ক্যাটেগরিঃ ব্যক্তিত্ব, হুমায়ূন আহমেদ স্মরণে

হুমায়ন আহমেদ এর মৃত্যুর পর বেশ কষ্ট পেয়েছিলাম ,অনেক বার মনের অজান্তে হাত দুটো কি বোর্ডে চেপে বসলেও কিছুই লিখব না স্থির করে রেখেছিলাম, এত বড মাপের একজন মানুষকে নিয়ে আমার মত মানুষের কোন মন্তব্য করাটা ঠিক হবে ভেবে কোন কিছুই লিখিনি না ব্লগে না ফেস বুকে ,একেবারে দু’লাইনের কোন লেখা ও না ,শুধু মিডিয়ার কল্যানে জেনেছি কখন কি হচ্ছে ,নুহাশ পল্লী বনাম বুদ্ধিজীবী কবরস্থান এর লড়াই যখন চলছিল তখন মনটা এই ভেবে আরও খারাপ হয়েছে যে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন কোন উদ্যোগ নিচ্ছেনা, শেষ পর্যন্ত সব কিছুই ঠিকঠাক শেষ হলো ,গুলতেকিন এর উপস্থিতি সবকিছুকে ছাড়িয়ে গেল.একটা মৃত মানুষের প্রতি আসলে অভিমান করে থাকা যায় না। আজ যখন দেখলাম শাওন আর মাজহার এর বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে তারা নাকি ধন সম্পদের লোভে হুমায়ন আহমেদকে হত্যা করেছে ,হায়রে মানুষ কত বিকৃত তাদের চিন্তা ভাবনা ,এটা কি শুধু মিডিয়া কাভারেজ পাওয়ার জন্য ,শাওন আর মাজহারের বিরুদ্ধে মামলা হলে আমার কোন সমস্যা নাই সমস্যা থাকার ও কথা না ,কিন্তু কান টানলে যে রকম মাথা আসে তেমনি হুমায়ন আহমেদ এর নাম ও তো আসবে ,সবাই পছন্দ করুক আর না করুক শাওন হুমায়ন আহমেদ এর ধর্মমতে বিবাহিত স্ত্রী এবং সন্তানের জননী সুতরাং তার নাম জড়িয়ে কদাকার কথা বলা হুমায়ন আহমেদকে অপমান করার ই নামান্তর,সুতরাং এ ধরনের নোংরা খেলায় কাউকে না জড়ানোর জন্য সনির্বন্ধ অনুরোধ করছি।