ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

আমাদের দেশে আমার মত পাতি পন্ডিতের অভাব নাই। যে কোন ঘটনা ঘটে গেলে আর হুশ থাকে না। তবে ব্যাপারটা খারাপ না বরং খুবই ভাল।মানুষ সচেতন হচ্ছে, মানুষের বিবেক জেগে উঠছে। বিগত কিছু দিনের ঘটনা নিয়ে অনেকের অনেক মতবাদ, অনেকেই খাইয়াল্মু মতবাদে রাস্তা ঘাট একাকার করে ফেলছেন।এটাও ভাল যদি উনারা একটু আধটু ভয়টয় পায় আর কি!
উনি করে বললাম এই জন্য আবার মাইন্ড খাইয়েন না, আমি আবার মস্তিষ্কহীনদের আপনি করেই বলি। অনেকেই আবার যত দোষ নন্দ ঘোষ বলেই সোজা ডুব দিচ্ছেন পুকুরের অতল গহীনে। যাই হোক দুনিয়াতে যার যা নাই, তা সে ছিনিয়া নেয় (যারা বলদ)। বুঝলেন না, আরে ভাই উনাদের দেহে হয়ত ঘাটতি ছিল(পশু)। তবে সব সময় সব জায়গায় প্রতিকার এর চেয়ে প্রতিরোধ-ই উত্তম।কি ভাই টাস্কি খাইলেন, টাস্কি খাইয়েন না।বলবেন তো প্রতিরোধ করমু কিভাবে?প্রতিরোধ করার অনেক উপায় আছে, আসুন আগে আমরা নিজেই নিজের ভিতর,নিজ ঘরের ভিতর, নিজ বাড়ির ভিতর, নিজ এলাকার মধ্যে প্রতিরোধ গড়ে তুলি।

আর একটা ব্যাপার হল অনেকেই আবার বলছেন আরে যে পোষাক পড়ে রাস্তায় বের হয় এর থেকে বেশি কিছুও হইতে পারতো।আবার অনেকে বলছেন আরে এইটা হল মন-মানসিকতার ব্যাপার। উভয় দলকেই বলব, আপনারা দুই দিকে না গিয়ে আসেন সরল পথে যাই, একই সাথে মন-মানসিকতার বদলের সাথে সাথে যতটুকু পারি শালীন পোষাক পড়ি সবাই। জ্বি ভাই সবাই, ছেলেমেয়ে সবাই।আর এই ব্যাপারটা শুধু ইসলামই বলে না বরং সকল জাতির সব পবিত্র বিধান এর মধ্যে একটি অন্যতম বিধান হল নর-নারী সকলের শালীন পোষাক পরিধান।আবার আপনার মন-মানসিকতাই কিন্তু আপনার পরিচয়।
তবে এই জন্য আবার সব দোষ এখন পোষাক এর উপর দিয়ে ফুরফুরে মেজাজে ঘুমাতে চলে যাবেন না।যারা ঘটনার নায়ক(কতিপয় পশু) তাদের কে খোজে বের করাটা তো সময়ের ব্যাপার কারন ভিডিও ফুটেজ তো আছে তাই না ? তাহলে তো হয়েই গেল, ফুটেজ দেখে উনাদের ধরে পুলিশের হাতে দিয়ে এবার জাতির সকল দায় সাড়া ভেবে আবার ফুরফুরে মেজাজে ঘুমাতে যাচ্ছেন, দয়া করে যাবেন না কারন আপনার ঘুম গভীর হওয়ার আগেই উনারা বাইরে বের হয়ে খোলা আকাশের নিচে দাড়িয়ে ধুম্র-শলাকা ফুঁকবেন। তাহলে এখন কী করা যায় ? ভাই সোজা হিসাব, তারা যা করতে চাইছিল তাদের সাথে ও তাই করা হোক।দেশে ন্যাংটা পাগলের সংখ্যা নেহাত কম না তারপর ও না হয় আরও কিছু বাড়ল।এই সুযোগে যদি ট্রাফিক পুলিশের কাজটা ও একটু কমে।