ক্যাটেগরিঃ বিবিধ

 

বই জ্ঞানের উৎস । আর বইয়ের উৎস লাইব্রেরী । বিশ্বের বিশাল বিশাল লাইব্রেরীর সাথে বাংলাদেশের লাইব্রেরীগুলোর তুলনা করলে শুধু দু:খের পাল্লাই ভারী হয় । বতর্মান বিশ্বের নেতৃত্বের আসনে প্রতিষ্ঠিত দেশগুলোর মত সমৃদ্ধ লাইব্রেরী এদেশেও গড়ে উঠুক, এটাই কামনা । আসুন তবে, জগদ্বিখ্যাত লাইব্রেরীগুলো সম্পর্কে সংক্ষেপে জেনে নিই:-

আমেরিকান লাইব্রেরী অব কংগ্রেস :

পৃথিবীর সবচেয়ে বড় লাইব্রেরী । সুবিশাল এই লাইব্রেরীর সংগ্রহে আছে সর্বাধিক সংখ্যক বই, রেকর্ডিংস ,মানচিত্র ও পাণ্ডুলিপি । এগুলো সংখ্যায় ৩৩,০১২,৭৫০ টি । এটি ওয়াশিংটন ডিসিতে অবস্থিত এবং আমেরিকার সব থেকে পুরোনো লাইব্রেরী । আমেরিকান লাইব্রেরী অব কংগ্রেস স্থাপিত হয়েছিল ১৮০০ সালে । প্রেসিডেন্ট জন অ্যাডামস যখন সরকারী কার্যাবলী ফিলাডেলফিয়া থেকে ওয়াশিংটন এ স্থানান্তর করেন তখন থেকে এর যাত্রা শুরু ।

ন্যাশনাল লাইব্রেরী অব চায়না :

এটি এশিয়ার সব থেকে বৃহৎ ও বিখ্যাত লাইব্রেরী এবং পৃথিবীতে দ্বিতীয় । এর সংগ্রহে আছে ২৮,৯৮০,৭৭৭ বই । প্রায় ১২,০০০,০০ সাময়িকী এর অন্তর্ভুক্ত । চীনা সাহিত্যের সব থেকে বড় সংগ্রহ আছে এতে । লাইব্রেরীটি স্থাপিত হয় চীনের বেইজিং এ ১৯০৯ সালে । চীনের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের সাথে সম্পর্কিত সব ধরনের বই আছে এতে ।

ন্যাশনাল লাইব্রেরী অব কানাডা :

লাইব্রেরীটি কানাডার কেন্দ্রীয় সরকারের একটি বিভাগ । এই বিভাগ কানাডার ইতিহাস ও সংস্কৃতির সাথে সম্পৃক্ত লেখা , ছবি ও দলিলপত্র সংগ্রহ ও সংরক্ষণের দায়িত্বে নিয়োজিত । এই লাইব্রেরীর সংগ্রহে রয়েছে ২৬,০০৬,০৫৪ টি বই । এটি বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম লাইব্রেরী । কানাডার সব থেকে সুন্দর এই লাইব্রেরীটি কানাডার সরকারী সম্পত্তি ।

ডিউচে বিবলিওথেক:

জার্মানির জাতীয় গ্রন্থাগার । এটি স্থাপিত হয়েছিল ১৯১২ সালে । এটির কাজ মূলত জার্মান ভাষার প্রকাশনা সংগ্রহ করা । তবে জার্মানিতে প্রকাশিত অন্য ভাষার প্রকাশনাও এখানে সংগ্রহ করা হয় । এটি পৃথিবীর বড় লাইব্রেরীগুলোর মধ্যে অন্যতম । এই বিখ্যাত লাইব্রেরীর সংগ্রহে আছে ২৪,৪৮৭,০১০ টি বই ও অন্যান্য প্রকাশনা ।

ব্রিটিশ লাইব্রেরী :

