ক্যাটেগরিঃ সেলুলয়েড

http://t0.gstatic.com/images?q=tbn:ANd9GcR_erg93lXp6GSBFtGcuqpVIyGArhZ68vo9X7UWbgQVdxJ_yak9qg http://t0.gstatic.com/images?q=tbn:ANd9GcStkvmuNESildDrOLhv_QpSP03RBdx8XZFTQ_sB-KOknjpZHwyFsg

আমির খান। গড গিফটেড প্রতিভা।আটলান্টিক মহাসাগরের এ পারের সবচেয়ে প্রতিভাবান এন্টারটেইনার। উচ্চতায় অন্য নায়কদের তুলনায় কম হলেও তারকা হিসেবে অন্য তারকাদের উপরে তার অবস্থান।আমির-শাহরুখ-সালমান প্রতিযোগিতায় বলিউড চলচ্চিত্রের রমরমা ব্যবসা। বলিউড কিং কে?সবচেয়ে জনপ্রিয়ই বা কে?কিংবা কে সেরা অভিনেতা? নতুন চমক বা নতুনত্বে সবচেয়ে পারদর্শী কে? কোন নায়কের সাথে অভিনয় করা নায়িকাদের কাছে সবচেয়ে কামণীয়? আর কোন নায়ক মানে নিশ্চিত ব্যবসায়িক সফলতা। কে সবচেয়ে নৃত্য পটিয়সী।মেধা আর মননে কে সবচেয়ে এগিয়ে?সবগুলো জিনিস একসঙ্গে বিবেচনায় আনলে যিনি সবার উপরে থাকবেন।

তিনি নিঃসন্দেহে আমির খান। কেয়ামসে কেয়মতাক চকোলেট হিরু এখন একজন জাত অভিনেতা।তার ছবি মানেই মারমার কাট কাট ব্যবসা।নিশ্চিত মুনাফা। বলিউডে নতুন কিছু করে দেখান আমির খান আর অন্যরা সেটা নিয়েই ঝাঁপিয়ে পরেন। এখন চলছে একশন ছবির জয়যাত্রা । এই একশন পুনজয়যাত্রা শুরু হয়েছে আমির খানের গজিনী ছবির মাধ্যমে।সালমান খান, টাইগার সালমান হলেন সেটাও আমি খানের পরামর্শে।গজিনি ছবি চলাকালে আমির বললেন গজিনি ছবিটির জন্য সালমান অথবা অক্ষয় মার্কা ফিগার পারফেক্ট। বাস্ সালমান একশন নিয়ে নতুন যাত্রা শুরু করলেন এখন বলিউড বাদশাহ শাহরুখ খানের সিংহাসন সালমানের দখলে । শাহরুখ খান বাদে সকল নায়ক আমির খানকেই বলিউডের নম্বর ওয়ান মানেন।

অনিল কাপুরের মেয়ে সোনম কাপুর আক্ষেপ করেছেন আমির খানের সঙ্গে অভিনয় না করলে তার অভিনয় জীবন অপূর্ণ থাকবে।অনেক লম্বু নায়িকার আক্ষেপ তারা আরেকটু খাট হলে আমির খানের সঙ্গে অভিনয় করতে পারতেন্ অভিনয় করে আরও বিখ্যাত হতে পারতেন।

তারে জামিন পার শিশুতোষ চলচ্চিত্র। অথচ বিরাট হিট।আমির খান সেরা পরিচালকের পুরস্কার জিতে নিলেন।দার্শিল সাফারি শিশু অভিনেতা সেরা ক্রিটিক অভিনেতার পুরস্কার জিতে নিলেন।এই ক্ষুদে তারকাও আমির খানের আবিষ্কার।আমির খান শুরুতে বড় প্রোডাকশন বা ব্যানারে ছবি কাজ করার সুযোগ পেয়েছেন কম। শাহরুখ খানের তুলনায় তো অনেক কম। অথচ সেই আমির খানই এখন বলিউড ফিল্মের সবচেয়ে বড় ব্যানার।এখন বড় ব্যানাররা আমির খানের পিছনে ধন্যা দিয়ে বেড়ান।আমির মানে নতুন একটি নায়িকার সৃষ্টি,নতুন একজন পরিচালকের মহা আবির্ভাব, নতুন একটা ধারার সূত্রপাত।

বলিউডের সেরা দশ চলচিত্রের তালিকায় নাম থাকবে আমির খানের অন্তত পাচটি ছবি।অস্কারে ভারতীয় ছবি মনেই আমির খান।তাই চরচ্চিত্রবোদ্ধাদের কাছে আমির খানই সেরা এবং নাম্বার ওয়ান

