ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

এক.
কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সার্ধশততম জন্মজয়ন্তী পালন করলো দুই বাংলা। সে কী আয়োজন, খুশিতে গদগদ দুই বাংলার রথি মহারথিরা। তবে একটা প্রশ্ন থেকেই গেলো, দেশ স্বাধীনের পর বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, বাংলাদেশেও শান্তি নিকেতনের আদলে একটি সাংস্কৃতিক বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা হবে। যদিও দীর্ঘ ৪০ বছর পর বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ২০১০ সালে ঘোষনা দিয়েছেন, বাংলাদেশে শিগগিরই রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে তোলা হবে। কিন্তু ৩ বছর হতে চললো.. ঘোষনা এবং ঘোষনা সুলভ সত্য ভাষন দিয়ে এখনো চলছে।

দুই.
গত বছর রবীন্দ্র সার্ধশতবর্ষে এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী এবং সংস্কৃতিমন্ত্রী দু’জনের কাছে জানতে চেয়েছিলাম…কবে এবং কোথায় হচ্ছে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়? ওনারা সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন—২০১২ সালেই এ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। হুম, মজা পেয়েছিলাম..অন্তত কবিগুরুর নামে একটি বিশ্ববিদ্যালয় হতে যাচ্ছে এই আনন্দে। কিন্তু এখনো তো সরকারের পক্ষ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার বিষয়ে কোন আওয়াজ পেলাম না। আহ..কষ্ট হচ্ছে। এটাও কী তবে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের মতো নির্বাচনী ফয়দা হাসিলের উৎস হতে চললো। যেভাবে ৩ বছরেও বিছারের কোন আলামত দেখলো না বাংলার জনগন!!! নেতারা বলছেন..আগামীতে ক্ষমতায় গেলেই তবে বিচার হবে!!! কবিগুরুকে নিয়েও কী দেশের জনগনকে আবারো বলা হবে-ভোট দিন তারপর হবে রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়!!!!!!!!