ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

টানা তৃতীয় দিনের মতো হরতাল চলছে, বিরোধী দলের ডাকা এ হরতালের উদ্দেশ্য হচ্ছে সাবেক ছাএ নেতা ইলিয়াছ আলীর মুক্তি । কিন্তু কে দেবে কাঙ্খিত মুক্তি এখনো কেউ তো দায় স্বীকার ই করেনি কারা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। নানা জনের নানা মত এক পক্ষ বলছেন নিজেদের অভ্যন্তরীন কোন্দলের শিকার হয়ে কিংবা সরকারকে বিব্রত করতে বিএনপি বা ইলিয়াছ নিজেই এ ঘটনা ঘটিয়েছেন আবার অন্য পক্ষ বলছেন সরকার এ ঘটনা ঘটিয়েছে আবার তৃতীয় একটি মত শোনা যাচ্ছে যে সুরনজিত সেন গুপ্ত সরকারের সিদ্ধান্তের বাইরে নিজে এধরনের কাজ র এর সহযোগীতায় করিয়েছেন -আসলে এ সবই হচ্ছে বাজারের প্রচলিত গুজব আসল ঘটনা কি ঘটেছে তা আমরা এখনো জানিনা ,তবে আমার ভয়টা অন্য জায়গায় আমার ভয়ের কারন এ মুহূর্তে জীবিত ইলিয়াছ আলীর চেয়ে মৃত ইলিয়াছ আলীর মুল্য সরকার এবং বিরোধী দল উভয়ের কাছে বেশী কারন ইলিয়াছ আলী জীবিত ফিরে আসলে তার জবানবন্দির উপর নির্ভর করে সরকার কিংবা বিরোধীদল যে কোন একপক্ষ বিব্রত হতে পারেন তাছাড়া ইলিয়াছ আলীর লাশ ও যদি পাওয়া যায় তা নিয়ে দেশে আবার একটা অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে ,তাই উভয় পক্ষই এ মুহূর্তে কি চাইতে পারেন তা মনে হয় কারো অজানা থাকার কথা নয়, তবু আমি চিরকালই আশাবাদীদের দলে সেই আশা থেকে বলছি আর কারো জন্য না হোক পরিবারের জন্য হলেও তার বেঁচে থাকাটা একান্ত দরকার।