ক্যাটেগরিঃ ব্লগালোচনা

২০০৫ সালের ডিসেম্বর মাসে বাংলা কমিউনিটি ব্লগের যাত্রা শুরু। এ অবদান এবং ঐতিহাসিকপ্রেক্ষিতকে সামনে রেখে ২০০৯ সালের ১৯ ডিসেম্বর প্রথমবার পালিত হয় বাংলা ব্লগ দিবস। ১৯ ডিসেম্বর (সোমবার) ২০১১ইং বিকেল পাচটায় পাবলিক লাইব্রেরিতে তৃতীয় বাংলা ব্লগ দিবস অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। অনুষ্ঠানটিতে অংশগ্রহন করার জন্য একটি নিমন্ত্রন ই-মেইলে পেয়েছি-সামহোয়‌্যার ইন ব্লগ এডমিনের পক্ষ থেকে এবং বিডি ক্লগের নোটিশ বোর্ডের মাধ্যমে। আমন্ত্রনটিকে আমি অত্যান্ত গুরুত্বের সাথে দেখছি কারন এই ব্লগ সাংস্কৃতি একটি বিপ্লব হয়ে ধরা দেওয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র আর সেই বিপ্লবের একজন সদস্য হিসাবে আমি সহ প্রতিটি ব্লগারের কাছে অত্যান্ত গুরুত্বপুর্ন এতে অংশগ্রহন করা।

খুব ছোট বেলায় যখন কিছুটা বুঝতে শিখেছি,ঠিক তখন থেকেই কিছু কবিতা-গণ্প লিখার একটা প্রবনতা ছিল নিজের মধ্যে। লিখা হত কিন্তু মনের মাঝে আক্ষপ থেকেই যেত লেখাটা যদি প্রকাশ করতে পারতাম বা আরো অনেকে আমার লেখাটুকু পড়তো তা হলেই না লেখাটার সার্থকতা খুজে পাওয়া যেত। কিন্তু বর্তমানে যে ভাবে মুহুর্তের মধ্যে কিছু লিখে অথবা যে কোন বিষয়ের উপর আমার কিছু বলার থাকলে খুব সহজেই ব্লগের মাধ্যমে আমার প্রতিক্রিয়া ব্যাক্ত করতে পারি তখন আনমনে ভাবি আমি যা পেয়েছি যৌবনে আমার সন্তান তা পাবে কৈশরে বা আরো ছোটকালে। তার চিন্তা চেতনা এবং সমাজ নিয়ে ভাবনা কিংবা লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য থাকবে কতটা প্রগতিশিল।

আমি ব্যাক্তিগতভাবে একটি উপলদ্ধির উপর বেশ জোর দিয়েই বলতে চাই,আমার ভাবনার সাথে সবার একমত হতে হবে তা বিশ্বাস করি না। তবে আমার বিশ্বাস বা মতকে তুলে ধরার পর কেউ যদি তা যুক্তিযুক্ত পরামর্শ এবং গঠন মুলক সমালোচনার মাধ্যমে খন্ডন করে আমাকে তার মতের সাথে একমত হতে বাধা কোথায়। প্রতিটি মানুষের চিন্তা চেতনা আর ভাবনার জগৎ একই রকম হবে ভাববার যেমন কোন কারন নেই ঠিক তেমনি সবাইকে আপনার মতের সাথে একমত হতেই হবে এটা ভাবাও কোন সঠিক পথ নয়। একেকটি মানুষ একেকটি ভিন্ন পরিবেশ এবং অর্থনৈতিক-সামাজিক পরিবেশের মধ্য দিয়ে বেড়ে ওঠে। তার বেড়ে ওঠা পরিবেশের কোন ঘাটতির কারনে অনেক সময় তার নিজিস্ব চিন্তা চেতনা ও মনোভাব,আচার-আচরনে প্রস্ফুটিত হয়। ব্লগে লিখা কিংবা কোন লেখার মন্তব্য গুলি দেখলে তাদের ভিন্ন মত আমাদের অনেক সময় হতাশ হতে হয় আবার কখনো করে তুলে ঝগড়াটে যা কখোনোই কাম্য নয়। এ বিষয়ে এক সাক্ষাকারে বাংলা ব্লগিং জগতের নক্ষত্র সামহোয়্যার ইন ব্লগের হেড অব অ্যালিয়েন্স গুলশান ফেরদৌস জানা বলেছেন-

‘ব্লগ সংস্কৃতি’ কোন ভাবেই একে অন্যকে আক্রমণের উদ্দেশ্যে তৈরি বা প্রতিষ্ঠিত নয়; বরং এটি সামাজিক দায়বদ্ধতার বোধ থেকে দ্বিমত বা ভিন্নমত প্রকাশের এবং পারস্পরিক আলোচনা-সমালোচনার একটি গুরুত্বপূর্ণ খোলা মাঠ যেখানে সকলের স্বাধীন বিচরণের অধিকার রয়েছে।

বাংলা ব্লগিংয়ের শক্তি ও সম্ভাবনাকে আরও নিবিড়ভাবে বিস্তৃতি করতে গত দুবছর যাবৎ বাংলা ব্লগ দিবস পালিত হয়ে আসছে। প্রতিনিয়তই জন্ম নিচ্ছে অনেক নতুন নতুন ব্লগ প্লাটফর্মের আর তার সাথে দিনকে দিন বেড়ে চলছে ব্লগারের সংখ্যা। তবে এ পর্যন্ত আমার দেখা ব্লগগুলির মাঝে বেশীরভাগেই একটি বিষয়ের সাদৃশ্য সুনিশ্চিত ভাবেই বলা যায় দেশ প্রেম এবং স্বাধীনতা সার্ভভৌমত্ব আর সরকার এবং বিরোধী রাজনৈতিক দলের কোন ভুল সিদ্ধান্ত এবং যে কোন জাতীয় ইস্যুর সমালোচনায় তারা কখোনো পিছপা হয় না। যদিও ব্যাপারটি ব্লগারদের মাঝ থেকেই উচ্চারিত হয় তবে প্লাটফর্ম তৈরি করে এই মত প্রকাশের স্বাধীনতাটুকু কিন্তু ব্লগ কতৃপক্ষই করে দিচ্ছে। তাই ব্লগ যেমন সবার জন্য উন্মুক্ত ঠিক তেমনি নতুন ব্লগারদের ধরে রাখতে এবং এর তাৎপর্য সর্বোপরি এর সুবিশাল বিস্তৃতির পথে বেশী করে নতুন ব্লগার তৈরি করায় পুরোনো ব্লগারদের পাশাপাশি ব্লগ কতৃপক্ষকে হতে হবে আরো যত্নশীল এবং উদার মনা।

শুভ হোক ব্লগদিবসের সকল আয়োজন,ব্লগ হোক প্রতিটি সচেতন মানুষের প্রানের কথা বলার মুক্ত সবুজ জমিন।