ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

স্বচ্ছল পরিবারের মেয়েরা কিন্তু সখের বসে অথবা পড়াশুনার যোগ্যতাটাকে কাজে লাগানোর জন্যই চাকুরি করেন। পেটের দায়ে কিংবা পরিবারের স্বচ্ছলতার জন্য নহে। আর যারা চাকুরির জন্য পাগলের মতো হনহন করে ঘুরছেন তারা কিন্তু পেটের দায়েই চাকুরির পিছু ছুটছেন। তবুও চাকুরি পাওয়া তো দূরের কথা, শূন্য পোস্ট খুঁজেও পাচ্ছেন না। পাবেনই বা কি করে কারণ পোস্টগুলি দখল করে বসে আছেন আমাদের স্বচ্ছল পরিবারের কিছু সৌখিন আপুরা। যাদের চাকুরি পাওয়া কোন ব্যাপার ই না। শুধু মুখ দিয়ে একবার বললেই হয় চাকুরির কথা। কারণ বাপ-চাচা, ভাই, মামা অথবা স্বামী সবাই বড় বড় প্রতিষ্ঠানের বড় বড় কর্মকর্তা অথবা মালিক পক্ষ। যাদের কথা চাকুরি দাতা ফেলতে পারেন না উনাদের সম্মানের দিক চিন্তা করে।

আপুরা একবার কি ভেবে দেখেছেন আপনি যে চাকুরিটা করছেন সখের বসে অথবা যোগ্যতাটাকে কাজে লাগানোর জন্য, সেই চাকুরির জন্য মধ্যবিত্ত কিংবা নিম্নবিত্ত পরিবারের একটা ছেলে বা মেয়ে কেন পাগল পাড়া? নিশ্চয়ই ভেবে দেখেননি। যদি ভেবে দেখতেন তবে নিশ্চয়ই সখের বসে চাকুরিটা আপনি নিতেন না। আপনার বিবেক আপনাকে থমকে দিত। কারণ আমি বিশ্বাস করি প্রতিটি মানুষই বিবেকবান। তবে হয়তো কেউ কেউ বিবেকটাকে বিসর্জন দেন আপন স্বার্থে। আবার কেউ কেউ বিসর্জন দেন নিঃস্বার্থে।

আমাদের দেশে জনসংখ্যার তুলনায় কর্মসংস্থান খুব কম। যার কারণেই বেকারত্বের হার খুব বেশি। আর এই বেকারত্বটাই অধিকাংশ বিরাজ করছে মধ্যবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের ছেলে-মেয়েদের ওপর। কারণ উনাদের বাপ-চাচা, ভাই-মামা অথবা স্বামী কেউই বড় বড় প্রতিষ্ঠানের বড় বড় কর্মকর্তা অথবা মালিক পক্ষ নন। তাই তাদের পক্ষে কেউ বিশেষ সুপারিশ করতে পারেন না। একটা চাকুরি পাওয়া যে তাদের কাছে কতটা জরুরি তা শুধু ভুক্তভোগীই বুঝতে পারেন।

স্বচ্ছল পরিবারের আপুরা কিন্তু চাকুরি না করে নিজেরাই উদ্যেক্তা হয়ে ভালো কিছু করতে পারেন। যেটা দ্বারা নতুন কিছু কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। আমার মতো নগণ্যরা পাবে নতুন কর্মক্ষেত্র। কমবে দেশের বেকারত্বের হার। স্বচ্ছল পরিবারের আপুরাও চাকুরির চেয়ে ভালো ফলাফল পাবেন। মূলধন নিয়ে আশা করি কিছু বলার প্রয়োজন নেই। হ্যাঁ কিছুটা তো ঝুঁকি থাকতেই পারে। আজ পর্যন্ত ঝুঁকিমুক্ত কোন উদ্যোক্তার জন্ম হয়নি। ইংরেজিতে একটা প্রবাদ আছে-  no risk no gain।