ক্যাটেগরিঃ ভ্রমণ

বাইসাইকেল চালিয়ে বাংলাদেশের ৬৪টি জেলাসহ ভারতের আজমির শরিফও ভ্রমণ করেছেন মোহাম্মদ জাফর ফরাজি। এবার তিনি বাইসাইকেল চালিয়ে পবিত্র মক্কা নগরী সৌদি আরবে হজ পালনে ইচ্ছুক।

সকাল আনুমানিক এগারোটা। সে সময় সিদ্ধিরগঞ্জ থানাধীন লক্ষ্মীনারায়ণ বাজারে কেনাবেচার ধূম। রেস্টুরেন্ট আর চায়ের দোকানেও প্রচুর ভিড় থাকে। একটা চায়ের দোকানের সামনে ছেলে-বুড়োর জটলা দেখে একজনকে জিজ্ঞেস করলাম, কিসের এত ভিড়? উত্তর পেলাম, বাইসাইকেল’ চালিয়ে হজে যাবে।

এমন নজির আমাদের দেশে না থাকলেও, দুনিয়ায় এমন ঘটনা আরও অনেক আছে। তাই অবাক না হয়ে সামনে গেলাম। সামনে গিয়ে দেখি একটা বাইসাইকেল। সাইকেলের দুই পাশে দুটি ছোট সাইনবোর্ড লাগানো আছে। সামনে দাঁড়িয়ে আছে ৬০ বছর বয়সী এক ব্যক্তি। ওনার পড়নে লম্বা জোব্বা, পায়জামা, মাথায় টুপি। বাইসাইকেল চালিয়ে এসেছেন মাদারীপুর থেকে। লোকটির বাড়ি মাদারীপুরের কালকিনী উপজেলার পূর্ব কমলাপুর গ্রামে। ইনিই মোহাম্মদ জাফর ফরাজি।

সম্মানিত মোহাম্মদ জাফর ফরাজির বাইসাইকেলের দুইপাশে টানানো দুটি ছোট সাইনবোর্ড। একটিতে বাংলায় লেখা, অপরটিতে ইংরাজিতে লেখা রয়েছে।

বাইসাইকেলের দুই পাশে থাকা সাইনবোর্ডের উপরে বড় অক্ষরে লেখা আছে, ‘বাইসাইকেলে হজ করতে ইচ্ছুক।’ এর নিচে বাইসাইকেল চালিয়ে ভ্রমণ করার বিবরণ নিয়ে আরও অনেক কিছুই লেখা রয়েছে। লেখা আছে বাইসাইকেল চালিয়ে বাংলাদেশের ৬৪ জেলা ভ্রমণ করার কথাও। শুধু তাই নয়, বাইসাইকেল চালিয়ে ভ্রমণ করেছেন ভারতের আজমির শরিফও। এখন তাঁর ইচ্ছা, বাইসাইকেল চালিয়ে পবিত্র মক্কা নগরী সৌদি আরব গিয়ে হজ পালন সম্পন্ন করা।

“বাইসাইকেল চালিয়ে এই ভ্রমণও হয়ত দেশের কয়েকটি জেলা শহর ছাড়িয়ে যাবে। এটা তাঁর হজ্জ পালনের ইচ্ছার প্রতিফল ঘটানোর একটা প্রচারমাধ্যম। যাতে দেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, গণমাধ্যমসহ সর্বস্তরের মানুষ তার এই মহৎ উদ্দেশ্যের কথা জানতে পারে। সকলের দোয়ার বরকতে যদি সবকিছু ঠিক হয়ে যায়, তা হলে আগামী আগস্ট মাসের মধ্যেই আনুষ্ঠানিকভাবে সৌদি আরবের উদ্দেশে যাত্রা শুরু করবেন।” বললেন সাইকেল চালিয়ে হজ পালনে ইচ্ছুক মোহাম্মদ জাফর ফরাজি।

কিন্তু তার সামনে সমস্যা হয়ে দেখা দিয়েছে পাকিস্তানি ভিসা। বাই রোডে সৌদি আরব যেতে ভারত, পাকিস্তানসহ কয়েকটি দেশের মধ্য দিয়ে যেতে হয়। বেশির ভাগ দেশের ভিসা পাওয়া গেলেও, বর্তমানে পাকিস্তানের ভিসা পাওয়া যায় না। তবু তিনি দমে যাবার লোক নয়! তিনি সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মিয়ানমার, চীন, কাজাকিস্তান, উজবেকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান, ইরান, ইরাক হয়ে পবিত্র মক্কা নগরী সৌদি আরব পৌঁছাবেন। ইতোমধ্যে ভিসা চেয়ে সরকারের কাছে আবেদনও করেছেন তিনি।

ফরাজির সফলতায় আমাদের দেশে এক  নজির সৃষ্টি হতে পারে।