ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

আইডিয়াটা বের হয়েছিলো এক ব্রাজিলিয়ান ইঞ্জিনিয়ারের মাথা থেকে। এরপর ফিলিপাইনে এই “বোতল বাল্বের” প্রচলন করেন মাইশেল্টার ফাউন্ডেশনের আইল্যাক ডায়াজ। বাংলাদেশের গ্রামাঞ্চলে এই ধরণের বোতল বাল্ব ব্যবহার করা যায়, বিশেষ করে টয়লেটে ও যেখানে খাবার/ফসল মজুদ রাখা হয়। মাইশেল্টার ফাউন্ডেশনের উনারা বলেছেন এই বোতল বাল্ব থেকে প্রায় পঞ্চাশ ওয়াটের বৈদ্যুতিক বাল্বের সমপরিমাণ আলো পাওয়া সম্ভব। যেহেতু সূর্য্যের আলো থেকে আলো আসে, তাই দিনের বেলাতেই শুধু আলো পাওয়া সম্ভব।

যা যা লাগবেঃ
ইচ্ছাশক্তি (পরীক্ষা করে দেখার জন্য!),
দুই লিটারের কোক/মিনারেল ওয়াটারের খালি বোতল,
এক বর্গফুট টিন,
সাইকেলের কাটা টিউব (বৃষ্টির পানি য্যানো ঘরের ভিতরে না ঢুকে),
লিকুইড ব্লীচ (পিউরিফায়েড ওয়াটার হলে ব্লীচ করা লাগবে না)।

বোতল ভালো করে ধুয়ে পানি ভরে নিন। নরমাল পানি হলে লিকুইড ব্লীচ মেশাতে হবে, তা না হলে শ্যাওলা পরে যাবে। মিনারেল ওয়াটার হলে ব্লীচের দরকার নাই। টিনের টুকরার মাঝখানে গোল ছিদ্র করে নিন, বোতলের সমান করে। এরপর যেখানে লাগাবেন তার ছাঁদ ফুটো করে ফেলুন, সাইকেলের টিউব ফুটোর চারপাশে বসিয়ে (টিউব মোটা হলে মাঝখানে গোল করে কেটে) টিনের টুকরাসহ বোতল বসিয়ে নিন। ইচ্ছা করলে স্ক্রু দিয়ে শক্ত করে আটকে দিতে পারেন।
এরপর ভিতরে গিয়ে দ্যাখেন পঞ্চাশ ওয়াটের অবৈদ্যুতিক বাতি জ্বলছে!

যখন দরকার তখন, মানে রাতে জ্বলবে না কিন্তু 🙁

1
এইটা বাল্ব।

2
জ্বলসে।

3
এইভাবে কাজ করে।

ভিডিও দেখতে চাইলেঃ