ক্যাটেগরিঃ নাগরিক সমস্যা

 

আজ থেকে ঠিক ১৬ দিন আগে ৫ জুলাই খুলনা থেকে বগুড়া যাচ্ছিলাম, গাড়িতে টিকেট বুকিং দেয়াও ছিল, কিন্তু গাড়ি ছাড়ার ঠিক ১ ঘণ্টা আগে জানতে পেলাম গাড়ি যাবে না । কি আর করার বগুড়া যেতে হবেই কারন পরের ২ দিন হরতাল, তাই ভেঙ্গে ভেঙ্গে যাব বলে সিদ্ধান্ত নিলাম, প্রথমে খুলনা সোনাডাঙ্গা বাসস্ট্যান্ড থেকে দুপুর দুইটাই কুষ্টিয়ার উদ্দেশ্যে গড়াই নামক গাড়িতে উঠলাম, গাড়ির কনট্রাক্টর বলল ৬ টায় কুষ্টিয়া পৌঁছব ।

গাড়ি চলে, গাড়ি চলে…………ঠিক সময়ে যশোর পার হলাম কিন্তু বিপদ হোল কালিগঞ্জ পৌছার পর, গাড়ি চলতে চলতে হঠাৎ থেমে গেল, জানালা দিয়ে মাথা বের করে বোঝার চেষ্টা করলাম সমস্যা কি ? শুনতে পেলাম সামনে অ্যাক্সিডেন্ট হইছে । কতক্ষণ লাগবে বলল ১ ঘণ্টার বেশি, তার মানে কুষ্টিয়ায় পৌছাব ৭ টায় । আর বগুড়া যাওয়া অনিশ্চিত । গাড়িতে আধা ঘণ্টা বসে থেকে দেখলাম কোন উন্নতি নাই, তাই গাড়ির নিচে নামলাম । দেখলাম একটা বিআরটিসি দাড়িয়ে আছে, আর সেটা যাবে বগুড়া, শুনে একটা আনন্দের স্রোত আমার মাঝে বোয়ে গেল কিন্তু পরক্ষণেই কষ্ট পেলাম যখন জানলাম কোন সিট খালি নাই । কিন্তু তারা আমাকে আশার বানি শোনাল যে, কুষ্টিয়া পৌছার পর সিট ফাঁকা হবে । বেশ তাহলে কুষ্টিয়া থেকেই উঠবো । সুপারভাইজারের মোবাইল নাম্বার নিয়ে গড়াই গাড়িতে উঠলাম এবং গাড়ি ছাড়ল । শুনেছিলাম গড়াই সময় সচেতন, কিন্তু যানজটের কারনে তারা ঝোপ বুঝে কোপ মারল, যেখানে সেখানে দেরি করল এবং আমাকে ৭ টা ১৫ মিনিটে কুষ্টিয়া মজমপুরে নেমে দিল ।

বিআরটিসি তে ফোন দিলাম, আমাকে বলল আসেন আমরা কাউন্টারে আছি, কিন্তু সে আমাকে এ কথা বলেই চলে গেল, যা বুঝতে পেলাম পৌঁছার পর । মাথা কাজ করল না, এখন কি করব । গেলাম ঢাকা কাউন্টারে, তারা বলল গাড়ি ১০ টায় কিন্তু ঢাকার টিকেট কাটতে হবে । কিন্তু ১০ টা বাজতে অনেক দেরি……কুষ্টিয়া শহর ঘুরে দেখলাম । পরে ১০ টার গাড়িতে উঠলাম, কিন্তু উঠার পরেই গাড়ির চাকা পাংচার । মানে কপাল খারাপ হলে যা হয় । অবশেষে ১১ টায় গাড়ি ছাড়ল এবং সিরাজগঞ্জ পৌঁছালাম ১ টা ১৫ মিনিটে । একটা হোটেলে নামলাম, দেখলাম বগুড়াগামী অনেক গাড়ি আছে কিন্তু কোন গাড়ি আমাকে নিবে না । কারন তাদের সামনে চেকার আছে, অনেক বোঝানোর চেষ্টা করলাম যে আমি কত বড় বিপদে পরছি, কিন্তু কেউ বুঝল না ।

শুধু পা ধরা বাদ দিয়ে যেভাবে সম্ভব সে ভাবে অনুরোধ করছি কিন্তু কোন কাজ হোল না । অবশেষে একটা গাড়িতে না বলে উঠলাম । অর্ধেক পথ যাওয়ার পর বললাম এবং সুপারভাইজার বুঝল এবং অবশেষে বগুড়া পৌঁছালাম রাত ৩ টা ৩০ মিনিটে…………