ক্যাটেগরিঃ প্রশাসনিক

আমাদের দেশে এখন এমন কোন ভিবাগ নেই সেটা সরকারী বা বেসরকারীই হোক যাতে দূর্নীতি এখনো স্পর্শ করেনি। আপনি সকাল থেকে শুরু করে রাত্রে ঘুমে যাওয়ার আগ মূহুর্ত প্রযন্ত যেখানে যে কাজই করতে যাবেন শুনবেন কিছু নীতির কথা কিন্তু টাকার খাম না দিলে ভাই অফিসিয়াল প্রছেসে আসতে হবে আর যদি আপনি ঐ নিয়মে আসেন তা হলে কাজ করাতো দূরের কথা হয়রানির শিকার হতে হতে জীবন শেষ।

আমার জীবন থেকে দু-একটি উদাহরন দিচ্ছিঃ

১। আমি রাত ১টার দিকে বাস থেকে নেমে গুলিস্থান থেকে রিক্সায় করে বাসায় যাচ্ছি। পথে আমার নিরাপত্তায় নিয়োজিত পুলিশ আমাকে থামাল। কিন্তু মজার বিষয় হলো তারা কিছু খুঁজে না পেয়ে আমার চোখের সামনে নিজের পকেট থেকে একটা কাগজের পোটলা বের করে বলল, চা-পানি খরচ কিছু দেন। না হলে আপনার কাছে গাজা পাওয়া গেছে বলে কেস দিয়ে দিব। আমি মনে করলাম, যাক পুলিশ হলেও লোকটা মনে হয় ভদ্র শুধু চা-পানির টাকা চাইলো। আমি কোন কথা না বাড়িয়ে ৫০ টাকা দিলাম ওরা নিয়ে চলে গেল।

২। আমি একটা বিদ্যুৎ অফিসে গেলাম। এই কিছুদিন আগে নতুন লাইন নেব বলে। প্রথমে অভিযোগ কেন্দ্র। তারপর জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার। তার কথা স্পিড মানি লাগবে ২৫০০০ টাকা। আর তার কিনে দিবেন আপনি। মিটার কিনে দিবেন। আমার লোক কালকে আপনার লাইন লাগিয়ে দিবে। আর টাকা না দিলে এপ্লিকেশন, তারপর জুনিয়র ইঞ্জিনিয়ার এর সাইন, এরপর হেড অফিসে যাবে ফাইল। সেখান থেকে সাইন হয়ে আসলে পরে লাইন। তবে সেটা এই জীবনে হবে কিনা সন্দেহ। তার কথা শুনে আমার মনে পড়ল মন্ত্রীজির কথা। তিনি তো স্পিড মানির লাইসেন্স দিয়েই দিয়েছেন।

৩। এটা আমার না আমার এক বন্ধুর কথা। ও একটা বেসরকারি ব্যাংকে গেছে লোনের জন্য। লোনও পেয়েছে কিন্তু দায়িত্বরত অফিসারকে দিতে হয়েছে লোনের ২%।

তা হলে আমরা কোন দেশে আছি? কোথায় আছি? আমরা কি ঘুষ দিচ্ছি না স্পিড মানি?  আসলে আমার কাছে মনে হয় আমরাও এখন বদলে যাচ্ছি। আর তাই দুর্নীতিই এখন মূল নীতিতে পরিনত হচ্ছে।