারন খেটে খাওয়া আজমের পক্ষে কোনদিনই সজ্ঞানে এমন কাজ করার নয়। আর সে জন্যই আজমকে পূর্ণ নিরাপত্তা দিয়ে সত্য অন্বেষণ করা উচিৎ।

দুর্নীতি ধরা পড়েছে,মন্ত্রীও হয়তো বা পদত্যাগ করবেন কিন্তু এসবের আড়ালে যে বি.ডি.আর বিদ্রোহের চেয়েও বড় কোন দুর্যোগ আসবে না তার নিশ্চয়তা কোথায়? মনে এমন আরো অনেক প্রশ্নই জাগে!!!