ক্যাটেগরিঃ চিন্তা-দর্শন

 

কর্তৃত্ববাদী মানুষ এক ধরনের মানসিকভাবে বিপর্যস্ত ও অসুস্থ। সে শুধু নিজেই নিজের জীবনটা বিপর্যস্ত করে না, ধ্বংস করে বিপরীত সম্পর্কের তথা স্বামী কিংবা স্ত্রীর বিবাহ পরবর্তী দাম্পত্য-জীবন, সন্তানের বেড়ে ওঠা থেকে পুরোটা জীবন, প্রতিবেশী ও সহকর্মীর সাময়িক জীবন। একজন মানুষের কর্তৃত্ববাদী ব্যক্তিত্ব গড়ে ওঠে কিছুটা জন্মগতভাবে আর বাকিটা পরিবারের প্রশ্রয়ে। একসময় সে পরিবারের জন্য, সমাজের জন্য বিষফোঁড়ায় পরিণত হয়।
কর্তৃত্ববাদী ব্যক্তির সংস্পর্শে যে ভুল ক্রমে আসে তার জীবন, ভুলক্রমে যে জন্ম নেয় তার ঔরসে তার জীবন, ঘটনাচক্রে যে হয় সহকর্মী তার সময়- মোটকথা কর্তৃত্ববাদী মানুষ ধ্বংস করে চলে তার চারপাশের পরিবেশ। কর্তৃত্ববাদীরা নিজেরা পোড়ে মানসিক রোগে, সংক্রামিত করে চারপাশ পরিবার সমাজ পরিবেশ। কর্তৃত্ববাদী মানুষ থেকে সাবধান। কীভাবে নিজেকে রক্ষা করবেন? এটা আমারও জানা নেই।
কর্তৃত্ববাদীর পাল্লায় পড়েছেন তো নিজেকে বিছ্চিন্ন করতে পারলে ভালো, নচেৎ মরেছেন, জাহান্নামে বসবাস করতে হবে, অথবা কায়েস আহমদের মতো আত্মহত্যা করতে হবে। কিছু কর্তৃত্ববাদী ব্যক্তিকে দেখে ও তাদের সাথে সম্পৃক্ত মানুষদের করুণ পরিণাতি দেখে কষ্টকর পর্যবেক্ষণটা শেয়ার করলাম। বিশেষ করে শিশুরা এ্সব নেতিবাচক কতৃত্ববাদী আচরণের শিকার হয় সবচেয়ে বেশি। পরিণাম ভোগ করে অনাহুত। পর্যবেক্ষণটা লিখে শেয়ার করলাম। জানালাম। কারও যেন এসব দেখতে বা সইতে না হয়। কোনো শিশু যেন নেতিবাচক আচরণের শিকার না হয়।