ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

আমরা শহর হিসাবে নিকৃষ্টতম নই সেকথা বোধহয় আর তেমন অজানা নেই আমজনতার। তবে আমার বিস্ময় কেন নই? এর পেছনে কারন হতে পারে, হয় আমাদের পেছনে থাকা শহর দুটি আমাদের চেয়ে নগর অবাসযোগ্য করার ক্ষেত্রে এগিয়ে গিয়েছে বলেই আমরা পিছিয়ে পরেছি। আমরা যে অবস্থায় ছিলাম তার চাইতে উন্নত অবস্থানে আমাদের শহরকে আমরা নিয়ে গেছি একথা স্বয়ং ঈশ্বর বললেও আমি মানব না (যদিও তিনি তা বলবেন না, কারন তিনি মিথ্যা বলেন না।)

ঢাকার সমস্যা কি? এই প্রশ্ন কাউকে করলে প্রথম যে উত্তর আসবে সেটা হল, সমস্যা নেই কি কি? একদম ভুল কথা নয়। নিকৃষ্টতম শহরের তালিকায় যে আমরা একদা শীর্ষে ছিলাম, সেকথা ভুললে চলবে না। যাহোক ঢাকার প্রধান সমস্যা রাস্তা ও গণপরিবহন ব্যাবস্থা। কারন অন্য সমস্যাগুলো ব্যাক্তিগত জীবনে মূলত প্রভাব ফেললেও রাস্তা ও গণপরিবহন সমস্যা পুরো জাতীয় জীবনে নিদারুণ প্রভাব ফেলে। যার প্রমান রয়েছে ভুরি ভুরি। ঢাকা আকৃতির দিক দিয়ে মোটেও “সেইরকম বড়” শহর বলা যায় না। বড় মনে হয় তখনই যখন আমরা ঘণ্টার পর ঘণ্টা রাস্তায় জ্যামে বসে থাকি। কোন এক ঈদে আমি আজিমপুর থেকে বনানী গাড়িতে করে গিয়েছিলাম মাত্র ১৫ মিনিটে। কাজেই ঢাকার আকৃতিকে কেউ জ্যামের কারন হিসাবে ধরলে আমি অবশ্যই প্রতিবাদ করব।

ঢাকার জ্যাম সমস্যা সমাধানের কোন উপায়ই আমি বলব না। বলে লাভ কি? কেউ কি শুনে আমার মতো করে সমাধান করবে? তবে আমি চিৎকার করতে পছন্দ করি আর তাই আজ আমি একটি প্রতিবাদের ভাষার কথা বলব। নীরব প্রতিবাদ এবং ঢাকার সড়ক ও গণপরিবহন ব্যবস্থার উপর বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শনের নিমিত্তে প্রতিবাদ। আমার এই প্রতিবাদের ভাষা হল হাঁটা। শুনতে হাস্যকর মনে হতে পারে কিন্তু ভেবে দেখুন কতো সুদুরপ্রসারী এর প্রভাব। আপনি যদি আধা ঘণ্টার রাস্তায় জ্যামে ২ ঘণ্টা নষ্ট করতে পারেন তবে কেন ১ ঘণ্টায় হেঁটে গন্তব্যে পৌঁছতে চাইবেন না? হাঁটলে সম্মান যায় না বরং আপনার এই পন্থা অনেকেই অনুসরণ করে উপকার পেতে পারেন। আর তাছাড়া যদি লাভ ক্ষতি খোঁজেন তাহলে সেই দৃষ্টিকোণ থেকেও হাঁটলে আপনার কোন অপকার হবে না বরং শারীরিক উপকারই হবে। ঢাকার পরিবহন শ্রমিক মালিকদের আমরাই কিন্তু এখন যেমন উগ্র ওরা তেমন হতে সাহায্য করেছি। শুধুই সরকারকে দোষ দিলে হবে? আমাদের কি কোনই দোষ নেই? আমদের যদি আজ অধিক হাঁটার অভ্যাস থাকতো তাহলে ঢাকায় প্রতিদিন ১০০ অধিক পরিবহন যেমন যোগ হবার সুযোগ কমে যেত তেমনই আমরাও আমাদের অনেক সময় বাঁচাতে পারতাম। আর বোনাস হিসাবে সুস্থ দেহ তো আছেই।

হে ঢাকাবাসী, এমন চমৎকার উপকারি প্রতিবাদের ভাষায় কেন কথা বলবেন না?