ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

গতকাল বুধবার ভূমি অফিসে গিয়েছিলাম একটি ফরম সংগ্রহের জন্য। ফরমটি ১ পৃষ্ঠার সাদামাটা একটি কম্পিউটার কপি। যা ভূমি অফিস বিনামূল্যে বিতরণ করে থাকে। অফিসে প্রবেশ করে দেখলাম সহকারী কমিশনার ভূমি (এসি ল্যান্ড) সাহেব ছুটিতে আছেন। অফিস কর্মচারীরা রিলাক্স সময় কাটাচ্ছেন। একটি কক্ষে ২ জন বসে আছেন। তাদেরকে আমার প্রয়োজনের কথা জানালাম। তারা আমাকে ওই কক্ষে চেয়ারে হেলান দিয়ে বসে থাকা স্বাস্থ্যবান একজনকে দেখিয়ে দিলেন। তিনি অফিসের একজন পিয়ন। নাম তার মাসুদ। তার কাছে গিয়ে সালাম দিয়ে বিনয়ের সাথে আমার প্রয়োজনের কথা বললাম। তিনি অনেকক্ষণ চুপ থেকে বললেন, ফরমগুলো আমার বাসায় আছে। আপনি অন্য একদিন আসেন। আমি বললাম, কবে আসব? তিনি বললেন, ২/৩ দিন পর আসেন। আমি বললাম, আগামীকাল আসি? অনেকক্ষণ পরে তিনি জবাব দিলেন, আপনি অপেক্ষা করুন, দেখি কম্পিউটার থেকে ওটি বের করা যায় কিনা।
আমি অপেক্ষা করতে থাকলাম। প্রায় আধাঘন্টা অপেক্ষার পর মাসুদ সাহেব আমার কাছে এসে পকেট থেকে ভাঁজ করা একটি পুরাতন কাগজ বের করে দিয়ে বললেন, কম্পিউটার থেকে বের করে নিয়ে আসলাম তো, তাই দেরি হলো। যাই হোক আপনি কম্পিউটারের প্রিন্ট খরচ বাবদ ২’শত টাকা দিন। আমি বললাম, এটি ফটোকপি করতে তো ২ টাকা লাগে? আপনি ২’শ টাকা দাবি করছেন কেন? তিনি উত্তর দিলেন, আমাদের অফিসের কম্পিউটার প্রিন্টারে প্রিন্ট করতে খরচ বেশি হয় তাই।

এর কিছুদিন পূর্বে, এসি ল্যান্ড স্যারের কাছে আমি আমার জমির সমস্যার কথা বললে, তিনি আমাকে কোন দালালের খপ্পরে না পড়ে সরাসরি অফিসের গিয়ে কাজটি করতে বলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, দালালের হাতে পড়লে আপনার পকেট কেটে সাবাড় করে দিবে। কিন্ত হায়! কেবল তো শুরু…!