ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

পত্রিকা মারফত জানতে পারলাম ম্যারাথনের আদলে বাংলাদেশে দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক প্রতিযোগীদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক ১০ কিলোমিটার দৌড় প্রতিযোগিতা’।

২০১৩ সালের ১৮ জানুয়ারি সকাল ৬টায় গুলশানের লেডিস পার্ক থেকে এই দৌড় শুরু হবে। এরপর গুলশান-২, গুলশান-১, তেজগাঁও লিংক রোড, বিজয় সরণী, খামারবাড়ি হয়ে মানিক মিয়া এভিনিউয়ে গিয়ে শেষ হবে। সকাল সাড়ে ৮টা পর্যন্ত এক টানা ১০ কিলোমিটার দৌড়াবেন প্রতিযোগীরা। পরে মানিক মিয়া এভিনিউতে একটি কনসার্ট অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া ২০১৩ সালের ৮ নভেম্বর আরো বড় আকারে ‘ঢাকা আন্তর্জাতিক হাফ ম্যারাথন’ আয়োজনের পরিকল্পনা আছে। সে সময়ও দৌড়ে একই রুট ব্যবহার করা হবে।

প্রথম প্রতিযোগিতায় পাঁচ হাজার এবং পরেরটিতে ২০ হাজার প্রতিযোগী অংশ নেবে। আর প্রথম ও দ্বিতীয় ইভেন্টে যথাক্রমে ২০ হাজার এবং এক লাখ দর্শক উপভোগ করবে বলে আশা করছেন আয়োজকরা।

নিঃসন্দেহে বিরাট আয়োজন, উদ্দেশ্যও মহৎ। সুস্থ জীবনধারা নির্বাচনে, খেলাধুলায় অংশগ্রহণে উৎসাহিত করা, কমিউনিটি স্পোর্টস উন্নয়নে দেশ’কে আরো এগিয়ে নেয়া, বাংলাদেশি ক্রীড়াবিদদের কমনওয়েলথ ও অলিম্পিক গেমসে সফলতা লাভের ক্ষেত্র আরও সম্প্রসারিত করা, দেশের পর্যটন শিল্প বিকাশে সহায়তা প্রদান, সুস্থ সবল নাগরিক ও উন্নত দেশ গড়তে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখা, আন্তর্জাতিক চেতনা তৈরি…।

কিন্তু উদ্যোক্তরা কী একবার ভেবে দেখবেন, আপনারা যে রুটটির প্রস্তাব করেছেন তা ঢাকা শহরের প্রধান প্রধান কয়েকটি সড়ক? এই ধরনের আয়োজনে সাধারণতঃ যা করা হয়ে থাকে, যারা সেদিন দৌড়াবেন তাদের জন্য রাস্তাগুলো উন্মুক্ত করে দেয়া হবে। ঐ সময়ে ঐ রাস্তাগুলোতে যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হবে। যদিও শুক্রবার! ৬ টায় দৌড় শুরু হওয়ার কথা থাকলেও হর্তাকর্তারা আশার পর দৌড় শুরু হবে! ৮ টার আগে শুরু করা আদৌ সম্ভব কিনা সন্দেহ! জ্যামের শহর ঢাকাতে বসবাস করতে গিয়ে এমনিতেই মানুষের নাভিশ্বাস উঠে যাচ্ছে। একবার ভেবে দেখুন সেদিনকার ঢাকা শহরের অবস্থাটি কী হবে?

পূর্বেই বলেছি নিঃসন্দেহে এটি একটি ভালো উদ্যোগ, আপনাদের দেখে আশা করি আরো অনেকেই উৎসাহিত হবেন এই ধরণের উদ্যোগ গ্রহন করতে।

একটি অনুরোধ আপনাদের প্রস্তাবিত রুটটি পরিবর্তন করে ঢাকার আশেপাশে কম জনবসতিপূর্ণ কোন স্থানে এই দৌড়ানোর ব্যবস্থা করা যায় কী?