ক্যাটেগরিঃ নাগরিক মত-অমত

সমাজ-ভাবনাটি আমার, এখানকার ব্লগারসমাজে প্রকাশ করা যায় বোধ করি। বলি, বোধের পার্থক্যপূর্ণ শ্রেণিবৈষম্যময় সমাজে সুবোধ, স্বল্পবোধ ও নির্বোধের সামাজিক-দ্বন্দ্ব কীযে অসহনীয়! বোধজাত বিভেদ-যন্ত্রণা ও পার্থক্যপূর্ণ শ্রেণিবৈষম্যময় সমাজ যেখানে কষ্টে করি বসবাস, সহ্য করি ভুল সহবাস। যারা সংবেদনশীল, প্রতিদিন বিনা নোটিশে নানান বোধজাত বিভেদ-যন্ত্রণায় মুখোমুখি হতে হয়। এটা পার্থক্যপূর্ণ শ্রেণিবৈষম্যময় সমাজের অপজাত সমস্যা।

আমরা সময় মতো অনেকে অনেক কিছুই বুঝি না। না বুঝে, এমনকি অন্যকে আঘাতও করি ভুল বুঝে। ভালো কথা, ভুলবুঝে তথা সঠিক ব্যাখ্যা (ইন্টারপ্রিটেশনের অভাবে) করতে না পেরেও মনে করি বুঝে ফেলেছি। ফলে, নিজে তো ভুল বুঝলাম, সমাজেও ভুলের সংক্রমণ ঘটাই কখনো কখনো। ভগবান কর্তৃক এটা একটা অন্যায়-অবিচার নয় কি? কাউকে সঠিক বোধগম্যতা, সময় মতো বোঝার ক্ষমতা দিলেন, সুবোধ করলেন, বৈদ্যুতিক বাল্বের মতো, যদিও বেশি বিদ্যুত শক্তি খরচ হয় তাতে, ঈশ্বর / তিনি আবার কাউকে দিলেন স্বল্প বোধগম্যতা, টিউবলাইট / বাতির মতো, কম বিদ্যুত শক্তি খরচ হয় যাতে। এই যে বোধের পার্থক্যপূর্ণ শ্রেণিবৈষম্যময় সমাজ সৃষ্টি করলেন তিনি (ঈশ্বর), যেখানে সুবোধ/যথেষ্টবোধ, স্বল্পবোধ ও নির্বোধের সহবাস, এটা যে কত কষ্টকর তা অবর্ণণীয়। নির্বোধ মানুষের সাথে সমাজে সহবাস করা যায়, তবে ক-ঠি-ন, স্বল্পবোধের মানুষের সাথে সমাজে সহবাস যন্ত্রণাদায়ক। ডিস্টার্বিং এলিমেন্ট। এটার জন্য আমি কাউবক না কাউকে দায়ী করতে চাই। কাকে দায়ী করবো? ধার্মিক হিসেবে আর কাকে দায়ী করবো ভগবানকে ছাড়া। তবে তাঁর ইচ্ছা বোঝা ভার। সেটা বোধ হয় মানুষের কম্ম নয়। তিনি রহস্যময়, ভালোবাসেন রহস্যজালে বাস করতে। তাঁকে, যদি তিনি দৃশ্যমান হতেন, প্রশ্ন করার সুযোগ পেতাম জিজ্ঞাসা করতাম, কেনরে ভাই ভগবান, এই বিভেদজাত যন্ত্রণা সমাজে সৃষ্টি করলে তুমি? একটু বিভেদ-যন্ত্রণা-মুক্ত জীবন যাপনও করতে দিলে না ঈশ্বর। একি তোমার সৃষ্টির খেলা! নাকি লীলা, নাকি খেয়াল, নাকি বেখেয়াল, নাকি অন্য কিছু?

ভগবান, তুমি তো জানো, সময় মতোই সব কিছু বুঝতে হয় নইলে বাধে যন্ত্রণা। পূর্ণবোধ, স্বল্পবোধ ও নির্বোধের দ্বন্দ্ব।তুমি দ্বন্দ্ব দেখে কি ক্রীড়ামোদ পাও, হে আমার নমস্য ভগবান?
সমাজে পূর্ণবোধ, স্বল্পবোধ ও নির্বোধের দ্বন্দ্বেরই ফল হল, সামাজিকদের মধ্যে নজরুল বনাম রবীন্দ্রনাথ দ্বন্দ্ব।

সমাজে পূর্ণবোধ, স্বল্পবোধ ও নির্বোধের দ্বন্দ্বেরই ফল হল, সামাজিকদের মধ্যে শামসুর রাহমান বনাম আলমাহমুদ কে বড় কবি-দ্বন্দ্ব,
ইত্যাদি।