ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

এটা এখন আর মানতে কোন সমস্যাই নেই যে খালেদা জিয়া আমাদেরকে ‘ছাগল’ ভাবেন। তা নাহলে কেন একের পর এক এমন অদ্ভুত ও কাল্পনিক তথ্য আমাদেরকে দেবেন। মহাধুমধামে শত কিলোমিটার গিয়ে লং-মার্চ ও বিশাল বিশাল জনসভা করলেন খালেদা জিয়া।খালেদা আফা বললেন, নিজামী-মুজাহিদরা যুদ্ধাপরাধী নয়।

বর্তমান রাজনীতিতে বিরোধী দল বিএনপি এর আগে কখনোই যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কোন বক্তব্য দেয়নি। আওয়ামীলীগের নেতারা অসংখ্যবার বলেছে বিএনপি যুদ্ধাপরাধের বিচার চায় না। কিন্তু আমরা বিশ্বাস করিনি। বিচার চাক বা না চাক বিএনপি যে যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিষয়ে জাতির প্রাণের দাবির বিরুদ্ধে নয় তাই ভাবতাম। যে যাই বলুক ভাবি নি মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমানের দল যুদ্ধাপরাধের বিচার চায় না। অন্তত বীর মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমানের স্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধের বিচারের সহযোগিতা করবেন এমনটাই জনগন আশা করতো। লংমার্চের জনসভায় যখন খালেদা জিয়া যুদ্ধাপরাধীদের আটক অবস্থা নিয়ে কথা বললেন, তখন ভেবেছিলাম এক মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী বলবেন, এদের বিচারে কেন দীর্ঘসূত্রিতা, তাড়াতাড়ি এদের বিচার করুন। প্রমান হলে ফাসি দিন। কিন্ত না শুনলাম এক ভিন্ন কথা, বার বার চ্যানেল বদলিয়ে শুনলাম। বিশ্বাস করতে কষ্ট হয় খালেদা জিয়া বললেন, নিজামী, মুজাহিদ, সালাউদ্দিন কাদের চৌধূরীরা যুদ্ধাপরাধী নয়।

মাননীয় বিরোধীদলীয় নেত্রী আপনাকে কিছুই বলার নেই, শুধু দয়া করে বলবেন কি, কারা যুদ্ধাপরাধী?