ক্যাটেগরিঃ আইন-শৃংখলা

 

কয়েকদিন আগে রাত আনুমানিক আটটার দিকে একটা বেশ ভালো বিপদে পড়েছিলাম মগবাজার মোড়ে। রাত তখন আটটা আমি আর আমার বন্ধু এফডিসি থেকে বাসায় ফিরছিলাম। আড়ং এর সামনে যেতেই আমাদের রিকশার সামনে দুজন দৌড়ে এসে থামল, বলল আপনাদের কে সিগনাল দিলাম দাঁড়ানোর জন্য দাঁড়াননি কেন? অথচ আমরা জানিই না তারা কখন সিগন্যাল দিল। আমরা বললাম আপনারা কারা, বলল র‌্যাবের লোক, শুনেই কলিজা শুকিয়ে গেল। আমি এমনি খুব ভীতু টাইপের ছেলে, আমার কাছে মনে হচ্ছিল তারা ছিনতাইকারী। আমার পিঠে ল্যাপটপ এবং সাথে অনেক গুলো টাকা তার উপর আমার বন্ধুটি করে বিরোধীদলের রাজনীতি। তারপর বললো আপানাদের কাছে অবৈধ কিছু আছে কিনা। আমরা রিকসা থেকে নামলাম তারা সবকিছু চেক করলো। কিছু না পেয়ে আমার ল্যাপটপের ব্যাগ খুলে দেখলো এবং যথারীতি ছেড়ে ও দিলো। আমরা একটু দূরে এসে রিকসা ছেড়ে দিচ্ছি এমন সময় আমি আবার দেখলাম ওরা দৌড়ে আসছে। আমি ভাবলাম ছিনতাইকারী দিলাম দৌড়। এক দৌড়ে পগারপার। আমার মোবাইলে চার্জ না থাকায় ফোন দিয়ে বন্ধুটাকে পেলাম না। পরে শুনলাম অনেক গুলো নাটকীয়তার মধ্য দিয়ে শেষ হলো ঘটনাটা এবং শেষ পর্যন্ত ওরা আমার বন্ধুটির পকেটে থাকা ১৫০০০ টাকা নিয়ে গেলো মামলার ভয় দেখিয়ে। ওদের নাকি মামলা রেডি আছে ধরে নিলেই চালান করে দিতে পারবে। যেভাবে গুম হচ্ছে চারিদিকে ষেখানে ১৫০০০ টাকা দিয়ে বেঁচে আসা তো সৌভাগ্যের ব্যাপার। দেশটা কি এভাবেই চলবে, আসলে ওরা কারা ছিলো – ছিনতাইকারী নাকি র‌্যাব? নাকি ছিনতাইকারী বেশী র‌্যাব?