ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

 

প্রকাশে-গোপনে, আলোতে-অন্ধকারে সবাই কোন না কোন পাপের কাজ করে আসছি। যার প্রায়শ্চিত করতে হয় জীবনের পরবর্তী সময়ে। কারন পাপ বাপকেও ছাড়ে না। তবে কিছু কিছু ক্ষেত্রে ব্যতিক্রম হতে পারে। সমাজে অনেক ভাল মানুষ আছে এখনও যাদের জীবনে তেমন পাপের কোন চিহ্ন নেই। যাদের জন্য দুনিয়াকে এখনও সুন্দর লাগে। দুনিয়াতে বসবাস করা যাচ্ছে। যাদের ভাল কাজের বরকতে সমাজটা এখনও দাড়িয়ে আছে। এমনিতেই দেশ প্যারালাইসড (পঙ্গু), তবুও চলছে। কিভাবে, শুধুমাত্র কিছু ভাল মানুষের ভাল কাজের গুণে।

একটা বীজ যেমন রোপন করলেই ধীরে ধীরে মস্ত বড় গাছে পরিণত হয়। খারাপ কাজের দরুন প্রতিটি মুহুর্ত একটা অভিশপ্ত জীবন নিয়ে ঘুরে বেড়াতে হয়। ধরুন, একজন বড় সন্ত্রাসী। তার জীবনের যত অর্জন সবকিছুর মুলে কোন না কোন পাপের কাজ। ছোট্ট একটা অপরাধ থেকে যার জীবনটা শুরু হয়েছে। ধীরে ধীরে আজকের বড় সন্ত্রাসীতে রূপ নেয়। লতা, পাতা চুরি করতে করতে কিন্তু এক সময় বড় কিছু চুরি করা সম্ভব হয়। তেমনি ছোট্ট ছোট্ট অতিরিক্ত আয় রোজগার থেকেই কিন্তু বড় দুর্নীতিবাজ হিসাবে নাম লিখাতে হয়।

কেউ যদি বড়দের সাথে বেয়াদবি করে তাহলে মস্তবড় বেয়াদব হিসাবে চিহ্নিত হয়। যদি কেউ মিথ্যা বলে তাহলে সেরা মিথ্যাবাদী প্রমাণিত হয়। এভাবে করে জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে খারাপের যে কোন চিহ্ন লেগে গেলে ধীরে ধীরে উক্ত কাজ অব্যাহত থাকলে চূড়ান্ত জায়গায় পৌছানো সম্ভব হয়। কারন একটা পাপের সাথে আরো অনেকগুলো পাপ জড়িত থাকে। হত্যা, নির্যাতন সহ সকল পাপের ফল কিন্তু ধীরে বড় গাছে পরিণত হয়। যেই গাছে আবার পাপের ফল ধরে।

আমরা অনেক সময় বলি, ওমুক ব্যক্তির পাপ বাতি হয়েছে। যার ফলে সে ধরা পড়েছে। ভিকারুন্নিসার একজন পরিমল কিন্তু হঠাৎ করেই একজন ছাত্রীকে নির্যাতন করেনি। তার চরিত্রে হয়ত: আরো অনেক নির্যাতনের দাগ রয়েছে। ফলে চুড়ান্ত জায়গায় এসে পরিমল স্যার ধরা পড়েছে। তার মানে পাপ বাতি হয়েছে। নেশার সাথে জড়িত ব্যক্তি কিন্তু হঠাৎ করেই বড় নেশার সাথে জড়ায়নি। ধীরে ধীরে বিভিন্ন স্তর অতিক্রম করেই কিন্তু নেশাগ্রস্ত হয়ে যায়। যেখান থেকে আর মুক্তি সম্ভবপর হয় না।

এভাবে প্রত্যেকটা সেক্টরে এবং জীবনের প্রত্যেকটা মুহুর্তে কেউ যদি পাপের সাথে জড়িয়ে পড়ে তাহলে কিন্তু সর্বনাশ। কারন এই পাপের প্রায়শ্চিত করতে হবে কোন না কোন সময়।

