ক্যাটেগরিঃ ক্যাম্পাস

বাংলা
শুরুতেই বলি,যদি অতি মেধাবীর কথা শুনে ফেলেন তাইলে সর্বনাশ। আগে ৩৫ ও ৩৬তম বিসিএস প্রিলিমিনারি প্রশ্নগুলি দেখুন। এবার ভাবুন খুব কি কঠিন প্রশ্ন আসে ? আসলেই তেমন কঠিন প্রশ্ন আসেনা । গত দুটি বিসিএসের প্রশ্নে যেটি উল্লেখযোগ্য বিষয় তা হলো-

কবিদের পিতৃপুরুষের পরিচয়,উপন্যাসের বিষয়বস্তু,বিভিন্ন সাহিত্য পত্রিকার প্রকাশকাল বা কবিদের বিভিন্ন পত্রিকার সাথে সম্পৃক্ততা,চলচ্চিত্রের পরিচালক বা মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক চলচ্চিত্র,উপন্যাসের চরিত্র,জাতির জনক বঙ্গবন্ধু রচিত বই বা রাজনৈতিক সম্পৃক্ততা আছে এমন বই,উল্লেখযোগ্য এমন কবির মৃত্যু কোথায় বা স্বাধীনতা যুদ্ধে অবদান,বিখ্যাত ব্যক্তির আত্মজীবনী,বাংলার প্রানের গান বা বহুল প্রচলিত গানের সুরকার বা লেখক কে এমন প্রশ্ন এসেছে দেখা যায় ।
এবার আসি পরামর্শে । জীবনে আমরা কম গল্পের বই পড়িনাই । যদি একদম না পড়ে থাকেন তাতেও সমস্যা নাই। এবার বাছাই করুন কোন লেখকের বই আপনি পড়বেন। সেই বইটি কিনে ফেলুন এবং শেষ করুন আর খোজ নিন এই লেখকের অন্য বইগুলি কি কি । এই যে আপনি বই কিনলেন সেই লাইব্রেরীর সাজিয়ে রাখা সব গল্প বা উপন্যাস বইগুলিও দেখুন। এভাবে না হয় সপ্তাহে একটি দিন ২০ মিনিটের লাইব্রেরী ওয়ার্ক করেই ফেললেন ! মন্দ হবে না । পরিচিত হবেন আপনার অজানা অনেক দেশী বই বা বিদেশি বইয়ের অনুবাদ বইয়ের সাথে ।

আশে পাশে বন্ধুদের দেখবেন অনেকেই পন্ডিত টাইপের পড়ুয়া আছে। তাদের কাছেও জেনে নিন বিভিন্ন বইয়ের ঘটনা বা চরিত্র। বাংলা ছবি হয়তো খুব দেখা হয়না তাতে কি ! কিছু ছবিতো শৈশবে দেখেছেন তাতেই হবে।জেনে নিন মুক্তিযুদ্ধের ছবি সম্পর্কে কিছু তথ্য (কোন উপন্যাস অবলম্বনে,পরিচালক কে)। চা স্টলে বা পাড়ার দোকানে যে জনপ্রিয় গানটি বাজছে তা শুনে গুগলে সার্চ দিন এবং জেনে নিন গানটি সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য। রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ দিবসগুলোতে মাইকে বা টিভিতে প্রচারিত গানটি শুনুন এবং এই গানটির যাবতীয় তথ্য নোট করুন ।

