ক্যাটেগরিঃ চারপাশে

 

ফ্লাইওভার নির্মাণকাজের জন্য দেড় বছরেরও বেশি সময় ধরে নগরীর বড় একটি অংশের মানুষ সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাচ্ছিলেন। রোদ-বৃষ্টিতে কাদা-পানি, যানজট আর ধুলোঝড়ে কাহিল অবস্থা তাদের। নির্মাণকাজে ধীরগতি, আরাকান সড়কের বেহাল দশায় অতিষ্ঠ যাত্রী ও পরিবহন মালিক-শ্রমিকেরা মানববন্ধন, সভা-সমাবেশ ইতিমধ্যে সড়কের কাদাপানিতে ধানের চারা রোপণ ও কই মাছ ছেড়ে প্রতিবাদ জানিয়েছিলেন। সব মিলিয়ে বিক্ষুব্ধ জনতা ও এলাকাবাসী গার্ডার ভাঙার পরপরই রাস্তায় নেমে আসে। তারা সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালামের পদত্যাগ দাবিসহ বিভিন্ন ধরনের স্লোগান দিতে থাকেন। উত্তেজিত জনতা চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসক ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসকের (রাজস্ব) গাড়িতে হামলা করেছে। তবে তারা অক্ষত রয়েছেন। এ ছাড়া একটি অ্যাম্বুল্যান্স ও ১২টি মোটরসাইকেলে আগুন দেওয়া হয়েছে। পুলিশ উত্তেজিত জনতাকে ছত্রভঙ্গ করতে বহদ্দারহাট এলাকায় দফায় দফায় কাঁদানে গ্যাস ছুড়ছে।

উল্লেখ্য, ২০০৯ সালে এ ফ্লাইওভারের ভিত্তি স্থাপিত হয়। ২০১০ সালের ৫ জানুয়ারি এ ফ্লাইওভারের নির্মাণকাজ শুরু হয়। সিডিএর নির্মাণাধীন এ ফ্লাইওভারে এবারসহ তিনবার দুর্ঘটনা ঘটেছে। প্রয়াত আওয়ামী লীগ নেতা জাহাঙ্গীর সাত্তার টিংকুর মালিকানাধীন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এ ফ্লাইওভার নির্মাণের কার্যাদেশ পায়।