পাপের শুরু :
১. লোভ কিন্তু একটা মানুষের জীবনকে ধ্বংস করতে যথেষ্ট। কারন লোভের বিন্দুমাত্র ইচ্ছা থাকলে কোন না কোন ভাবে লোভ থেকে পাপের দিকে চলে যায়। “লোভে পাপ পাপে মৃতু।
২. হিংসা থেকে জন্ম নেয় রেষারেষি। পরবর্তীতে আক্রোশ এবং কোন না কোন ভাবে ধ্বংসাত্মক কাজে লিপ্ত হওয়া।
৩. দুষ্টুমির চলে বলা কথাও কিন্তু মিথ্যা। মিথ্যাকে যতক্ষণ পর্যন্ত জীবন থেকে মুছে ফেলতে না পারবো ততক্ষণ পর্যন্ত জীবনটা মিথ্যার সাথেই জড়িয়ে থাকবে। “মিথ্যা বলা মহা পাপ”
৪. সকল চাহিদাকে নির্দিষ্ট সীমার মধ্যে রাখতে পারলেই কিন্তু জীবনটা নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। ছোট্ট একটা ইচ্ছা পূরণ করতে গেলেই কিন্তু অবৈধ পন্থা অবলম্বন করতে হবে।
৫. যে ধর্মের হোক না কেন ধর্মীয় নিয়ম কানুন পালন করার মানসিকতা না থাকা। এইচআইভি’র ক্ষেত্রে যেমনটি পালন করা হয়।

সর্বশেষে একটা কথাই বলব, যে কোন খারাপ কাজ হোক সবসময় দূরে থাকতে হবে। পাপের সাথে জড়িয়ে গেলে কিন্তু আর ফেরার কোন উপায় থাকবে না। বিনষ্ট হবে যেকোন সুন্দর ভবিষ্যৎ। অর্থ কিন্তু সব কিছুর মানদন্ড নয়। অর্থ প্রাচুর্য কিন্তু অশান্তিরও কারন। তাছাড়া কেউ না কেউ পিতা-মাতার দোয়ায় পাপের কাজ থেকে দূরে থাকে। তাই চেষ্টা করতে হবে মান সম্মান নিয়ে বেঁচে থাকতে। পাপের ঘ্রাণও কিন্তু পাপের দিকে ধাবিত করে।

অনেক গল্পের মাঝে একটা …………… এক ব্যক্তির বিচার কার্য শুরু হয়েছে। তার আইনজীবি অনেক চেষ্টা করছে তাকে মুক্ত করতে। হত্যা মামলার আসামী হওয়ায় তার মক্কেলকে মুক্ত করতে ব্যর্থ হয়। যথারীতি ফাঁসির ঘোষনা হয়ে যায়। ফাঁসির রায় কার্যকর করার কয়েকদিন আগে উক্ত আইনজীবি আসামীর সাথে দেখা করতে যায়। আইনজীবি তার আপসোস আর কষ্ট নিয়ে বলে, আমি অনেক চেষ্টা করেও আপনাকে বাঁচাতে পারলাম না। আসলে বলেন তো আপনি কি সত্যি এই হত্যা করেছেন কিনা? আসামী তখন বলে ভাই আমি সত্যি করে বলি আমি এই হত্যা করিনি। তবে কেন যে আমি দোষী প্রমাণিত হলাম। হিসাবে মিলছে না এবং আপনিও আমাকে মুক্ত করতে পারছেন না। আসামী তখন তার আইনজীবিকে বলে, আমি আমার জীবনের একটা সত্য ঘটনা আপনাকে বলব। আমি এই হত্যা করিনি এটা সত্যি। তবে আমি জীবনে একবার একজনকে হত্যা করেছি কিন্তু সেই সময় আমি পার পেয়ে যাই। আমাকে হত্যাকারী প্রমাণ করতে পারেনি কেউ। আল্লাহর এটা বিচার যে, ঐ মামলায় হত্যাকারী হয়েও বেঁচে যাই। কিন্তু এখন হত্যাকারী না হয়েও আমি অভিযুক্ত, ফলে আমার ফাঁসি হবে।

কাজেই সত্য সবসময় সত্য। পাপ করা মানে হচ্ছে একটা বীজ রোপন করার সমান। যেই বীজ থেকে গাছ হবে, ফুল হবে, ফল হবে এবং নিজের ধ্বংস ঢেকে আনবে। পাপের শাস্তি ভোগ করতেই হবে ……… তাই সবসময় পাপকে ঘৃনা এবং পাপকে এড়িয়ে চলা উচিত।