ক্যাটেগরিঃ আন্তর্জাতিক

 

আমার নিজের তেমন বেশী বাংলাদেশে বসবাসকারী বন্ধু-বান্ধব নেই। বিদেশে আছি, বিদেশী বন্ধু-বান্ধবই বেশী। ফেইসবুকেও তাই। কিন্তু যে ক’জন বাংলাদেশী বন্ধু-বান্ধব আছে বাংলাদেশে অবস্থানকারী, তাদের মধ্যে কারো কারো থেকে জানতে পারলাম, সাম্প্রতিককালে আমেরিকার পূর্বপ্রান্তে যে হারিকেন আঘাত হানল তা নাকি আল্লাহর গজব বলে বেড়াচ্ছে বাংলাদেশের কিছু বাঙালীরা। কিসের গজব? স্যাম ব্যাসিলের মতো লোকের মুসলিমদের নবীজীকে নিয়ে তৈরি ছায়াছবির কারণে।

প্রথমত কিছুক্ষণ হেসে নেই। কতখানি গর্দভমার্কা হলে এমন মন্তব্য করে এসব লোকজন! আরে ভাই, একটা দেশের দুর্যোগ কি একজন ব্যক্তির কি এক ছবি বানিয়েছে তার উপর নাকি নির্ভর করে? তাহলে পাকিস্তানে ভূমিকম্প কেন হয়? বাংলাদেশে আইলা, সিডর কেন হয়? এফডিসিতে কি যীশুকে নিয়ে কিছু বানানো হয়েছে নাকি?

তার উপরে আবার শুনেছি এসব লোকজন নাকি আমেরিকায় আসারও স্বপ্ন দেখে। ডিভি লটারী কিংবা স্টুডেন্ট ভিসা কিছু না কিছুর মাধ্যমে স্বপ্নভূমিতে যেতে চায়। কেন? তখন কি স্যান্ডী, ক্যাটরিনা বা আইরিন আসবে না? তাছাড়া যে অঞ্চলে স্যান্ডী আঘাত হেনেছে, সেই নিউইয়র্ক বা প্রত্যন্ত অঞ্চলেই তো বাংলাদেশীদের বেশীর ভাগেরই বাস। যদিও এই স্যান্ডী বাংলাদেশী কমিউনিটি যেদিক দিয়ে সেই স্থানগুলোতে তেমন আঘাত করে নাই। তবুও ক্ষতি যদি হয়, তাহলে তো এমন বাংলাদেশীদেরও হতে পারত, নাকি? মরলে তো নিরপরাধ বাংলাদেশী ভাই-বোনেরাও মরত, নাকি?

আর স্যাম ব্যাসিলের বিষয়ে বলব, একটা লোককে দিয়ে তো সারা দেশ/জাতিকে মাপা যায় না। এই লোক যদি খারাপ মনোভাব নিয়ে তার ছবি তৈরি করে থাকে, তাহলে তার শাস্তি তো ওই লোকই পাবে। হয়ত ইহলোকে, নয় পরলোকে। ইসলামেই তো আছে শুনেছি কেয়ামতের দিন, যখন সকলকে দাঁড় করানো হবে আল্লাহর সামনে পাপ-পুণ্য বিচার করার জন্য। তখনই তো আল্লাহ এমন দুষ্টলোকেদের চরম শাস্তি দেবেন। তাছাড়া শুনেছি স্যাম ব্যাসিল নাকি প্রাক্তন এক মুসলিমই ছিলেন। যদি তা সত্য হয়, তাহলে তো উনি আরও শাস্তি পাবেন, তাই নয় কি? তাহলে কেন এইসব বাংলাদেশীগুলো এমন দুর্মনোভাব প্রকাশ করে ইসলামের মতো একটা শান্তির ধর্মে কালো দাগ ফেলছে?

মূলপোস্ট