ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

ঘুম থেকে উঠার পর থেকে টেলিভিশন চালু না করে আর শান্তি পাই না এখন। কেমন যেন অস্থির লাগে। যখন দেখি টেলিভিশনের নিচে লাল লেখার কিছু তাজা খবর, বুকটা ধক করে উটলেও একটু পরে আবার সব ঠিক হয়ে যায়।নাস্তার টেবিলে বসে আবার ও পত্রিকায় সেই বুক ধক করা খবর।কিন্তু তাই বলে নাস্তা করতে কিন্তু আমার কোন সমস্যাই হয় না বরং আরো দিন দিন রুচি ভালো হচ্ছে। লোকজন পুড়ছে, মারা যাচ্ছে তাতে আমার কি? আমি তো ভালই আছি।রাস্তা ঘাটে চায়ের দকানে অনেকেই মুখে ফেনা তুলে ফেলছেন তাতে লাভ কি ভাই? আমাদের তো লজ্জা-শরম অনেক কম তাই কোন কিছুতেই আমাদের কিছু যায় আসে না।সবাই বলছেন এটা করা উচিত তো আর একজন বলছেন অন্যটা করা উচিত।আরে ভাই মানুষ মরা তো কোন কিছুর জন্য আটকে নাই,কি করা উচিত আর কি করা উচিত না তার উপর ভরসা করে কেউ বোমা হামলা করছে না।যে হাসপাতালের বেডে শুয়ে কাতরাচ্ছে তার ব্যাথা টা তো আমি -আপনি বুজতেছি না।কতগুলো পরিবার তাদের সব সপ্ন ধূলার সাথে মিশিয়ে শুধু আপনজনকে ফিরে পেতে চাচ্ছে তার খবর ই বা আমরা কয়জন রাখি?কে কোন দলের আর কার কি লাভ সেটা তো পরে, সবার আগে সবাই যে আমরা মানুষ সেটাই ভুলে যাই।একজন আর-একজন কে দোষ দিয়েই আমরা আমাদের সকল দায় এড়াতে পারি না।অনেকেই অনেক লম্বা ভাষন এবং কি করলে কি হবে তার বিশাল নমুনা দিয়েছেন কিন্তু কেউ এর জন্য লজ্জিত নন অনুতপ্ত ও নন। বরং সবার ভাষন শুনলে মনে হয় এইরকম ঘটনা আরো ঘটবে, এইগুলো কোন ব্যাপার না।তাই আজ কেন যেন মনে হয় আমাদের এই অবস্থার জন্য আমরা-ই দায়ী, আমাদের লজ্জা থাকলে আমরা আজ অনেক ভালো থাকতাম।তাই আসুন আমরা লজ্জা পেতে চেষ্টা করি, আসুন আমরা লজ্জা পাই।