ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

 

প্রথমে অনুরোধ করব বিডি নিউজ ২৪ ডট কম ও প্রথম আলোর মূল নিউজ গুলো একটু দেখুন

মাগুরায় লালন উৎসবে মাদ্রাসাছাত্রদের হামলা শিরোনামে

ধর্ষণের অভিযোগে কারাগারে ইমাম শিরোনামে

পায়ে শেকল, ঘাড়ে গাছের গুঁড়ি দিয়ে শিশুকে শাস্তি! শিরোনামে

প্রথমটা দেশী সংস্কৃতি ধংস করার ঘটনা, দ্বিতীয়টা লোভ সামলাতে না পাড়ার ঘটনা, তৃতীয়টা মধ্যযুগীয় বর্বরতার নিদর্শন। এই খবর গুলোর বিষয়বস্তু আমার কাছে খুবই নির্মম বলে মনে হয়েছে। কেউ কেউ মন্তব্য করতে পারেন এই গঠনা গুলো নিয়ে কেন পোস্ট দিলাম, আমি তাদের কে বলতে চাই, যারা ঘটনা গুলো ঘটিয়েছে তারা কোনও পরিমল না তারা হল ৫ ওয়াক্ত নামায পড়ে বা পড়ায় এমন কোনও বুজুর্গ মানুষ। এখন কথা হলো, এই সব মানুষদের সামাজিক মর্যাদা অনেক বেশি যা পরিমল বা অন্য মানুষ রুপি পিশাচদের নেই, এইসব মানুষ গুলো যখন এইরকম অপরাধ করে তখন মানবতা প্রশ্নবিদ্ধ হয় বলে আমি মনে করি।

লালন ফকির কে ছিলেন এটা হইত এই সব তথাকথিত মাওলানা গুলো জানে না, তাদের আর জানার দরকার ও নেই। ওই দিন খুব কস্ট পেয়েছিলাম, এয়ারপোর্ট (বিমান বন্দর) এর সামনে যখন লালন সাঁইয়ের ভাস্কর্য নির্মাণে এই সব মাওলানারা তাদের ছাত্রদের সঙ্গে নিয়ে বাঁধা দিয়েছিল। তাদের ভাষায় হল লেঙ্গটা বেটা সামনে রাখলে অজু ছুটে যাবে বলে, নামায হবে না। কিন্তু এই যে আবরারুল হক (৩৫) জামে মসজিদের ইমাম। একজন ইমাম হয়ে যখন, মসজিদে ৮ বছরের মেয়েটি কে কৌশলে মসজিদের পাশে তার কক্ষে নিয়ে ধর্ষণ করে। তখন কী এইসব মাওলানাদের অজু ছুটে না ?

আরেক মাওলানা যা করলেন টা উপরের ছবিটি দেখলে বুঝতে পারবেন। ১০ বছর বয়সী ছোট্ট শিশু।দেখলেই যে কারো মায়া লেগে যাওয়ার কথা। ঠিকমতো পড়াশোনা না করার অপরাধে সেই শিশুকেই কিনা পায়ে শেকল আর ঘাড়ে গাছের গুঁড়ি দিয়ে টানা তিন দিন শাস্তি দেওয়া হল! হায়রে শিক্ষকতা, এমন শিক্ষক পেলে জীবনে অনেক দূর যেতে পারতাম।

এখন আমার প্রশ্ন হল এইসব মাদ্রাসা ছাত্র, শিক্ষকরা কোন দলের অনুসারী ? এরা কী আওয়ামীলীগ করে ? যদি উত্তরটা না হয়, তাহলে একবার ভেবে দেখবেন কী এরা কত হিংস্র হয়ে পারে ?

তথ্য ও ছবি সুত্র : বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কম।