ক্যাটেগরিঃ প্রযুক্তি কথা

 

প্রায় সময় অন্তর্জালের জগতে ঘুরতে ঘুরতে যেখানেই বাংলার কোন লিংক দেখি সেখানেই একটু নজর বুলানো যেন একটি অভ্যাসে পরিনত হয়েছে।

আর এটাকে অভ্যাসের দোষ দিয়েই বা লাভ কি,যুগটাই যে এখন ডিজিটাল বা ইন্টারনেটের। আমি আজ প্রায় তিন বছর যাবৎ নিয়মিত ইন্টারনেট ব্যাবহার করছি আর এরই মধ্যে ঘুরতে ঘুরতে প্রতিদিনই নতুন কোন না কোন প্লাটফর্ম চোখে পড়ছে যা নতুন জানা এবং শিখার আনন্দে শিহরিত করে নিজেকে। এমন অনেক কিছুই এখন আমি জানি বা বুজতে শিখেছি যা গত তিন বছর আগেও আমি কল্পনা করতে পারি নাই। আর ঠিক একই রকমভাবে আরো নতুন অনেকে এর সাথে প্রতিনিয়ত যোগ দিচ্ছে আর এর সংখ্যা দিনকে দিন বেড়েই চলেছে এটা বলার অপেক্ষা রাখে না।

এই কিছুদিন পুর্বে আমাদের দেশের অনেক মানুষ প্রবাস থেকে ছুটি কিংবা বাড়িতে ফেরার আগে দেশে থাকা স্কুল/কলেজে পড়ুয়া সন্তান,ছোট ভাই কিংবা আত্মীয় স্বজনদের কাছে তাদের চাহিদার কথা জানতে চাইলে অনায়াসে একটি ভাল মডেলের মোবাইল সেটের আব্দার জানাতো কিন্তু এখন সেই ছেলেটির কাছে সেই আব্দারটি আপগ্রেড হয়ে ল্যাপটপে পৌছে গেছে। আর লক্ষ্য করলে দেখতে পাবেন দিনকে দিন ইন্টারনেট ব্যাবহারকারী দেশে বিদেশে বেরেই চলেছ। এবং তা খুব স্বল্প সময়েই মোবাইল ব্যাবহারের মত সহজলভ্য হওয়ার সরকারী বেসরকারী আশ্বাস শুনা যাচ্ছে জোরেশেরই।

এরই মধ্যে এই অন্তর্জালের কমিউনিকেশনে মধ্যপ্রচ্যে কয়েকটি গন আন্দোলন জানিয়ে দিয়েছে এর বিপুল শক্তির সম্ভবনার কথা। ইন্টারনেট হতে প্রপ্ত তথ্য অনুযায়ী এই ধারাবাহিকতায় যে কোন দেশের সরকার আন্তর্জালিয় গন আন্দোলনের হাত হতে বাচতে ইন্টারনেট কমিউনিটির প্রতিটি ক্ষেত্রেই রাখছে কড়া নজরদারি। সাথে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং ব্লগ গুলিতে সরকারী সমালোচনা-পরামর্শ গুলি হতে অনেক গুরুত্ব পুর্ন তথ্য এবং জনগনের আশা আকাংখা অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হওয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। অনেক দেশে বেশ কিছু ক্ষেত্রে এমন অনেক ঘটনার কথা একটু অন্তর্জালের দুনিয়ায় খোজ নিলেই পাওয়া যাবে।

শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টা থেকে রাত্র সারে ৮ টা পর্যন্ত সুপ্রিম কোর্টের ওয়েব সাইটটি হ্যাক করা হয়েছে- এমন দাবি সম্বলিত বার্তা দেখা যায় ।বার্তাটিতে যা লেখা ছিল তার অর্থ অনেকভাবেই ব্যখ্যা করা যায় এবং এই বার্তাটি কারা কিংবা কেনো করেছে এ বিষয় নিয়েও অনেকের উপরই সন্দেহের তির ছোরা যেতে পারে। কিন্তু বার্তাটিতে আমার কাছে একটি বিষয় বা হ্যাকারদের পক্ষ হতে যা বলা হয়েছে তা থেকে একটি সত্য উপলদ্ধি করায় দ্বিমত হওয়ার কোন অবকাশ আছে বলে মনে হয় না। যেমন-

