ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

অনেকের ধারণা পুলিশ অর্থই দূর্নীতিবাজ, ও চাঁদাবাজ । মূলতঃ আমার ধারণা ভেঙ্গেছিল সেদিন , যেদিন দেখলাম মানুষের জান -মালের নিরাপত্তা দিতে কতইনা কষ্ট করছে পুলিশ । শীতের রাতে , প্রখর রৌদ্রে , কিংবা মুষলধারে বৃষ্টির মধ্যে অথবা মহা দূর্যোগে, হরতালে – ধর্মঘটে , একদিকে সরকার আর একদিকে আন্দোলনকারী জনতা , নিজের জীবনের মায়া ত্যাগ করে সারা শরীর মাথা হতে পা অব্দি আঁটসাট করে ঢেকে রাজপথে নেমেছে আমজনতার ঢিল ছোঁড়া দুরত্বে মিছিল ছত্রভংগ করার আর গন জমায়েত – গনসমাবেশ পন্ড করার দায়িত্ব নিয়ে । কাজটা খুব সহজ নয় কিন্তু , ওরাতো আমাদেরই ভাই , যখন তীব্র গন আন্দোলনে সাধারন মানুষের স্পর্শ কাতর অনুভূতির কোল ঘেষে একজন পুলিশ রাস্তায় তার দায়িত্ব পালণ করে , তখন তাদের এক হাতে থাকে আদর্শ আর সহানুভূতি আর অন্য হাতে থাকে বন্দুক সেই সাথে উপরয়ালার হুকুম , রাষ্ট্রিয় সম্পত্তি ও জনস্বার্থ রক্ষার অভিনব কৌশল, যাতে সাপ ও মরে লাঠিও না ভাঙ্গে , তাতে কি হয় ? মাঝে মাঝে লাঠি ভাঙ্গে কিন্তু সাপ মরেনা আবার সাপ ও মরে লাঠি ও ভাঙ্গে , অনেক ক্ষেত্রে অল্প সময়ে সঠিক সিদ্ধান্ত , কখনও ভুল সিদ্ধান্ত ।

দ্রুত আইনগত পদক্ষেপ ,কিংবা আইন বাঁচাতে মান বাঁচাতে অন্যথায় সরকারের মন রাখতে পাবলিককে প্রহৃত করে পুলিশ । মিডিয়ার ক্ষুরধার চোখ ফাঁকি দিয়ে তো যাচ্ছে তাই করা যায় না , চাকরী বাঁচাতে কতনা প্রানান্তকর প্রচেষ্টা তাদের ভাবতে ও কষ্ট হয় আমার । পাহাড় সমান বদনামের বোঝা মাথায় নিয়ে আমার বাংলাদেশের পুলিশ অত্যন্ত অল্প বেতনে সীমাবদ্ধ সূযোগ সুবিধা নিয়ে তাদের দৈন্যন্দিন কাজ করে যাচ্ছে । আমি সত্যিই অবাক হই । তাই দয়া করে আর ভুল চোখে দেখবেন না , পুলিশকে সুশিক্ষিত , প্রশিক্ষিত , পেশাদারী , শক্তিশালী সংগঠন হিসেবে , আত্মমর্যাদাশীল শান্তি বাহিনী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষন করি যাতে দল মত নির্বিশেষে সকল বিতর্কের উর্ধে উঠে পুলিশ তার দায়িত্ব পালন করতে পারে । এবং একটি মান সম্পন্ন বেতন ভাতা নিয়ে সমাজে সম্মান জনক অবস্থানে তার উপর অর্পিত দায়িত্বের সদ্যবহার করতে সক্ষম হয় এই কামনা হোক আমাদের সকলের ।