ক্যাটেগরিঃ গণমাধ্যম

 

জানুয়ারী ২০১৩-এ একটি নতুন ম্যাগাজিন বাজারে এসেছে। ‘বিবেক’ নামের এ ম্যাগাজিনটি শুধু নামেই পাঠকদের প্রথম আকর্ষিত করতে সক্ষম হচ্ছে। প্রথম সংখ্যায় প্রচ্ছদ করেছে সকল এফএম’র বিশ্লেষণমূলক একটি লেখা দিয়ে। শিরোনাম হচ্ছে- ‘আদ্যোপান্ত এফএম বিশ্লেষণ’। প্রচ্ছদ ডিজাইনটাও বেশ চমতকার। দৃষ্টি আকর্ষণের সক্ষমতা অর্জনকারী।

পত্রিকার শুরুতেই পত্রিকার সম্পাদনা পরিষদের একজন সদস্য ‘বিবেকের জবানবন্দী’ শিরোনামে পত্রিকাটির আগমনের কারণ-উদ্দেশ্য ইত্যাদি লিখেছেন। আগমনের কারণ সম্পর্কে তিনি লিখেছেন: ‘এতো মিডিয়ার ভিড়ে কি নতুন কিছুর চাহিদা ফুরিয়ে গেছে? প্রয়োজন নিঃশেষ হয়েছে? অতি-অবশ্যই আমাদের কাছে এ প্রশ্নের উত্তর ‘না’। কারণ, মার্জিত, পরিশীলিত, দলীয় চেতনা বহির্ভূত এবং অশ্লীলতামুক্ত মিডিয়ার অভাব কিন্তু এখনও আছে। উপরন্তু এদেশে প্রকাশিত সাপ্তাহিক আর মাসিক ম্যাগাজিন দু ভাগে বিভক্ত। এক. নির্দিষ্ট বিষয় নির্ভর। দুই. সাধারণ। প্রথম প্রকারের প্রয়োজনীয়তা হয়তো শেষ হতেও পারে। বিজ্ঞরাই এটা ভালো বলতে পারবেন। তবে দ্বিতীয় প্রকারের প্রয়োজনীয়তা এখনো সীমাহীন। কারণ, অধিকাংশ সাধারণ ম্যাগাজিনগুলোতে ধর্মকে সতর্কভাবে এড়িয়ে যাওয়া হয়। উল্টো ধর্মকে কটাক্ষ কিংবা তা নিয়ে কুৎসা রটনাতেই তারা স্বর্গসুখ লাভ করে। অথচ ধর্ম আমাদের প্রাত্যহিক জীবনের সার্বক্ষণিক প্রয়োজনীয় সঙ্গী। এমন আরো কিছু ফারাক সাধারণ পত্রিকাগুলোতে আমরা দেখি। পাঠকের সকল প্রয়োজন ঘোচাতে তাই আমরাই সর্বপ্রথম এগিয়ে এসেছি।’

আবার পত্রিকাটির উদ্দেশ্য সম্পর্কে তার বক্তব্য হচ্ছে: ‘আমরা আকাশ ছোঁয়া স্বপ্ন এবং বৃহত্তম দীর্ঘ পরিকল্পনা নিয়ে সামনে এগুতে চেয়েছি। নতুনত্বের সূচনা করেছি। তারুণ্য, চরিত্র এবং সমাজবিধ্বংসী সব অপকর্মের ‘পোষ্টমর্টেম’-এর প্রতিজ্ঞা করছি। সুষ্ঠু সমাজ বিনির্মাণে আমরা অঙ্গিকারাবদ্ধ। আবেগবিবর্জিত বস্তুনিষ্ঠতা আমাদের আদর্শ। দেশপ্রেম আমাদের শক্তি। মুক্তিযুদ্ধ আমাদের অহংকার। অসাম্প্রদায়িক মনোভাব পোষণে আমরা দৃঢ়চেতা। ধর্মীয় মূল্যবোধে অগাধ বিশ্বাস, আধুনিকায়নের সমন্বয় এবং সকল মত ও পথের মানুষকে নিয়ে বহুদুর এগিয়ে যাওয়ার আশা রাখছি। সংকল্প করছি। আমরা কেবল সুস্থ বিবেকের নিকট দায়বদ্ধ। সুন্দর সত্য প্রতিষ্ঠাই আমাদের লক্ষ্য।’

শেষে তিনি লিখেছেন, ম্যাগাজিনটি আপাত মাসিক। তবে খুব শিগগিরই এটা নাকি সাপ্তাহিক করা হবে। আমার কাছে ছোট আকারের এ ম্যাগাজিনটি দারুণ লেগেছে। তারা দাম ধরেছে আট টাকা। পৃষ্ঠা হচ্ছে ৩২। কারো চোখে পড়েছে কিনা জানি না। ঢাকা শহরের বেশ কিছু স্টলে পত্রিকাটি আমার দৃষ্টিগোচর হয়েছে।