ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

আজ শুক্রবার পালিত হতে যাচ্ছে ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের ২০১৫ সালের পবিত্র ঈদ-উল-আযহা, যাকে কোরবানি বা বকরি ঈদও বলা হয়ে থাকে। এতদুপলক্ষ্যে সকল মুসলমান ভাই-বোন ও বন্ধু-বান্ধব সহ সর্বস্তরের জনগণকে আমার পক্ষ থেকে জানাই প্রাণঢালা প্রীতি, ভালোবাসা ও অনেক অনেক শুভেচ্ছা। সবার জন্য রইলো অনেক অনেক শুভ কামনা ও “ঈদ মোবারক”।।

হ্যাঁ, এই ঈদকে সামনে রেখে সবারই মনে একটা আনন্দের জোয়ার অবধারিত জেনেও আমি কোথায় যেন একটা শূন্যতা বোধ করছি!! ভাঙ্গা হৃদয়টা যেন আর কোনভাবেই চাঙ্গা করবার কায়দা খুঁজে পাচ্ছেনা!! ঠিক এমনই মুহূর্তে একটা আইডিয়া খুঁজে পেলাম, যাতে করে এই আমি কিছুটা হলেও নিজেকে ধন্য মনে করে পুলকিত বোধ করবো।

সম্মানিত পাঠক, আপনারা সবাই বিষয়টি অবগত আছেন যে- সৌদি আরবে মক্কার অদূরে মিনায় পদদলিত হয়ে নিহতের সংখ্যা এখন পর্যন্ত ৭১৭ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও আট শতাধিক হাজী। দূর্ঘটনার পরপরই স‌্যোশাল মিডিয়াতে বারবার ভেসে আসছে এর চিত্র। ভিডিও চিত্রে দেখা গেছে, আশেপাশে মৃতদেহ ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। অনেকে স্বজনদের মৃতদেহের পাশে বসে আহাজারি করছেন। উদ্ধারকর্মীরা আহতদের দ্রুত নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছেন। প্রর্তক্ষ্যদর্শীদের বরাত দিয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদে জানা যায়, বৃহিস্পতিবার মিনায় শয়তানকে পাথর মারার সময় ভীড়ের চাপ এবং হুড়োহুড়ির কারণেএ ঘটনা ঘটে।

একটি অনুরোধ

ঈদ মানে খুশির জোয়ার, ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে নিজের আনন্দ একে-অপরের সহিত ভাগাভাগি করে নেওয়ার উত্তম মুহূর্ত। সম্মানিত পাঠকগণ, আপনারা সবাই একবার ভেবে দেখুনতো- মৃত এই ৭১৭ জন সহ আহত এতগুলো মানুষের পরিবারের আজকের ঈদের আয়োজন কিভাবে হচ্ছে!!! সত্যিই খুবই হৃদয়বিদারক এই ঘটনায় আমি ব্যক্তিগতভাবে মর্মাহত।

তাই, আমি আমার আজকের এই লেখনির মাধ্যমে ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সর্বস্তরের জনসাধারণের কাছে পবিত্র এই ঈদের শুভেচ্ছা সহ একটি অনুরোধের বার্তা পৌঁছে দিতে চাই যে, সবাই যেন নিজ নিজ উপাসনালয়ে এই সকল মৃত আত্মার সৎগতিসহ আহতদের দ্রুত সুস্থ্যতার জন্য প্রত্যেকে প্রত্যেকের অবস্থানে থেকে দোয়া ও প্রার্থণা করে থাকেন।