ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

সকালে দুলাভাই আপেল আনসিলেন । বেশ কিছু দিন আগে ফেসবুকে জানতে পারছিলাম আপেল পঁচে না যেতে এবং উপরের চামড়া ভালো রাখতে আপেলে বিষাক্ত মোমের প্রলেপ দিয়ে দেওয়া হয়। ব্যাপারটা পরীক্ষা করতে চাকু নিয়ে একটা আপেলের উপর টান দিতেই ব্যাপারটা স্পষ্ট হল । চাকুর গায়ে সাদা কিছু দেখতে পেলাম । হাতে নিয়ে দেখি অনেকটা মোমের প্রলেপের মত । আর এই প্রলেপ ধুলেও উঠে না । বুঝাই যায় না আপেলে বিষাক্ত মোমের প্রলেপ দিয়ে দেওয়া হচ্ছে । মানে আমরা আপেল কিনের আপেলের সাথে মোম ও ফ্রী খাচ্ছি । মানুষের এইসব দেখে এখন আর অবাক হই না । প্রায় সব খাদ্যেই এখন বিষ মিশানো হচ্ছে । আর আমরা ও নিরুপায় হয়ে খাচ্ছি ।

এইসব আপেলে যখন মোমের প্রলেপ দেওয়া হয় তখন প্রশাসন কি এইসব দেখে না? নাকি এইসব জেনেও চুপ করে থাকে । ফেসবুক সহ অনেক সোশ্যাল গনমাধ্যমে এইসব খবর অনেক এসেছে । এইসব দেখার পরও কি এইসব আপেল পরীক্ষা করা হয় না ? অনেক সময় পেপারএ দেখি অনেক মন আম ফরমালিন দেওয়ায় নষ্ট করে দেওয়া হয় । তারপরও বাজার থেকে ফরমালিন ছাড়া আম পাওয়া যায় না ।

ধরলাম এইসব মোমের প্রলেপ দেশে দেওয়া হয় নাই । তাহলে বাইরে থেকে বিষাক্ত খাবার আসে কিভাবে ? একটা দুইটা থাকতে পারে তাও মানলাম কিন্তু সব আপেলে কিভাবে থাকে এইসব বিষাক্ত মোমের প্রলেপ?

প্রায় প্রতিটা খাদ্যে এখন বিষ মিশানো হয় আর প্রশাসন, বিএসটিআই এই ব্যাপারে নিরব । আর এইসব ব্যাবসায়ী গুলার কোন ইথিকস নেই বললেই চলে । কিছু বেশি মুনাফার আশায় আমাদের মত সাধারণ মানুষদের প্রতিনিয়ত মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে ।