ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক, ফিচার পোস্ট আর্কাইভ

 
IMG_20160703_110741

এই জায়গাটা হলো নারায়ণগঞ্জ কালির বাজার ৷ ছবিটি কালির বাজার আদর্শ মিষ্টান্ন ভান্ডারের সামনে থেকে তোলা ৷

বেশ কিছু দিন আগে গিয়েছিলাম একটা কাজে নারায়ণগঞ্জ শহরে ৷ বলতে পারেন যে, আপনি তো নারায়ণগঞ্জেই থাকেন! আমি নারায়ণগঞ্জ হতে তিন কিলোমিটার দূরে সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন একটা এলাকায় বসবাস করছি ৷ জরুরী কোন কাজে বা কেনা-কাটার জন্য রিকশা বা বাসে চড়ে নারায়ণগঞ্জ আসতে হয়, সময় লাগে মাত্র ১৫/২০ মিনিট ৷ বাসযোগে বা রিকশা করে আসতে হয় প্রথমে চাষাঢ়া অথবা কালির বাজার ৷ কালির বাজার আসলেই নাকে রুমাল অথবা টিসু পেপার দিয়ে নাক চেপে ধরতে হয়, না হয় নিশ্বাস বন্ধ হতে আর সময় লাগবেনা ৷ কারণ: কালির বাজারের যত কাঁচামালের আড়ৎ আছে, সেখানকার যত পঁচা-গলা মাল আছে, সব পঁচা-গলা মালগুলো রাস্তার পাশে ফেলে রাখে দিনের পর দিন ৷

ঢাকা শহরের মত রাস্তার পাশে পরে থাকা, বড় বড় ডাস্টবিনের মত নারায়ণগঞ্জ শহরে কোথাও ডাস্টবিন চোখে পড়ে না, নেই বললেই চলে ৷ ওইসব প্যচা-গলা তরিতরকারি, ফলপাকড়, কসাইদের জবাই করা পশুর হাড়গোড় সবই খোলা জায়গা রাস্তার ওপর ফেলে রাখে ৷ যাকে বলা হয় খোলা ডাস্টবিন বা স্বাধীন ডাস্টবিন ৷ একসময় ওইগুলি বৃষ্টিতে ভিজে রোদে শুকায়, তারপর বাহির হতে শুরু করে পঁচা দুর্গন্ধ ৷

একটা গরু মরা গন্ধও এর চাইতে অনেক ভাল তা সহ্য করা যার, আর এই নানাবিধ আবর্জনার পঁচা দুর্গন্ধ সহ্য করা বড়ই কঠিন ৷ এইগুলির দুর্গন্ধে অনেক মানুষকে বমিও করতে দেখা যায় সময় সময়, বাসে কিম্বা রিকশায় চড়া যাত্রীদের ৷ এমনিতে প্রাচীন আমলের হাতে মাপা রাস্তা, তার উপর ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ বাস সার্ভিসের বাসগুলি এই চিপা রাস্তা দিয়েই চলাচল ৷ যার কারণে একদিকে মহাযানজট, অন্যদিকে ময়লার পঁচা দুর্গন্ধ ৷ পোস্টর ছবিখানা দেখলেই বোঝা যায় যে, প্রাচীন আমলের একটি বিখ্যাত বাজারের সামনে কী অবস্থা হয়ে আছে ময়লার স্তুপগুলি ৷ অতছ: নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের অধীনে থাকা বিশাল এলাকা জুরে আছে সুইপার কলোনি, তাঁরা কী করছে? আর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন কী করছে? প্রশ্ন জাগে ৷IMG_20160703_110739~2

শহরের বিভিন্ন স্থানে লোহার তৈরি কিছু ডাস্টবিন একান্ত দরকার ৷ বর্তমানে নারায়ণগঞ্জে এত উন্নয়ন, যা বাংলাদেশের কোন জেলা শহরে হচ্ছে না ৷ সব উন্নয়নই ভেস্তে যেতে বসেছে এসব অবহেলার কারণে ৷

আর একটা সমস্যা যানজট, সেই প্রাচীন আমলের রাস্তাঘাট নিয়েই নারায়ণগঞ্জ শহর, যাকে বলে প্রাচ্যের ডান্ডি ৷ আগেকার সময় দেখতাম মুড়িরটিন বাস যাকে বলা হতো “স্ট্যাডবাস” যেই বাসটাকে হাতে হ্যান্ডেল মেরে স্ট্যাড দিয়ে চালু করতে হতো ৷ “নারায়ণগঞ্জ টু সদরঘাট” আবার “নারায়ণগঞ্জ টু গুলিস্তান” আসা-যাওয়া করতো এই বাসগুলি ৷ যাত্রী সেবায় ছিল অদিতিয়, এই বাসে করে ঢাকা যাওয়ার জন্য মানুষ দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে বসে থাকতে মুড়িরটিন বাসের আশায়, কখন আসবে মুড়িরটিন ৷