ফেসবুক নাই এমন মানুষ পাওয়া কঠিন। বিভিন্ন লেখকের নামে খোলা পেজগুলোতে লাইক দিয়ে রাখবেন। দেখবেন তথ্যের কোন শেষ নাই।
সাহিত্য অংশে ভালো করতে যা করবেন…
 বাজারের একটি গাইড কিনে নিন। ৩০ থেকে ৩৬তম পর্যন্ত প্রশ্নগুলি দেখুন। এরপর অধ্যায় ভিত্তিক বিভিন্ন সময়ে আসা প্রশ্নগুলির সঠিক উত্তর মুখস্থ করুন।
 বাংলা সাহিত্যের যুগবিভাগ সম্পর্কে ধারণা নিন। পত্রিকা ও সাময়িকীগুলো দেখে নিবেন।
 নবম শ্রেণির সাহিত্য পাঠ বইটি কিনে ফেলুন এবং লেখক পরিচিতি অংশটুকু নোট করে ফেলুন।
 যেসব লেখকের রচিত বইগুলো বিসিএস পরীক্ষায় বেশী আসে তাদের জীবনী জানতে উইকিপিডিয়ার সাহায্য নিন । অনেক তথ্যই পরীক্ষায় কাজে দিবে।
 জাতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত সাহিত্যের ক্রোড়পত্রগুলি লক্ষ্য রাখুন। লেখকদের ছদ্মনাম উপাধিগুলো জেনে নিবেন।
 সৌমিত্র শেখরের “টীকাভাষ্য” ও প্রিলির জন্য প্রকাশিত বইটি কিনে ফেলুন। এছাড়া ফেসবুকে বিভিন্ন গ্রুপে বাংলা সাহিত্যের জন্য অনেক বইয়ের পিডিএফ ভার্সন পাওয়া যায়।
 কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স প্রতিমাসে কিনে সাহিত্যের বিভিন্ন পুরস্কার কাকে দেয়া হলো তা নোট করুন। সাথে জেনে নিবেন সেই পুরস্কার কবে থেকে চালু হলো।
 কবিতা,নাটক,গল্প,উপন্যাস-এই বিষয়গুলোতে কোন কবি প্রথম কি লিখেছেন তা নোট করবেন সাথে শেষ কোন গ্রন্থ লিখেছেন তা জেনে নিবেন।

এবার আসি বাংলা ব্যাকরণ অংশে…
 পন্ডিত হওয়ার দরকার নাই। শুধু ৬ষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণির পাঠ্য ব্যাকরণ বইটি দেখুন। বাংলা বর্ণমালা,অক্ষর,উচ্চারন বিধি,বানান নিয়ম, কারক,প্রত্যয়,সন্ধি,সমাস,বচন,পদ,সমার্থক ও বিপরীতার্থক শব্দ,শুদ্ধিকরন,বাগধারা প্রভৃতি। গাইড বইতো আছেই। আর আপনি বিগত বিসিএস বাছাই পরীক্ষার প্রশ্ন দেখলেই একটা ধারণা হয়ে যাবে ।

একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণির বাংলা ব্যাকরণ বইগুলো থেকে বিসিএস সিলেবাস দেখে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো নোট করে ফেলুন । যে অংশটুকু বুঝেন না তা বাংলার শিক্ষার্থীর নিকট থেকে বুঝার চেষ্টা করুন । বেশী কঠিন মনে হলে বাদ দিবেন ।

… …


 সর্বশেষ পরামর্শ-যদি বেশী অলস হন তাহলে ২০১২-২০১৬ নন-ক্যাডার প্রশ্ন ও ২৪ থেকে ৩৬তম বিসিএস প্রশ্নের সমাধানগুলো মুখস্থ করে ফেলুন।এই প্রশ্নগুলিতে যেসব লেখকের নাম পাবেন তাদের নাম খাতায় লিখে পরে এই লেখকদের সম্পর্কে উইকিপিডিয়ার যে তথ্যগুলো পাওয়া যায় তা এক নজর দেখে নিবেন।কাজে দিবে…!
 বিগত প্রিলিমিনারী প্রশ্নগুলি ভালোমত দেখলে বুঝতে পারবেন মোটামুটি ৬০% প্রশ্ন পুনরাবৃত্তি হয়ে আসছে । এরমধ্যে ২০% গাইডবই থেকে কমন কিছু প্রশ্ন হুবউ আসতেছে । তাই পূর্বে আসা প্রশ্নগুলোর প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে ।
 আপনার স্মার্ট ফোনে বাউল জারি লালন পল্লীগীতি গানের একটা কালেকশন রাখুন । গান শুনবেন আর সেই সাথে গানটির তথ্য গুগল থেকে জেনে নিবেন ।
ভালো থাকুন…
Rasel Suman

(raselsuman@yahoo.com)