ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

ধর্ম নিয়ে বিশদ ব্যাখ্যা আমার জানা নেই। তবে ইসলাম ধর্মের মূল কিছু বিষয়াদি আমার জানা রয়েছে। যা কিনা একজন প্রকৃত মুসলিম হওয়ার জন্য যথেষ্ট পরিমাণ যৌক্তিক। আমার জানা মতে এমন এমন অনেক মুসলিম রয়েছে যারা ৫ ওয়াক্ত নামায জামাতের সাথে আদায় করে থাকে। কিন্তু তাদের নিয়মিত আচার আচরণ থাকে সম্পূর্ণ অমুসলিমদের মত। যেমন-নিয়মিত মিথ্যা কথা বলা, অন্যের গীবত গাওয়া, গরীব দুখী অসহায় মানুষ কে বিপদের দিকে ঠেলে দেওয়া, আবার আমার জানা মতে এমন অনেক মসজিদের ইমাম সাহেবদের আমি দেখেছি যারা নিয়মিত সুদের ব্যাবসা করে। তারা কী আসলে প্রকৃত মুসলিম ?তারা কী ইসলাম ধর্মের অনুসারী হিসেবে নিজেকে দ্বাবি করতে পারে ?

আমি মনে করি মোটেই না।

একজন প্রকৃত মুসলিম বলে সে তখনই নিজেকে দ্ব্বাবি করতে পারে যখন সে কোরআন হাদীসের আলোকে নিজেকে পরিচালিত করবে। কিন্তু আমরা যা দেখি তাতে কোরআন হাদীস তো দূরে থাক। কেবল মাত্র নামায আদায় করে নিজেকে আল্লাহর খুব কাছের ও ঘনিষ্ট বলে ভাবতে থাকে। যা মোটেই উচিত না একজন খাটি মুসলিম হওয়ার জন্য।

একটা কথায় আছে ধর্মের ঢোল বাতাসে বাজে, নাম ধারী মুসলিম সমাজ নামায পড়তে পড়তে কপালে দাঘ ফেলে দিয়েছে কিন্তু এখনো নিজের ঈমান ঠিক করে চলতে পারে না। তারা নিজেকে কী করে একজন মুসলিম বলে দ্বাবি করে ?

আমি দেখেছি, মাওলানা টাইপের মানুষ গুলো কত পরিমাণ নির্লজ্জ হয়,যেই সব মওলানা গুলো লম্বা লম্বা ওয়াজ করে তাদের এই ওয়াজ আর যাত্রার গানের মধ্যে পার্থক্য কী ? দুইটাই কিন্তু হয় টাকার বিনিময়ে, তাহলে প্রশ্ন করা যেতে পারে ভাড়াটিয়া মাওলানা দিয়ে আমরা কতটুকু শুদ্ধ হতে পারি ? এই ক্ষেত্রে উল্লেখ করে বলতে চাই সত্যিকারের একজন আল্লাহর বান্দা বা নিজেকে যে মওলানা বলে দাবি করে সে কখনো কুরআন শরীফের আয়াত বিক্রি করে জীবন জীবিকা নির্বাহ করতে পারে না। কিন্তু আমাদের সমাজে তাই হচ্ছে। বিশ্বাস না হলে খেয়াল করে দেখুন, ওয়াজের জন্য যদি মাওলানা ভাড়া করতে যান তাহলে আগে দরদাম ঠিক করতে হয়। তারপর টোকেন মানি পরিশোধ করতে হয়, তারপর ডেট ফিক্সড করতে হয়। দেখুন কী অবাক কাণ্ড। একে বলে মাওলানা।

এখন প্রশ্ন হলো এইসব মাওলানারা নিজেকে মুসলিম বলে দাবি করে কী ভাবে ?

আমরা দেখেছি ধর্মের নামে রাজনীতির ফলাফল কী ভয়ংকর হয়, তাকিয়ে দেখুন আফগানিস্থান, পাকিস্তানের দিকে প্রতিদিন দিন সুই সাইট বম্ব, একজন মুসলিম হয়ে আরেকজন মুসলিম কে হত্যা। এইবার নিজেদের কথা বলি আমাদের দেশ যারা ধর্মের দোহাই দিয়ে রাজনীতি করে যাচ্ছে তাদের নৈতিকতা কতটুকু রয়েছে ? একাত্তরে আমাদের মা-বোন দের ধর্ষণ করেছে, আমাদের কৃষক-শ্রমিক, মুক্তিযোদ্ধা ভাইদের নির্বিচারে হত্যা করেছে। শুধু মাত্র পাকিস্তানের অখণ্ডতা রক্ষার দাবিতে। এইখানেও ইসলাম ধর্মের ব্যবহার। তাহলে আমি কী বলতে পারিনা ঐসব ধর্ম ব্যবসায়ীদের রাজনৈতিক দলগুলোর নেতা-কর্মীরা কী করে নিজেকে মুসলিম বলে দাবি করে ?

বড় বড় টুপি, লম্বা লম্বা দাড়ি, ঘন ঘন তাবলিগ জামাত, যে প্রকৃত মুসলিম হিসেবে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করে না। আমাদের প্রচলিত সমাজে আজকে অনেকটা প্রকাশ হয়ে গেছে। জনগণ বুঝে নিয়েছে পাঞ্জেকানা নামায আদায় করা মানে একজন খাঁটি মুসলিম চরিত্রের ধারক ও বাহক নয়।

ধন্যবাদ।

@সুলতান মির্জা ।