ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

 

রমজানে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ চরমে। ঈদকে সামনে রেখে রাজধানীর রাজপথে বেড়েছে প্রাইভেট গাড়ি। সংকট গণ পরিবহনেরও। আর ঈদ মৌসুম এলেই রাজধানীতে রিক্সার সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুন হয়ে যায়। সব মিলিয়ে প্রতিদিন অতিরিক্ত দুই-তিন ঘন্টা রাস্তায় সময় অপচয় করতে হয় নগরবাসীর। অন্যদিকে কমলাপুর থেকে বিমানবন্দর স্টেশন বা টঙ্গী ষ্টেশনে ট্রেনে যেতে সাধারণ যাত্রীদের কাঠ খড় পোহাতে হয়। ট্রেনে যাত্রীদের গাদাগাদির কারণে মহিলা যাত্রীরা চরম দুর্ভোগের শিকার হচ্ছেন। নারায়ণগঞ্জ থেকে রাজধানী মুখি যাত্রীরা এখন বাসে চলাচল না করে ট্রেনেই বেশি যাতায়াত করেন। এর প্রধান কারণ যাত্রাবাড়িতে ফ্লাই ওভার নির্মান ও রাস্তার বেহাল দশা। নারায়ণগঞ্জ থেকে ট্রেনে আসতে গাদাগাদি করে আসতে হয়। কিন্তু বাড়েনি ট্রেন বা বগি। সব মিলিয়ে রাজধানীতে চলাচল মানেই দুর্ভোগে শিকার। অতিরিক্ত সময় অপচয়…। বিশ্বের অন্যান্য দেশ গুলো এগিয়ে গেলেও আমরা পরিবহনের দিক দিয়ে এখনো পিছিয়ে…। যানজট নিরসনে উড়াল সেতু নির্মান হচ্ছে। তা দিয়ে যানজট কতটুকু কমবে তা এখন দেখার সময়। মাঝে মধ্যে মহাখালী উড়াল সেতুতেও যানজট লাগে। অন্যদিকে সরকার আর বিরোধী দল এখন ব্যস্ত আগামী নির্বাচনে কিভাবে জেতা যায় তার পরিকল্পনায়। তাই সবাই নিজেদের চরকায় তেল দিচ্ছেন। আসুন সময় অপচয় রোধে আমরাও নিজ চরকায় তেল দেই। নিজেরাই পরিকল্পনা করি কিভাবে এই যানজট থেকে মুক্তি পেতে পারি বা সময় অপচয় কিভাবে রোধ করতে পারি। এক্ষেত্রে ব্লগাররা বিশেষ ভূমিকা রাখতে পারে। নিজ মতামত আর ধারণা দিয়ে বদলে দিতে পারেন পুরো শহরের দৃশ্য।