যুক্তরাজ্যের জাতীয় গ্রন্থাগার । স্থাপিত ১৭৫৩ সনে । লন্ডনে অবস্থিত লাইব্রেরীটি পৃথিবীর বিখ্যাত গবেষণা গ্রন্থাগারগুলোর একটি । এতে আছে প্রায় সকল ভাষার বিভিন্ন প্রকারের ১৫,৫০০,০০০ এর বেশি সংগ্রহ । সংগৃহীত বইয়ের সংখ্যা ২৩,৫০০,০০০ টি । প্রতি বছর প্রায় ব্রিটিশ লাইব্রেরীর সংগ্রহশালায় যুক্ত হয় প্রায় ৩০,০০০,০০ নতুন বই ।

হারভার্ড বিশ্ব্ববিদ্যালয় লাইব্রেরী :

এটি একটি লাইব্রেরী সিস্টেম । প্রায় ৯০ টি শাখা সমন্বিত । সর্বমোট বইয়ের সংখ্যা ১৫,০০০,০০০ টি । এটি আমেরিকার সব থেকে পুরোনো লাইব্রেরী সিস্টেম এবং পৃথিবীর প্রাচীন একাডেমিক লাইব্রেরী সিস্টেমগুলোর মধ্যে অন্যতম । এটি পৃথিবীর ষষ্ঠ বৃহত্তম লাইব্রেরী । স্থাপিত ১৬৩৮ সনে ।

রাশিয়ান স্টেট লাইব্রেরী :

মস্কো, রাশিয়ায় অবস্থিত রাশিয়ার জাতীয় গ্রন্থাগার । কার্যক্রম শুরু ১৭৯৫ সালে । এটি রাশিয়ার সব থেকে প্রাচীন , বৃহত্তম ও জনপ্রিয় লাইব্রেরী । এর সংগ্রহে রয়েছে ১৪,৭৫০,০০০ এর বেশি বই ।

নিউইয়র্ক পাবলিক লাইব্রেরী :

পৃথিবীর অন্যতম প্রধান গ্রন্থাগার এবং আমেরিকার বিখ্যাত গবেষণা গ্রন্থাগার । এটি স্থাপিত হয় ১৮৯৫ সালে এবং এর শাখার সংখ্যা ৮৭ টি । এই লাইব্রেরীর সংগ্রহ সংখ্যা ১৪,৬৮৫,১৯২ ।

ন্যাশনাল ডায়েট লাইব্রেরী :

পৃথিবীর বড় ও বিখ্যাত লাইব্রেরীগুলোর একটি । লাইব্রেরীটি অবস্থিত জাপানের টোকিওতে । ১৯৪৮ সালে এটি জন নীতি সংক্রান্ত গবেষণার জন্য স্থাপিত হয় । এতে আছে ১৪,৩০৪,১৩৯ টি বই । জাপান জুড়ে এর ২৭ টি শাখা আছে । বিজ্ঞান ,ধর্ম, রাজনীতি ,আইন ,মানচিত্র ,সংগীতসহ সব ধরনের বই এতে আছে ।

ইয়েল বিশ্ব্ববিদ্যালয় লাইব্রেরী:

হ্যাভেন ,কানেকটিকাট ,আমেরিকায় অবস্থিত ইয়েল বিশ্ব্ববিদ্যালয় লাইব্রেরী সিস্টেম স্থাপিত হয় ১৭০১ সালে । এটি সব থেকে বড় একাডেমিক লাইব্রেরীর অন্যতম । ২২ টি আলাদা লাইব্রেরী র সমননয়ে গঠিত এই লাইব্রেরী সিস্টেমে ১৩,০০০,০০০ সংগ্রহ আছে । সংগ্রহের দিক থেকে এটি শ্রেষ্ঠ লাইব্রেরী গুলোর একটি এবং বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তের জ্ঞানীগুণীদের আগমনস্থল ।

সূত্র:ইন্টারনেট