ক্যাটেগরিঃ ব্লগ

 

বাংলাদেশ আমাদের প্রাণের দেশ , আমরা এ দেশকে প্রাণের চেয়েও বেশী ভালোবাসি তাতে কোন সন্দেহ নেই । তাইতো আমরা ১৯৭১ সালে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন করেছি । কিন্তু কি এক পিছুটান যেন আমাদের পিছনের দিকে আকড়ে ধরছে , আমাদের হীন মন্যতাকে কিছুতেই কাঠিয়ে উঠতে পারছিনা ।ইদানিং তা আরো চরম আকার ধারণ করেছে ।
আমাদের সমাজে যখন কেউ কোন ভূল করে তখন আমরা সাত পাঁচ না ভেবেই বলে ফেলি এটাই হচ্ছে বাঙালীর সমস্যা , বাঙ্গাল ইত্যাদী বলে গালাগাল দিই । আমরা কি তখন ভূলে যায় যে আমরা সবাই বাঙালী , আর আমরা নিজেদেরকে নিজেরাই গাল মন্দ করছি । অথচ সেই প্রাচীন সাহিত্য থেকে এখনো পর্যন্ত কবি সাহিত্যিকগণ নিজেদেরকে বাঙালী বলে পরিচয় দিতে গর্ববোধ করেছন , যেমন—আমি বাংলায় গাণ গাই অথবা আমরা সবাই বাঙালী . এসব কবিতা আবার আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে অণূপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে । তাহলে কেন আমাদের এই অবজ্ঞা ? কাকে অবজ্ঞা ? নিজেকে নয়তো ?
আমাদের যখন কেউ জিজ্ঞেস করে , আপনার প্রিয় সিনেমার নাম কি ? প্রিয় বই এর নাম কি? প্রিয় নেতা কে ? আমরা সব প্রশ্নের উত্তরে বলবো হয়তো কোন বিদেশী সিনেমা , বই , নেতার নাম । কেন আমরা কি এতই অথর্ব,আমাদের কি বলার মত কিছুই নেই ? আমরা কি সেরা সিনেমার নামে হাঙর নদীর গ্রেনেড বা গেরিলা বা মণপুরার কথা বলতে পারিনা ? আমরা কি কপালকুন্ডলা বা শেষের কবিতার কথা বলতে পারিনা ? আমরা কি আমাদের প্রিয় নেতার নামে বংগবন্ধু , শেরে বাংলা , ভাসানী বা হাসিনা , খালেদার নাম বলতে পারি না ? অথচ বিভিন্ন দেশের তাবত নেতারা এক বাক্যে স্বীকার করেন যে , বাংলাদেশ সহ সরা বিশ্বে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা সহ নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় হাসিনা , খালেদার অবদান অপরিসীম এবং তা প্রমাণিত । তারপরও আমাদের দেশের জিনীস নিয়ে এতা লজ্জা কিসের ?
আমার এখন এক বিজ্ঞাপনের কথা মনে পড়ে যাচ্ছে ——- “ ও ও ওফ শীট ক্রাউন সিমেন্ট কেন বিদেশী হলোনা ? ”হা হা হা , কারণ আমরা বিদেশী বেশী পছন্দ করি।আমার এক বন্ধু বিশেষ কাজে ভারত গিয়েছিলো , সে কলকাতা থেকেন ট্রেনে চড়ে রাজস্হান যাচ্ছিল তার পাশে ছিলো এক ভারতীয় , অনেক লম্বা পথ তাই সে ঐ লোকের সাথে গল্প করতে চাইলো এবং আমার বন্ধু ইংরেজীতে তার ব্যাপারে জানতে চাইলে তখন সেই ভারতীয় ইংরেজীতেই বললো তুমি যদি আমার সাথে হিন্দী কথা বলতে পার তো কথা বলো আর নয়তো চুপ থাকো । আরো বলল তোমরা ঈংরেজী বলো ভালবেসে , আর আমরা ইংরেজী বলি প্রয়োজনে আর হিন্দী বলি ভালোবেসে । ঐ ভারতীয় আমার বন্ধুকে কি বোঝাতে চেয়েছে তা আর কি বুঝার বাকী আছে ? কি লজ্জা ?আমরা আমাদের সন্তানকে ভালো করে বাংলা শিখানোর আগে হিন্দী আর বাংলা শিখায় আর তাতে গর্ববোধ করি , আমাদের বাচ্চারা যখন হিন্দী বলে তখন আমরা তাদের বাহবা দেই ,অথচ আমাদের বাচ্চারা তখনো ভালো করে বাংলাই শিখেনি । আর তখন আমাদের ভাষা সৈনিকদের আত্মা ঘুমরে কেঁদে উঠে হয়তো ।আমি বলছি না যে ঐ সব ভাষা না শিখতে , সব ভাষা শিখে রাখার প্রয়োজন একান্ত । আমাদের একটা বদ অভ্যাস রয়েছে , আমরা জনগণের জন্য কল্যাণকর কোন কিছু করলেও আরেক পক্ষ শুধুমাত্র বিরোধীতার খাতিরে তার বিরোধীতা করি ।আমরা সব সময় বিদেশীদের ফলো করি আর এ ক্ষেত্রে কেন করি না , ওরা তো জনগণের কল্যাণে সবাই বিভেদ ভূলে এক কাতারে দাড়িয়ে যায় ।

আসুন দেশকে ভালোবাসি , দেশকে ভালেঅবাসতে শিখি , দেশের মানুষকে ভালোবাসি । স্বদেশী সবকিছুকে গৌরবের সাথে সারা বিশ্বে তুলে ধরি ।