ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

ভাবছি কিছু একটা লিখব। বেশ কয়েকদিন থেকেই ভাবছিলাম। কিন্তু কেন যেন সময় করে উঠতে পারছিলাম না। আজ একটু সময় করতে পারলাম বলে বসে পড়লাম। মাথার মধ্যে অদ্ভূত সব চিন্তা ঘুরপাক খাচ্ছে। কি সব চিন্তা তা নাহয় পরেই বলি কেমন? অবশ্য আমার এইসব অদ্ভূত চিন্তার বিশেষ একটা কারণ ও আছে। আচ্ছা আগে তাহলে বিস্তারিত বলেই ফেলি।

গত ডিসেম্বর মাসের শেষ দিকের কথা। তারিখটা ছিল ২৬ ডিসেম্বর,২০১১। বুয়েট এর আমাদের র‌্যাগ-২০১১ (০৬ ব্যাচ) এর অনুষ্ঠান এর প্রথম দিন। সেদিন ছিল আমাদের রঙ খেলা আর কালচারাল নাইট এর প্রথম দিন-আমাদের তৈরি নাটক এর প্রদর্শনী। সারাদিন ধরে “অফিসিয়াল” ভাবে রঙ মারলাম আর খেলাম !! বলাই বাহুল্লো যে কি পরিমান মজা আমরা পেয়েছি সেদিন !!! আর রাতে প্রথমে দেখলাম “Cloud no-06” নাটকটি। এরপর সবার বহুল প্রতীক্ষিত DSLR নাটকটি। ডিএসএলআর নাটকটির ট্রেইলার এ একটা গান ছিল–“চাঁদ মামা আজ বড্ড একা, বড় হয়েছি আমি…রোজ রাতে আর হয়না দেখা, হয়না দেয়া হামি…রোজ রাতে আর চাঁদের বুড়ি কাটেনা চরকা রোজ, ও বুড়ি তুই আছিস কেমন হয়না নেয়া খোঁজ…“–Old School ব্যন্ড এর গান। খুব – চমৎকার একটি গান, সেই সাথে গানের কথাগুলোও। এই গানটা প্রথম শুনেই মনের মধ্যে কেমন যেন নাড়া দিয়ে ওঠে !! আসলেই তো !! কেমন যেন বড় হয়ে গিয়েছি আজকে !! এই তো সেদিন-ই না সবাই মিলে ক্লাস শুরু করেছিলাম । আর এখন সব কিছু শেষ এর পথে !

যাই হোক সেদিন এত্তসব Feelings একটু মনের মধ্যে গোপন রেখেই বাসায় ফিরে আসি। এরপর দিন ছিল আমাদের কালচারাল নাইট । বিদায়ী ব্যাচ হিসেবে আমাদের নিজস্ব শেষ কোন অনুষ্ঠান। সেদিন রাতে দেরি হয়ে যাওয়ায় আর বাসায় ফেরা হয়নি। রাতে তিতুমীর হল এ আমাদের প্রিয় বন্ধু মিথুন এর রুমেই আমরা ৩জন-আমি, কমল, বাকি থেকে গেলাম। আর ওদিকে ফয়সাল ছিল শেরে বাংলা হল এ জীবন এর রুমে। ব্যস !! সেই রাত ই যেন যেন আমার জন্য কাল হল !!! ভয় পেয়েছেন ? নাহ ভয়ের কিছু নেই। কাল হলো মানে জীবনের যেন এক আমূল পরিবর্তন হল। সেই রাতে ২টার সময় গেলাম নাজিরা বাজার এ খেতে। যাওয়ার পথে ফাকা রাস্তায় পায়চারি, হঠাৎ কোথাও দাঁড়িয়ে গিয়ে একসাথে গান গাওয়া, আড্ডা-একজন আরেকজনকে বিনা কারণে গালাগালি !! আর নাজিরা বাজার গিয়ে তো পেটে ঢুকল গ্রীল চিকেন আর তন্দুরি রুটি !! আহ এ যেন অমৃতকেও হার মানায় !!! যাই হোক পরে আমরা ফেরত এলাম রাত ৪টায়। এসেই আমাদের আলোকিত ক্যম্পাস এর সামনে চলল ফটোশেসন। তখন ঘড়িতে ভোর রাত ৪টা ৩০মিনিট !! আমরা কয়েক যুবক তখন ও রাত জাগা !!!
এভাবে কেটে গেলো নির্ঘুম একটি রাত।

পরদিন-২৭ ডিসেম্বর,২০১১। কনসার্ট এর প্রথম দিন। সেই রাতে একসাথে হৈ-হুল্লোড় করার পর আবার সারা রাত জাগা। রাত ৩টায় পলাশী গিয়ে চা খাওয়া আর সাথে জমপেস আড্ডা !!! কি সুন্দর সব সময়গুলো !!

এভাবে কেটে গেলো ২৮,২৯,৩০ ডিসেম্বর । টানা ৫টি দিন !! নিঃসন্দেহে আমার জীবনের সবচেয়ে সুন্দর সময় ছিল এই ৪টি দিন। আমাকে মেরে ফেল্লেও একথা অনস্বীকার্য যে আমি আমার জীবনটা এত সুন্দর করে আগে কখনো উপভোগ করিনি-দেখিনি !

হুম, অনেক তো পুরনো কথা হলো। এখন ফিরে আসি বর্তমান সময়ে। এখন আছি আমি, আগের মতই কিন্তু কেন জানি আবার আগের মত না !!! কি অদ্ভূত লাগলো আমার কথাটা ? অদ্ভুত লাগার-ই কথা । এখন বসে আছি পরীক্ষা দেবার জন্য। সামনে ২১ জানুয়ারী,২০১২ থেকে পরীক্ষা হওয়ার কথা। কিন্তু কেন যেন এখন কিছুই ভালো লাগছে না ! জানি না কেন। তবে এটা Sure যে এটা গত বছরের সেই শেষ ৫দিনের ই “আছর” !! এখন সারাদিন ফেসবুকে বসে থাকি, অপেক্ষায় থাকি আমার বুয়েট এর বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেয়ার জন্য। কারণ এখন ত আর আমাদের একসাথে ক্লাস করা হয় না-হবেও না আর কোনদিন-এখন ফেসবুক ই আমাদের একমাত্র “Meeting Place” ! এখন আর আমার ভালো লাগেনা কোন মুভি দেখতে, ভালো লাগেনা বাসায় বসে থাকতে, ভালো লাগে না একদিন Friendদের সাথে সামনা-সামনি আড্ডা দিতে না পারলে। আর পরীক্ষার পড়া ?! সে তো “বহুত দূর কি বাত !” মহা সমস্যায় পড়ে গিয়েছি । লাইফটা হুট করেই অনেক কিছু পালটে দিয়েছে !
যাই হোক অনেকেই হয়ত এই সব কেচ্ছা-কাহিনী শুনে বিরক্ত বোধ করছেন (?!)। তাই আজকের মত ইস্তফা দিলাম। ও আর আমরা আরোও যে কত রকম মজা করেছিলাম সেই ৫টা দিন সেটা জানেন? নাহ থাক ! আজকে আর আপনাদের বিরক্ত করব না। সেই কেচ্ছা নাহয় আরেক কিস্তির জন্যই বাকি রেখে দিলাম ! 😉

— আসকার রাজিন রহমান…Signing Out
১৫ জানুয়ারী, ২০১২