ক্যাটেগরিঃ স্বাস্থ্য

মানুষের শরীর এমন কতগুলো হরমোন স্বাভাবিক প্রক্রিয়ায় নিঃসরণ ঘটায় যা ব্যথা-বেদনা, দুশ্চিন্তা, মানসিক চাপ ইত্যাদি সহ্য করতে সাহায্য করে। কিন্তু এসব হঠাৎ করে বেড়ে গেলে মানুষ হতাশ হয়ে মাদকদ্রব্য সেবন শুরু করতে পারে। বেশিরভাগ মাদক সেবন ডিপ্রেশন থেকেই বেশি হয়, আর তখন এসব মাদক শরীরের ফ্রি-রেডিকেল বাড়ানোর মাধ্যমে হরমোন নিঃসরণ বাড়িয়ে দিয়ে সাময়িকভাবে মানসিক চাপ থেকে মুক্ত করে। কিন্তু তখন শরীর তার সাধারণ হরমোন নিঃসরণ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়। কারণ সে ভাবে বাইরে থেকে তো নিয়মিত ওষুধ পাওয়ায় যাচ্ছে। তাই এসময় হটাৎ করে মাদকসেবন বন্ধ করলে বেশ কিছুদিন অসহ্য মনে হয় কারণ শরীর তার নিজস্ব ব্যবস্থা চালু করতে কিছু দিন সময় নেয়। একে বলা হয় ‘উইথড্রয়াল সিনড্রম’। আর এই জন্যই মানুষ হঠাৎ করে মাদক সেবন ছাড়তে পারে না।

এবার সমাধানে আসা যাকঃ প্রথমেই বলাবাহুল্য, এটা একবারে ছেড়ে দেওয়া অনেকটা কষ্টসাধ্য তাই ধীরে ধীরে কমানোর মাধ্যমে ছাড়তে হবে। এই সময়টাতে মাদকাসক্তির প্রভাব কমানোর জন্য বিকল্প কোন ওষুধ নেওয়া যেতে পারে। পাশাপাশি পরিবার, সমাজ, বন্ধু মহলে স্বাভাবিক ও সহানুভূতিশীল ব্যবহার খুবই গুরুত্বপূর্ণ। অপরদিকে মাদকসেবনের ফলে শরীরে ফ্রি-রেডিকেল বেড়ে যাওয়ায় তা শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের কোষের ক্ষতি করে, আর তা প্রতিরোধের জন্য প্রচুর ‘অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট’ দরকার। তাই প্রচুর পরিমাণে তাজা ফল ও সবজি খাওয়া প্রয়োজন; এক্ষেত্রে লাল চাল ও লাল আটা বিশেষ ফল দেয়। পাশাপাশি দরকার নিয়মিত ব্যায়াম ও শরীরচর্চা যা মস্তিষ্ক থেকে ‘এনডরফিনস’ এর নিঃসরণ ঘটিয়ে শরীরকে স্বাভাবিক করতে তরান্বিত করে। এভাবেই ধীরে ধীরে মাদকাসক্তি থেকে বের হয়ে আসা সম্ভব।