ক্যাটেগরিঃ মুক্তমঞ্চ

থার্টি ফাস্ট নাইট বা ইংরেজি নববর্ষ মানে নতুন বছরে নতুন করে পথ চলার অনুপ্রেরণা। থার্টি ফাস্ট নাইট বা ইংরেজি নববর্ষ মানে পুরাতন সব গ্লানি ভুলে নতুন সুখ, নতুন স্বপ্ন ও সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাওয়ার দীপ্ত প্রত্যয় ব্যক্ত করে আগামি বছরের শুভ সূচনা। ডিসেম্বরের শেষ দিনটি সমস্ত পৃথিবী জুড়ে পালন করা হয় থার্টি ফাস্ট নাইট বা শুভ নববর্ষ হিসেবে। ইংরেজি আন্তর্জাতিক ভাষা হওয়ার সুবাধে বহিঃবিশ্বের সাথে সামঞ্জস্য রাখতে আমাদের দেশে সরকারি ভাবে ইংরেজি দিন তারিখ অনুসরণ করা হয়। যার ফলে স্বাভাবিক ভাবেই ইংরেজি নববর্ষের দিনটি আমাদের জীবনে বিশেষভাবে জড়িয়ে যায়।

ইংরেজি আন্তর্জাতিক ভাষা। তাই এই ভাষার প্রতি সম্মান দেখাতে আমরা প্রতি বছর ’ইংরেজি নববর্ষ’ পালন করি। থার্টি ফাস্ট নাইট বা নববর্ষ পালন করা মানে সত্য ও সুন্দরের পথে আগামি বছরকে বরণ করে নেওয়া। আগামি একটি বছর কিভাবে চলতে হবে, কিভাবে কাজ করলে আমরা আরও উন্নতির পথে এগিয়ে যেতে পারব, এইসব নববর্ষের দিনের ভাবনা। কিন্তু প্রতি বছর ডিসেম্বর মাস এলে নববর্ষের উৎসব পালন করা নিয়ে মৌলবাদীদের মাথা ব্যথা শুরু হয়ে যায়।

মৌলবাদি প্রতিষ্টানগুলোতে আরবি মাসের হিসাব করা হয়। তাই ইংরেজি নববর্ষ পালন করতে যেমন তাদের বাধ্য করা হয়নি, তেমনি ইংরেজি নববর্ষ সম্পর্কে জ্ঞান দিতেও  বলা হয়নি। ধর্মকে পুঁজি করে যারা ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়, জাতি তাদের কাছে জ্ঞানের প্রত্যাশি নয়।  ভিতরে ভিতরে ভাল মানুষ হন অথবা নাই হন সেটা দেখার বিষয় নয়। বরং সেটাই কাম্য, আপনাদের আচরণে যদি কেউ বিরক্ত হয় অথবা অসুবিধায় পড়ে তাহলে আপনাদের আচরণ পরিবর্তন করতে হবে। আপনারা নিজেদের সম্পর্কে যা খুশি তাই করতে পারেন। কিন্তু প্রকাশ্যে কারো ক্ষতি করতে পারেন না। কারো অসুবিধা সৃষ্টি করা আপনাদের পক্ষে কখনো উচিত হবে না।

আমরা বাঙালি। বিশ্বের সবচেয়ে শান্তি প্রিয় জাতি। আমার আচরণ অন্য কারও বিরক্তের কারণ হয়ে দাঁড়াক, এটা বাঙালির বৈশিষ্ট্য নয়। থার্টি ফাস্ট নাইট বা ইংরেজি নববর্ষ সবার জীবনে বয়ে আনুক অনাবিল সুখ, শান্তি ও আনন্দ এই প্রত্যাশাই রইল।