ক্যাটেগরিঃ আর্ত মানবতা

আমরা কি পারিনা আমাদের সামান্য কিছু দিয়ে সম্মিলিত ভাবে পথশিশুর জন্য কিছু করার? একটা প্লাটফর্মে এসে দেশের ও প্রবাসের সবাই কি আমরা পারিনা সেইসব খেটে খাওয়া ছেলে মেয়েদের জন্য কিছু করার? অন্তত ঈদের দিনে ওদের মুখে হাসি ফুটুক এটা কি আমরা চাইনা? ওরা যদি খুশী হয়, তবেই তো ঈদের দিনের আনন্দের সার্থকতা। তাই না?

একটা অনুরোধ সবার কাছে , আসেন না এদের পাশে দাঁড়াই ,ঈদের আনন্দ টা ভাগ করি!

ভিক্ষা চাওয়ার জন্য হাত পাতা লাগে কিন্তু সেই পাতার মত হাত এই ছোট মাসুম বাচ্চার নাই ,আচ্ছা তাহলে এই বাচ্চাটা সারাজীবন এই গ্লানি নিয়ে বেঁচে থাকবে ? আমরা কত স্বপ্ন দেখি ,আমাদের প্রিয় মানুষদের হাত ধরতে আমরা ব্যাকুল থাকি অথচ এই বাচ্চাটা কখনো তা পারবে না। কিন্তু আমাদের কী কিছুই করার নাই ,আজ যদি আপনার এমন হত তাহলে আপনি কি করতেন ,একটু চোখ বন্ধ করে ভাবেন দেখেন নিজেকে কত অথর্ব আর অসহায় মনে হবে । আল্লাহ আপনাকে যা কিছু দিয়েছেন, যা কিছু – সবই তার দয়া । আপনার যে আপনি, এই যে সত্ত্বাটা তাকে দেখে করুণা করছেন, সেই সত্ত্বাটাও তো অন্য দেহে আটকা পড়তে পারতো। কাউকে কিছু কি বলার ছিল? কিছু কি করার ছিল? গিয়ে দেখুন ঐ বাচ্চাটা হয়ত নিজের ভাগ্যকে দোষ দিচ্ছে, অথচ সে কি ভেবে দেখেছে তার কথা এই পৃথিবীর কেউই বোঝেনা, নিজে থেকে সে কিছুই করতে পারেনা, হাত ও পাততে পারে না! আপনিও তো অমন হতে পারতেন, পারতেন না? ব্যাপারটা কি এমন যে, জন্মের আগে স্রষ্টাকে কিছু ঘুষ দিলে হাত-পা-মাথা সব ঠিক-ঠাক পাওয়া যায় আর না দিলে ভাগে কম পায়? না ভাই তিনি কিছুর মুখাপেক্ষী নন।

প্রিয় ভাই ও বোন, আসসালামু আলাইকুম। আচ্ছা বলেন তো আপনি যদি আজকে মালিবাগ বস্তিতে জন্মগ্রহণ করতেন তাহলে কি আপনি আমার এই নোটটা পড়তে পারতেন , পারতেন না। আপনি আজ যে অবস্থায় আছেন তার কোনটাই হয়ত পেতেন না ।আজ আপনি বাংলাদেশের সেরা প্রতিষ্ঠানে পড়ছেন , কত আরাম করে দিনাতিপাত করছেন। আপনি সপ্তাহে ১ বার স্টার কাবাব আর কেএফসি’তে খেয়ে অভ্যস্ত, তাছাড়া আপনি যে মোবাইলে ৫০০+ টাকা খরচ করেন মাসে সেটাও সত্য ।এই ঈদে আপনি হয়ত প্ল্যান করেছেন বেশ কেনাকাটা করবেন । ৬-১০ হাজার টাকার বাজেট ও তৈরী করেছেন । ভয় পাবেন না আমি আপনাকে এগুলা কোন কিছুই করতে মানা করতেছি না । আমি আপনাকে ঈদে কেনাকাটা করতে মানা করতেছি না । খালি এতটুকু চাইব যদি আপনার ছোট ভাই বা বোন যদি ঈদে নতুন কাপড় না পায় তাহলে কী আপনি আনন্দে ঈদ করতে পারবেন? পারবেন না। কেএফসি বা স্টারে গেলে আপনার ১০০০ টাকার নোটটা অনেক ছোট মনে হয়। এখন ও একটু তেমন ছোট মনে করেন ।

আমরা এই ছোট বাচ্চা যারা ঈদে নতুন কাপড় কিনতে পারে না তাদের জন্য কিছু করতে চাই ঈদের আনন্দ তাদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে চাই । জীবনে তো কত টাকা কত ভাবে খরচ করলেন আর একটা ভাল কাজের জন্য 100/200 টাকা খুব বেশি কিছু না। আজকে 100/200 টাকা আমরা কতভাবে খরচ করি তাই এই টাকাটা দিলে আপনার খুব একটা ক্ষতি হবে না । আর এতটুকু বলতে পারি আপনি এই ১০০ টাকা দিলে যে আনন্দ আর শান্তি পাবেন তা ১,০০,০০০ টাকা ভোগ করেও পাবেন না । একটু ভেবে দেখেন আপনার দেয়া টাকায় একজন ঈদের দিন নতুন কাপড় পাচ্ছে ,সেই আনন্দ কি কোটি টাকা দিয়ে কেনা যাবে ?

তাই আসুন আমাদের হাতের কাছে যেই বাচ্ছাতাই আছে, হয়তোবা কাজের বুয়ার বাচ্চা , হয়ত বা কোন দূর সম্পর্কের আত্মীয়র গরিব বাচ্চাটিকে কিছু কিনে দেই…১০০০ টাকাও লাগবে না যদি তার চেয়ে কম দামি কাপড় কিনে দেই…পারলে কিছু টাকা দিয়ে তাকে সাহায্য করি…আল্লাহ্‌ আমাদের তাদের সাথে থাকার তৌফিক দান করুক…আমিন…।

আপাতত সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের জন্য কিসু ঈদ এর কাপড় দেবার চিন্তা করতেছি আমরা। সবধরনের সহযোগিতা প্রয়োজন, সাথে আছেন কী ? সেই আশা নিয়েই আমি প্রতিষ্ঠা করেছি “আহবান” .। এখন চাই আপনাদের ও সাহায্য আপনাদের ও অংশগ্রহণ.। আপনিও আসুন আমাদের সাথে.।আপনিও হতে পারবেন এ সোসাল অর্গানাইজেশন এর এক জন সক্রিয় সদস্য।

আমাদের সাহায্য করতে অথবা “ahoban” এ যোগ দিতে যোগাযোগ করুন ফেসবুক এর এই গ্রুপ এ ..ক্লিক করুন গ্রুপ এ রিকোয়েস্ট পাঠান। আপনার সাথে যোগাযোগ করা হবে অথবা ইমেইল এ যোগাযোগ করুন [ ahobhan@ymail.com]।

ধন্যবাদ