ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

ইফতারির সময়টিকে রোজাদার মানুষের কাছে সবচাইতে আকাঙ্ক্ষিত একটি সময় রমজানের পবিত্র এই মাসে। রোজার মাস রোজাদারদের কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কিছু শিক্ষা নিয়ে আছে। সংযম ও নিরাহার থাকার ভেতরে একটি সুক্ষ সম্পর্ক এঁকে দেয় এই রমজান মাস। এই এক মাসের কিছু নিয়মিত ধর্মীও অনুসঙ্গ মানুষকে ধর্ম ও জীবন সম্পর্কে স্পষ্ট ধারনা দেবার চেষ্টা করে যা বছরের আর ১১ মাসে এই ভাবে দেয়া হয়ত সম্ভব নয়। ইফতারির আজানের ধ্বনি রোজাদারদের ভেতরে যেন এক পবিত্রতার আহবান এনে দেয় (দেয়া উচিৎ) যা রোজাদারদের মনে এক অনাবিল আনন্দ বয়ে নিয়ে আছে। জীবনের সাথে যেমন ধর্ম অঙ্গাঙ্গিক ভাবে জড়িত ঠিক তেমনি ধর্মও জীবনের সাথে অঙ্গাঙ্গিক ভাবে জড়িত। মানুষ বিশ্বাস করতে ভালবাসে আর তাইত ধর্ম ছাড়া মানুষের পক্ষে জীবনধারণ সম্ভব নয়। সেই সৃষ্টির আদি থেকে মানুষকে ধারন করে আছে ধর্ম। মানব সভ্যতার অন্যতম ধারক, বাহক ও নিয়ামক এই ধর্ম। নগরে, গ্রামে, গঞ্জে কিংবা চলতি পথে অথবা কাজের ভিড়ে, আজানের সেই সুমধুর ধ্বনি সমস্ত রোজাদারদের কাছে যে পবিত্রতার আহবান বয়ে নিয়ে আসে তা শিক্ষা দিতে চেষ্টা করে মানুষকে মানুষ হবার জন্য।

পুনশ্চ : সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গিয়েছে, গত ৫ বছরে যে হারে রোজাদার এবং নামাজী লোকের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে, ঠিক সেই হারেই কিংবা হয়ত তারও বেশি হারে কমেছে মানুষের ইমান। ধর্মকে মানুষ ব্যাবহার করছে অস্ত্র হিসাবে কিংবা ঘোরতর অন্যায় নিস্পাপকারক হিসাবে যা মানুষের জন্যতো বটেই পুরো পৃথিবীর জন্য অনাবর্ষক বিপর্যয়ের দিকে ঠেলে দিচ্ছে।