ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

ফ্ল্যাশ ব্যাক:
১৯৭১ সালের ৪ ঠা ডিসেম্বর শুরু হয় পাকিস্থানী হানাদারবাহিনী উত্খাতের যৌথ অভিযান যার প্রবল আক্রমণের মুখে সারা দেশের সীমান্তবর্তী যুদ্ধক্ষেত্রগুলো থেকে পাকিস্তানিরা পিছু হটতে শুরু করে। একের পর এক পাকিস্তানী ঘাঁটির পতন হতে থাকে।

আগামীকাল মঙ্গলবার ৪ ঠা ডিসেম্বর হরতাল ডেকেছে স্বাধীন বাংলাদেশে স্বাধীনতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের মৌলবাদী সংগঠন জামায়াত, উদ্দেশ্য রাজাকারদের মুক্তি দিতে হবে। যে জামাত মুক্তিযুদ্ধ বলে কোনও কিছু বিশ্বাস করে না, যারা স্বাধিকার চেতনার বিরোধিতা করতে করতে সারা দেশের অবস্থা বারোটা বাজিয়ে যাচ্ছে, তথাকথিত মুক্তিযুদ্ধের নাম ডাক বাহী বিএনপি নামক রাজনৈতিক দলের ছত্র ছায়ায়।

জামাতের হরতালে দায়ি কে?

এহেন পরিস্থিতিতে জামাতের এই হরতাল এর দায়ভার বিএনপি কে নিতে হবে। তবে আমার ব্যক্তিগত মতামত হচ্ছে জামাতের এই আহুত হরতাল প্রসঙ্গে আমি জামাতের দোষের তেমন কিছু দেখছি না। বিজয়ের মাসে যদি আঠারো দলের ব্যানারে মুক্তিযুদ্ধের দল বলে যারা নিজেদের দ্বাবি করে সেই বিএনপি যখন রাজপথ অবরোধের ডাক দিতে পারে রাজাকারদের সংগঠন জামাত কে সঙ্গে নিয়ে যুদ্ধাপরাধীদের মুক্তি চেয়ে, তাহলে জামাতের আর দোষ কোথায় ? জামাত তো জন্মগত ভাবেই রাজাকারের দল তাদের কাছে বিজয়ের মাসের গুরত্ব কতখানি?

সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি
২০১২ সালের ৪ঠা ডিসেম্বর শুরু হোক রাজাকারবাহিনী উত্খাত এর সাড়াশি অভিযান যার প্রবল আক্রমনে এদেশ থেকে চিরতরে নির্মূল হবে প্রতিটা রাজাকার-জামাত-শিবির এর সদস্য। যেন কেউ কোনও খাতিরে রক্ষা না পায়, স্বাধীন বাংলাদেশ আবার কোনও চক্রান্ত করতে।

@সুলতান মির্জা ।