ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

প্রতিদিন কেবল একটা কথাই আমার মাথায় ঘুরপাক খায়।আমরা আসলে কোথায় যাচ্ছি?এই চলার উদ্দেশ্য কি ?এর শেষ কোথায়?আমিতো ভেবেছিলাম-ঘর থেকে মেয়েরা বাইরে বের হচ্ছে,আধুনিক রাস্তা হচ্ছে,হচ্ছে আধুনিক সব ইমারত যেখানে নিশ্চিন্তে হেসে খেলে মানুষ হাতে হাত ধরে পাশাপাশি কাজ করবে।

প্রাগৈতিহাসিক যুগে নাকি মানুষের দেহে কোন কাপড় থাকতো না,তারা কি একজন আর একজনের রক্ত চুষে খেত নাকি?আমিতো জানি -ক্ষুধা পেলে তারা ফল ছিড়তো গাছ থেকে,মাছ মাংস পুড়িয়ে খেত।এমন জ্যান্ত রক্ত চোষার গল্পতো আমি জীবনেও কোন ইতিহাসের পাতায় পড়িনি।তাহলে কি আমিই ভুল পড়লাম এতো দিন?তাদের কোন সমাজ ছিল না ,নিয়ম ছিল না,ছিল না ধর্মের কোন বাড়াবাড়ি।নেহাতই একখানা জীব হিসেবে নিতান্ত জীবন যাপনে অভ্যস্থ ছিল তারা।

আমরা এখন গোটা গোটা ইংরেজীতে লেখা মোটা মোটা পুস্তক আউড়াচ্ছি,অনর্গল শুদ্ধ বাংলা বলছি আর কি নিদারূন ভাবে পশুর মতোন ব্যবহার করছি।ডিজিটাল দেশ আমাদের ক্রমশ ডিজিটাল বানিয়ে ফেলেছে।হাতের মুঠোয় ইউটিউব,সেখানে কতো রকম ভিডিও ।কম্পিউটারে হাত রেখেই বুঝতে পারলাম আমার জায়গায় যে ছিল সে রীতিমতন  পর্ন ছবি এঞ্জয় করতো তার অফিস ডেস্কে বসেই।সাইটের লিঙ্কো তেমনি আছে-“গোপনে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষন ভিডিও”।আমি জানিনা, এইসমস্ত লিঙ্ক তার কোন কাজে আসতো ,অফিসের কোন ডকুমেন্টের আন্ডারেতো পড়েই না।হয়তো তার নিজস্ব যৌন নিবারনের কোন কাজে আস্তে পারে।আমার ঠিক জানা নাই।কিন্তু প্রশ্ন সেখানে না,যারা ভিডিও গুলো করে তারা নিতান্তই ছাত্র ছাড়া বেশি কিছু না।তাদের পরিবার আছে,মা আছে -বাবা আছে।

এইসব দেখা মাত্র আমার নিজের প্রচন্ড ভয় লাগে।মনে হয় আমার ১৪ বছরের ছেলে তাহলে কি করছে?একজন এল এল বি পাশ করা ছেলে যখন এমন বিক্রিত ছবি দেখে মজা নিতে পারে ,তাহলে একটি অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে কি করবে?মায়েদের পক্ষে সব সময় ছেলে বড় হয়ে গেলে সহজ হয়ে যাওয়া অনেক কঠিন। যা অবলীলায় আমি মেয়ে কে বলতে পারছি তা হয়তো ছেলে কে পারবোনা।কিন্তু আমি প্রতিদিন সাহস করি,অফিস থেকে ফোন দিয়ে জানতে চাই-তুমি কি করছো,তোমার কোন মেয়ে বন্ধু আছে কিনা।তার সাথে তোমার ব্যাবহার কেমন?ছেলে তার উত্তর হ্যাঁ আর না এই দুই শব্দের মধ্যেই আটকে রাখে।আমার ভয় গাঢ় থেকে আর গাঢ় হয়।আমি বুঝিনা আমার আসলে এখানে কি করার আছে।এতো বড় ছেলের পিছে জাসুসী সম্ভব না,আমার সেই সময়ো নেই।

বাসে উঠার পর যখন দেখি ,ছেলেরা অনায়াসে সিগারেটে ফুঁ দিয়ে অবলীলায় তা পায়ের কাছে মাড়িয়ে দিল-ইচ্ছে করে জোরে একটা চড় মাড়ি।কিন্তু আমার খুব ভয় করে,আমি আজকাল প্রতিবাদ করতেও ভয় পাই।কারন আমি জানিনা-আমার আড়ালে আমার ছেলে সন্তান কি করছে।আমরা কি ছেলেদেরকে মানুষ বানাতে পারছিনা ।কিজানি ,এই প্রশ্নটা আমার একার কিনা?

যারা ধর্ষনের মতোন অপরাধ করে ,আবার নিরুত্তাপ ঘুরে বেড়ায়,মেয়েদের লাঞ্চিত করে-তারাতো কোন মায়েরি সন্তান।

তাহলে আমার ছেলের পাপের দায়ভার কি আমার ?আমি কি তাকে সঠিক পথ দেখাতে পারছিনা??