ক্যাটেগরিঃ খেলাধূলা

 

অবশেষে বাংলাদেশ বেশ ভালো ভাবেই তাদের বিশ্বকাপ মিশন শুরু করল। আইসিসি-র ওয়ানডে ষ্টেটাস প্রাপ্ত কানাডার সাথে টেষ্ট ষ্টেটাস-এর মুকুটধারী বাংলাদেশ সহজ জয় পাবে- এটা সকলেরই প্রত্যাশা ছিল এবং বাংলাদেশ বলতে গেলে বিশ্বকাপের প্রথম ওয়ার্মআপ ম্যাচেই সকলের প্রত্যাশাকে ছাড়িয়ে গেছে। আজ চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী ষ্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত বিশ্বকাপ ক্রিকেট ২০১১-এর প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচে (দিবা-রাত্রি) বাংলাদেশ কানাডাকে পরাজিত করেছে নয় উইকেটের এক বিশাল ব্যবধানে। যদিও এটা পুরোপুরি দশ উইকেটেই হতে পারত যদি না তামিম দূর্ভাগ্যজনক রান আউটের শিকার হতেন। কানাডার বিপৰে বাংলাদেশের জেতা উচিত, অন্তত আইসিসির র‌্যাংকিং সেটাই বলে কিন্তু আট বছর আগের বিশ্বকাপে পঁচা শামুকে বাংলাদেশের পদযুগল ক্ষতবিক্ষত হওয়ায় মনে মনে সবারই একটা ভয় ছিল। ছোট দলের বিপৰে বড় দলের সবসময়ই একটা বাড়তি সতর্কতা থাকে যেটা বাংলাদেশের ছিল শতকরা ১০০ ভাগ। বাংলাদেশ প্রমাণ করল আট বছর অনেক বড় সময়। এ সময়ে বাংলাদেশের ক্রিকেট অনেক এগিয়েছে, দু দুবার বিশ্বকাপের মুকুটধারী ক্যারিবিয়ানদের পেছনে ফেলে ওয়ানডে র্যাংকিং-এ বাংলাদেশ এখন নয় থেকে আটে। বাংলাদেশ এখন বড় বড় দলের বিপৰে প্রায়ই জেতে। হোয়াইটওয়াশ টার্মটিকে বাংলাওয়াশ বানিয়ে ফেলার কৃতিত্ব তো বাংলাদেশীদেরই। সুতরাং আমাদের প্রত্যাশার পারদটিকে যদি একটু উঁচুতে উঠিয়ে দেই তাতে মনে হয় দোষ হবে না।

নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৪-০ ব্যবধানে বাংলাদেশের ওয়ানডে সিরিজ জয়, এটা কোন ফ্লুক নয়। এখানে বাংলাদেশের ক্রিকেটের মান একধাপে অন্তত দু বছর এগিয়ে গেছে। বর্তমান বাংলাদেশ দলে এমন কয়েক জন খেলোয়াড় আছেন যাদের মান অন্য দলের যে কোন খেলোয়াড়ের চেয়ে কম নয়। স্ট্রং ব্যাটিং লাইন আপ যাদের কমবেশী সবাই আছেন দূর্দানত্দ ফর্মে, সমীহ জাগানো পেস অ্যাটাক, বিশ্বসেরা স্পিন বোলিং আক্রমন এবং কমিটেড ফিল্ডিং- সব মিলিয়ে বর্তমান বাংলাদেশ ক্রিকেট দল সম্ভবত: ইতিহাসের অন্য সে কোন সময়ের চেয়ে একটা কমপ্যাক্ট ফর্মে আছে এটা সবাই বিশ্বাস করবেন। বাংলাদেশের খেলোয়ারেরা এরচেয়েও বেশী এগিয়ে আছেন মানসিকতায়। নিজেদের “মিনোস” মনে করেন এমন একটা প্লেয়ার বাংলাদেশ দলে খুঁজে বের করা এখন দুষ্কর। অন্য সবাইকে সম সাময়িক মনে করা একটা বড় ব্যাপার। আগামী ১৫ ফেব্রম্নয়ারী “হোম অব ক্রিকেট” মিরপুরে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া পাকিসত্দানের বিরম্নদ্ধে বাংলাদেশের দ্বিতীয় প্রস্তুতি ম্যাচে এর একটা প্রতিফলন দেখার জন্য সবাই তৈরী থাকুন।

বাংলাদেশের প্রথম প্রস্তুতি ম্যাচ (দিবা-রাত্রি): ১২ ফেব্রম্য়ারি ২০১১, জহুর আহমেদ চৌধুরী ষ্টেডিয়াম, চট্টগ্রাম।
প্রতিপৰ: কানাডা।
টস জয়ী: বাংলাদেশ, ফিল্ডিং।
১ম ইনিংস: কানাডা ১১২/১০, ৩৭.৩ ওভার (বাগাই ৩০, হ্যান্সরা ২২, সাকিব ৩.৩-২-৫-৩, শফিউল ৪-০-৫-২, মাহমুদুলস্নাহ ৫-০-৯-২)
২য় ইনিংস: বাংলাদেশ ১১৩/১, ১৯.২ ওভার (তামিম ৬৯, ইমরম্নল ৩৯, রিজওয়ান চিমা ৪-০-১৬-১)
ফলাফল: বাংলাদেশ ৯ উইকেটে জয়ী।

সূত্র: www.espncricinfo.com