জুহির প্রথম টার্নিং হিট মুভি কেয়ামসে কেয়ামতাক, মাধুরির দিল, করিশমার রাজা হিন্দুস্তানী, উর্মিলার রঙ্গিলা,রানির গোলাম,গ্রেসি সিং এর লগান,কারিনার থ্রি ইডিয়ট,আসিন এর গজিনী। আমীর খানের হাত ধরেই।এই ছবি গুলো নতুন তারকার উত্থান ঘটিয়েছে।নতুন ক্রেইজ সৃষ্টি করেছে।

আমির খান তার হেয়ার স্টাইল বদল করেছেন প্রতিটি ছবিতে মঙ্গল পান্ডে ছবির লুক নিতে অপেক্ষা করেছেন চার বছর।তার চরিত্রে গ্ল্যামার আছে।আছে বৈচিত্র্য।আমীর খান ইন্ডিয়ান ফিল্মের গড। আমীর খানের ওষ্ঠে সাগরের সাফল্য।তাই তার ওষ্ঠ চুম্বনে অধীর আগ্রহে ক্যাটরিনা,কারিনা, করশিমা, মাধুরি আর জুহি চাওলারা। তার চেয়েও অধিক আগ্রহী ছবির প্রয়োজক এবং দর্শক।
গান গেয়ে পুরস্কার ও জনপ্রিয়তা পেয়েছেন।সেরা পরিচালক হয়েছেন।সেরা প্রযোজকও হয়েছেন্ । আইটেম গার্ল ব্যাপারটিকে দিল্লী বেলীতে আইটেম বয় এর প্রবর্তন করেছেন ডিস্কো ফাইটার হয়ে–আই হেইট ইয়ো লাইক আই লাভ ইয়ো কি দারুণ। আমীর খান এখন নাম্বার ওয়ান আইটেম বয়।

আমীর খান নতুন চমক নিয়ে আসছেন তালাশ ছবিতে। প্রথম বারের মতো তাকে পুলিশের খাকি পোশাকে দেখা যাবে আবারও পেশিবহুল মেচোম্যান সাথে খানদানি গোঁফ।ছবিতে তার সাথে আরও থাকবেন তার থ্রি-ইডিয়ট রান মেট কারিনা কাপুর বারবনিতা ঢং এ,গোলাম কন্যা রানি। রীমা কগতির সাসপেনশন থ্রিলার হয়ে উঠতে পারে এই বছরের সবচেয়ে ব্যবসাসফল ছবি।এই ছবির প্রচারনায় থাকবেন চলচ্চিত্র বিপননের সবচেয়ে মেধাবি মানুষটি আর তিনি আমির খান। প্রতি বছর ২৫ ডিসেম্বর আমির খান ছবির প্রত্যাশায় থাকেন সকল ভারতীয় আর এবার তার তালাশ মুক্তি পাচ্ছে ৩০শে নভেম্বর।

খান জমানা আরও দশ বছর বলিউড শাসন করবে।আর আমীর খান শাসন করবেন টিল ডেথ। তার দীর্ঘায়ু কামনা করছি।তিনি দীর্ঘদিন উপমহাদেশের দেড়শো কোটি মানুষের আনন্দ বিনোদন আর অসম্ভব ভাললাগার মুহুর্তের জন্ম দিবেন এই প্রত্যাশাই থাকলো।আমাদের রুপালি পর্দার সবচেয়ে রঙিন মানুষ হুমায়ুন ফরীদি আগেই চলে গেলেন না ফেরার দেশে তার ক্ষেত্রে যেন এমনটি না ঘটে।হুমায়ূন ফরীদির মতন ট্রাজিক বিদায় তার হবে না কারণ ওটা ভারত।জয়তু আমির খান।মিস্টার পারফেক্ট।দেয়ার ইজ অনলি ওয়ান প্রবলেম, পারফেকশনকো ইমপ্রুভ করনা মুশকিল হোতা হ্যায়। তালাশ ছবি কতটা পারফেক্ট হবে তা ছবি মুক্তি পেলেই বুঝা যাবে।

অন্য সবার মতো আমরাও তাই প্রতীক্ষায়। এ ছবিটি না দেখলেই নয়।কিছু মেসেজ কিছু দর্শন তো অবশ্যই থাকবে। কারণ আমির খানের ছবির বৈশিষ্ট এমনই।