ক্যাটেগরিঃ রাজনীতি

 

চলতি সংসদ অধিবেশনেও প্রধান বিরোধী দল বিএনপি যোগ দিবেনা । জয়নাল আবেদীন ফারুক বলিয়াছেন সংসদে যোগ দেয়া হইল সময়ের অপচয়।

সাংসদ হিসাবে ট্যাক্স ফ্রী গাড়ির সুবিধা বহাল রাখিবার জন্য যখন দলমত ভুলিয়া গিয়া সংসদে একাট্টা হন, সাংসদগণের সুযোগ সুবিধা বৃদ্ধি করিবার জন্য সংসদে উপস্থিত থাকেন, সাংসদ পদ বহাল রাখিবার জন্য সংসদে নিয়মের হাজিরা প্রদান করেন তখন সংসদে উপস্থিত হওয়াতে সময়ের অপচয় হয় না । কিন্তু সাংসদ হিসাবে যথাযথ দায়িত্ব পালনেই তাহাদের মহামূল্যবান সময়ের অপচয় হইয়া যায়। গত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ একই কাজ করেছিল। আবার তার আগের আমলে আওয়ামী লীগের ঐক্যমতের সরকারের সময়ে বিএনপি একই কাজ করিয়াছিল। এই চক্র গত দুই দশক ধরিয়া চলমান রহিয়াছে।

বর্তমানে মহাজোট সরকার দেশ পরিচালনা করিতেছে। সংসদ অধিবেশনে আওয়ামী লীগ তথা মহাজোটের ২৬৭ জন সাংসদের মধ্যে খুব কম সাংসদই সংসদে উপস্থিত থাকেন। ক্ষমতাসীন দলের সাংসদ হিসাবে সংসদে উপস্থিত থাকিয়া দায়িত্ব পালন অপেক্ষা তাহাদের নিকট নিজেদের স্বার্থ উদ্ধার অতীব গুরুত্বপূর্ণ এবং অবশ্য পালনীয় কাজ। গত আমলে চারদলীয় জোটের সাংসদগণও আপন স্বার্থ উদ্ধারে নিমগ্ন থাকিবার কারনে সংসদে নিয়মিত উপস্থিত থাকিবার সময় পান নাই।

মোরাল অব দ্যা ফ্যাক্টস কি?
রাজনীতিকগণ জনকল্যাণ নহে প্রকৃতপক্ষে নিজেদের সুযোগ, সুবিধা আর ধান্ধা বাস্তবায়নের জন্যই অর্থ ব্যয় করিয়া সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন। বিজয়ী হইয়া তাহাদের দল ক্ষমতাসীন হইলেও তাহাদের সংসদে যাইবার সময় হয়না আর ক্ষমতাসীন না হইলে সংসদে উপস্থিত হওয়া তাহাদের কাছে সময়ের অপচয় ব্যতীত আর কিছু নহে।