ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা, ব্লগ সংকলন: সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড

 

সাংবাদিক দম্পতি নিয়ে (এটিএন) বাংলার চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমানের বক্তব্য এবং দুঃখ প্রকাশ,আমার কাছে অনেকটা গরু মেরে জুতা দানের মত। সাংবাদিক,ব্লগার ও সকলের দাবি ছিল মাহফুজুর রহমানের গ্রেপ্তার করে জিজ্ঞাসাবাদ করার প্রয়োজনে রিমান্ডে নেওয়ার। টেলিভিশন ও খবরের কাগজে বড় বড় শিরোনাম হল মাহফুজুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে র‌্যাব।আসলে কি তাই? উত্তরের প্রয়োজনীয়তা নেই কিন্তু আপাতত দৃষ্টিতে আমার যা মনে তা হল এসির নিচে গোল টেবিলে মাহফুজুর রহমানের বক্তব্য ও কয়েকটি ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ যা শুধু লোক দেখানো।

মাহফুজুর রহমানের এমন কোন ভিআইপি এভাবে সন্মান করা হল? মাহফুজুর রহমানের নাকি টার্গেটের শিকার। টার্গেটের শিকার,নাকি মন্দিরে কেরে আমি কলা খাই না!লন্ডনে মাহফুজুর রহমান খুব স্বাভাবিক ও স্বচ্ছন্দে বক্তব্য দিয়েছেন এবং উত্তেজিত মনে হয়নি।মাহফুজুর রহমানকে কেন টার্গেট করা হল সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ড নিয়ে? ফেসবুকে সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডে মাহফুজুর রহমান কে নিয়ে যে আলোচনা হচ্ছে তা সম্পূর্ণ সত্য তা আমি বলব না কিন্তু কিছুটা সন্দেহজনক কারণ লন্ডনে মাহফুজুর রহমানের বক্তব্য কিছুটা আভাস দিচ্ছে তার জড়িত থাকার।সাহারা খাতুন জানেন কি তার ২৪ ঘন্টা কবে শেষ হবে?আজ তো ৪ মাস হল আর কত সময় নিবেন?যেই জড়িত থাকুক না কেন আমরা সাগর-রুনি হত্যাকাণ্ডের বিচার চাই।