ক্যাটেগরিঃ নাগরিক আলাপ

আজ জাতি হিসেবে নিজেদের বড্ড অসহায় মনে হচ্ছে। আমরা কি সেই জাতি যারা ১৯৫২ তে বুকের তাজা রক্ত দিয়ে নিজেদের ভাষাকে বাঁচিয়ে রেখেছিলাম, যারা ১৯৭১ এ বিশ্বের অন্যতম শক্তিশালী ও সুসংগঠিত সেনাবাহিনীকে পরাস্ত করে আমাদের প্রিয় বাংলাদেশকে স্বাধীন করেছিলাম, এরপর ১৯৯০ এ গণতান্ত্রিক আন্দোলন… কোন কিছুই আমাদের পরাস্ত করতে পারেনি।

আমরা তো সেই জাতি যারা বিদ্যুতের জন্য কানসাটে, নিজেদের ন্যায্য অধিকার আদায়ের জন্য ফুলবাড়িতে, সারের জন্য গাইবান্ধায় প্রশাসনের আগ্নেয় অস্ত্রের মুখে বুক পেতে দিয়ে জীবন দিয়েছিলাম। আজও ভুলি নাই পাদুয়া কিংবা বড়াইবাড়ীর কথা, যেখানে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনীকে পরাস্ত করে প্রিয় জন্মভুমির অস্তিত্ব রক্ষা করেছিলাম। এসব কি এখন শুধুই ইতিহাস?

আজ আমার জন্মভুমির বুক চিড়ে রাস্তা তৈরী করা হচ্ছে, সীমান্তে বাধ দিয়ে আমার দেশের নদীনালা গুলোকে শুকিয়ে মরুভুমি করে দেয়া হচ্ছে । কাটাতারের বেড়া দিয়ে গোটা বাংলাদেশকে একটা কারাগারে পরিনত করা হচ্ছে। অসম চুক্তি করে ইতিমধ্যে পঙ্গু করে দেয়া হয়েছে আমার দেশের অর্থনীতিকে।

সংস্কৃতি বিনিময়ের নামে একচেটিয়া ভাবে চলছে ভিন দেশী টিভি চ্যানেলগুলো, ভঙ্গুর চলচিত্র শিল্পকে একদমই পঙ্গু করে দেয়া হয়েছে একটি বিশেষ দেশীয় চলচিত্র আমাদের সিনেমা হলগুলোতে প্রদর্শনের মাধ্যমে। একটি বিশেষ দেশীয় সাংস্কৃতিক কর্মীদেরকে এদেশে আমন্ত্রন জানিয়ে বারংবার অপমান করা হচ্ছে আমাদের দেশের সম্মানিত শিল্পীদের।

ট্রানজিট দেবার নাম করে অতি সম্প্রতি তিতাস নদীর বুক চিরে দেয়া হয়েছে, সেখান তৈরী হয়েছে প্রশস্ত রাস্তা। একদিকে ফারাক্কা আমাদের উত্তরাঞ্চলকে ইতিমধ্যে মরুভুমিতে পরিনত করেছে, পাশাপাশি টিপাইমুখ বাধ তৈরীর নতুন ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে যা আমাদের উত্তর-পূর্বাঞ্চলকে মরুভুমিতে পরিনত করবে অন্যদিকে মরুভুমি প্রায় নদীগুলোর বুক চিরে রাস্তা তৈরী…এগুলো কিসের আলামত? তবে কি আমাদের স্বাধীনতা আজ হমকির সম্মুখীণ নয়? কে আমাদের রক্ষা করবে? কার আশায় বসে আছি আমরা? কে দেবে আমাদের ডাক? কে দেবে নেতৃত্ব? আসুন আজ আমরা আমাদের মহান ইতিহাস থেকে শিক্ষা নেই। যার যা কিছু আছে মহান আল্লাহর উপর ভরসা করে বেড়িয়ে পড়ি।