ক্যাটেগরিঃ ধর্ম বিষয়ক

 

গত ১৩ এপ্রিল “আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের উৎস গ্রন্থ আল কোরআন” শিরোনামে কালের কণ্ঠ একটি প্রবন্ধ ছেপেছিল । ১৪-এপ্রিল এক ভাইয়ের ফেসবুকে দেখি উনি ওই প্রবন্ধটি সাজিয়ে রেখেছেন । নিচে কয়েকজন মন্তব্য করেছেন আল্লাহ মহান, অনেক ধন্যবাদ এই ধরনের । তো আমিও সেই প্রবন্ধ খানা পড়ার জন্য কালের কন্ঠের অনলাইন ভার্সনে গেলাম । কিছুক্ষণ পড়ার পর আমার পিলে চমকে গেল যখন পড়লাম ডারউইন নাকি বিবর্তনবাদ কোরআন থেকে সংগ্রহ করেছেন । বুঝতে পারলাম লেখক অতি আবেগী হয়ে বাস্তবতা বিবর্জিত প্রসংগ গুলো লিখেছেন ।

প্রবন্ধ শেষে দেখি এক পাঠক মন্তব্য করেছে যে এইটা নাকি সামুর ব্লগার আসিফ মহিউদ্দিনের লেখা । বুঝলাম একটা ঘাপলা আছে, আসিফের ব্লগে গিয়ে দেখি ওয়াও একই লিখা আসিফ মহিউদ্দিন লিখেছিল ৬-৭ মাস আগে ।

কালের কন্ঠের প্রবন্ধটি দেখুন ।

আসিফ মহিউদ্দিনের পোস্টটি দেখুন ।

এবার আসি মূল প্রসঙ্গে, আমরা যারা নিয়মিত ব্লগার তারা জানি নাস্তিক আসিফ কী ধরনের চিজ । আসিফ যেই পোস্টটি দিয়েছিলেন সেটি ছিল একটি স্যাটায়ার ।

আর সেই স্যাটায়ারকে কালের কণ্ঠ তাদের পত্রিকায় প্রকাশ করে যে বাংলাদেশের কোটি মানুষকে ভুল শিক্ষা দিল । একটা স্যাটায়ার লেখাকে সাধারণ মানুষের কাছে সত্য বলে চালিয়ে দিল । অথচ বাংলাদেশের একজন মানুষ তার প্রতিবাদ করলো না?

হায়রে বাংলাদেশী মুসলিম! মিডিয়ার চাপাচাপি এবং দলীয় আদর্শে নিজেকে সঁপে দিয়ে, ইসলামের আলো থেকে প্রতি মুহূর্তে শতশত আলোকবর্ষ দূরে সরে যাচ্ছ ।

কালের কন্ঠের এই হীন আচরণের জন্য আমার পক্ষ থেকে তীব্র ঘৃণা জ্ঞাপন করলাম ।