আর এখন! এখন তো’ যেন স্বর্গপুরীর উরন্ত রথের মত বিশাল বিশাল বলভো,এসি বাস ৷ এই বাসগুলি খুবই চওড়া ও লম্বা, একটা বাসে নাকি ৫৬ থেকে ৬০ সিট থাকে ৷ নারায়ণগঞ্জের রাস্তা কিন্তু চওড়া হয় নাই, প্রাচীন আমলে যেমন ছিল এখনো তেমন ৷ শুধু চাষাঢ়া হতে নিতাইগঞ্জ, আর নিউ মেট্রো সিনেমা হল হতে চাষাঢ়া পর্যন্ত দুই লেন রাস্তা হয়েছে ৷ আর নিউ মেট্রো সিনেমা হল হতে নিতাইগঞ্জ কেরোসিন ঘাট পর্যন্ত ওয়ান বাই ওয়ান রোড যা, আর কোনদিন এক ইঞ্চিও রাস্তার প্রস্থ বাড়াতে পারবে না সিটি কর্পোরেশন ৷ কারণ: রাস্তার দুপাশেই গড়ে উঠেছে বিশাল বিশাল রড-সিমেন্টের তৈরি করা বিল্ডিং, এইগুলি কি ভাঙ্গা সম্ভব হবে? মোটেই না ৷ কাজেই রাস্তাও আর প্রস্থ হবে না, যা আছে তাই থাকবে ৷

এই রাস্তাটির মাঝেই ঢাকা-নারায়ণগঞ্জে বাসস্ট্যাড যা, নারায়ণগঞ্জ টার্মিনাল সংলগ্ন ১নং রেল গেইটের বিপরীত দিকে, যানজটের প্রধান কারণই এই বাসস্ট্যাড ৷ এই প্রধান বাস স্ট্যাড হতে বাসগুলি ঢাকার উদ্দেশে যখন ছেড়ে যায়, তখন চেম্বার রোড হয়ে ২নং রেল গেইট যেতে যেতেই শুরু হয় যানজটের সূত্রপাত ৷ তারপর হয় চাষাঢ়ার চৌরাস্তার মোড়ে, টার্মিনাল থেকে চাষাঢ়া পর্যন্ত আসতে সময় পার হয়ে যায় অন্ততঃ আধা ঘন্টা ৷ তাহলে ঢাকা যেতে সময় লাগবে কতটুকু? নিচে দেড় ঘন্টা ৷

অথচ বহু তেল-খড়ি পুড়ে চাঁনমারির বস্তি উচ্ছেদ করা হয়েছিল, শুনেছিলাম এই জায়গা নারায়ণগঞ্জ আন্তনগর বাস টার্মিনাল করা হবে ৷ কিন্তু না’ হয়নি, হয়েছে প্রাচীর ঘেরা এক সুবিশাল জায়গা ৷ এখনো প্রাচীর ঘেরা অবস্থায় অকেজো হয়ে পড়ে আছে চাঁনমারির কাঙ্ক্ষিত জায়গাটা ৷ শহরের প্রাণকেন্দ্র থেকে যদি বাসস্ট্যাড সরিয়ে এই চাঁনমারির খালি জায়গায় করা হতো, তাহলে আর নারায়ণগঞ্জের মত একটা ছোট শহরের যানজট থাকতো না ৷ শহরের সৌন্দর্যও বৃদ্ধি পেত বহুগুনে, আর আন্তঃনগর বাস স্ট্যাডও হতো দেশের সেরা একটা আন্তঃনগর বাস স্ট্যাড ৷ কবে হবে এই স্বপ্নের বাসস্ট্যাড? আর কবে হবে যানজট মুক্ত নারায়ণগঞ্জ শহর, দেখার আশায় রইলাম ৷

slide

ওই আগেকার সময়ের হাতে মাপা চিপা রাস্তা নিউ মেট্রো সিনেমা হল হতে কালি বাজার দিয়ে চলছে ঢাকা-নারায়ণগঞ্জ রুটের বড় বড় বলভো, এসি বাসগুলি ৷ যার কারণে ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থাকতে হয় যানজটের কবলে পড়ে ৷ করার কিছু নেই, বলার ও কেউ নেই ৷