গণমাধ্যমকর্মীদের উদ্দেশে ওই পেইজে বলা হয়, "একজন সাংবাদিক, লেখক এবং একজন মিডিয়া ব্যক্তিত্ব হিসাবে দেশের প্রতি তোমাদের আরো অনেক দায়িত্ব রয়েছে। তোমরা যাই লেখ না কেন, জনগণ তোমাদেরকে বিশ্বাস করে, আস্থা রাখে এবং অনুসরণ করে। যা কিছুই তোমরা উপস্থাপন করো না কেন, তাকে সত্য হিসেবে মেনে নেয়। কলম এবং ক্যামেরার সাহায্যে তোমরা এমন কিছু করো, যা সাধারণ বাংলাদেশিরা করতে পারে না। (A message to the people connected with Press: As a journalist, as a writer, as a media person You have more responsibility towards Bangladesh, People trust you, believe in you and follow you, what ever you write, what ever you show is taken as a truth, with the power of Pen and cameras you can do what a normal Bangladeshi can't do ..)"

"সুতরাং আমরা তোমাদেরকে অনুরোধ করছি, অপশক্তি নিয়ন্ত্রণ নেওয়ার পূর্বেই তোমরা বাংলাদেশকে রক্ষা করো। সৎ হও, জনগনকে বিভ্রান্ত করো না। (so we request you, save this Bangladesh before Evil powers take the control of it .. Be honest .. don't mislead people ...)"

এই মেসেজটি বা হ্যকিংয়ের সাথে যারা যুক্ত তারা ভাল মানের এবং অত্যান্ত মেধাবী আইটি স্পেশালিষ্ট এ ব্যাপারে সন্দেহ নেই। আর এই মেধাবী হ্যাকাররা যদি আমার বাংলাদেশের সন্তান হয়ে থাকে তারা সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইট হ্যাক করে (সাইবার ক্রাইম) অপরাধ করে থাকলেও আমি ব্যাক্তিগত ভাবে তাদের নিয়ে গর্ববোধ করছি। এরকম মেধাবী আইটি স্পেশালিষ্টদের যথাযথ সহযোগিতা এবং মুল্যায়ন করা হলে তারা আমাদের দেশের জন্য অনেক ভালো ভালো সফটওয়্যার তৈরি করে রাখতে পারে দেশ বিদেশে বিশাল অবদান।

উপরে উল্লেখিত মেসেজটিতে ভাল করে লক্ষ্য করলে দেখা যায়,খুব সুকৌশলে তারা দেশের প্রতি ভালবাসা এবং আইটি শক্তি দ্বারা দেশের সাধারন জনগনের কল্যানে তারা কিছু করার আগ্রহের সংশ্লিষ্টতা এরিয়ে গেছে কিন্তু এ ব্যাপারে তাদের শক্তি/সামর্থের আকাংখার যথার্থ প্রমান দিতে সক্ষম হয়েছে খুব চতুরতার সাথেই।

আর তাই এখন সময়টি যেমন প্রযুক্তির ঠিক সামনের দিনে সেই তথাকথিত রাজনিতির বেড়াজাল থেকে বের হয়ে দেশের গুরুত্বপুর্ন সিদ্ধান্ত নিতে এই ডিজিটাল জগতের বাসিন্দারা হবে নিতি নির্ধারক এটা বলা খুব একটা ভুল হবে কি ?

যদি ভুল না হয় তবে এই জগতের সুবিধা কিন্তু দেশ বিরোধী চক্রও নিবে খুব শক্ত আটঘাট বেধেই। তবে আমার বিশ্বাস এখানেও আমরা দেশবিরোধী সকল চক্রন্ত ছিন্ন করে নিজেদের বিজয়ী হিসাবে প্রমান করতে পারবো এই নতুন অন্তর্জালিয় যুদ্ধে।

কেননা আমরা দেশকে ভালবাসি নিজের মায়ের মত আর তাই সন্তান কখোনো মায়ের চোখে পানি দেখতে চায় না,তা যে কোন মূল্য দিয়েই হোকনা কেনো।

ছবি- বিডি নিউজ ২৪ ডট কম